‘কারাগারে’ প্রশংসা কুড়াচ্ছে এফ এস নাঈম

এ আল মামুন এ আল মামুন

স্টাফ রিপোর্টার

প্রকাশিত: ৪:৪১ অপরাহ্ণ, আগস্ট ২২, ২০২২ | আপডেট: ৪:৪১:অপরাহ্ণ, আগস্ট ২২, ২০২২

আব্দুল্লাহ আল মামুন (এ আল মামুন), বিনোদন ডেস্কঃ

ওটিটি প্ল্যাটফর্ম হইচইয়ে মুক্তি পয়েছে সৈয়দ আহমেদ শাওকীর ওয়েব সিরিজ কারাগার–এর প্রথম কিস্তি। বিষয়বস্তু, প্রধান চরিত্রের লুক মিলিয়ে ট্রেলার মুক্তির পর থেকেই প্রশংসিত হয়ে আসছিল কারাগার। সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ছাড়াও বিভিন্ন মহলে এই সিরিজটি নিয়ে আলোচনা চলছে। ‘হইচই’ প্লাটফর্মে কারাগার–এর প্রথম কিস্তির সিরিজটি প্রকাশের সঙ্গে সঙ্গেই চারদিকে শোরগোল পড়ে গেছে। বিশেষ করে কারাগারে চঞ্চল চৌধুরী, ইফতাখার দিনার ও এ কে আজাদ সেতু ছাড়াও এফ এস নাঈমের অভিনয় সর্বমহলে প্রশংসা কুড়াচ্ছে। সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমেও সিরিজটি নিয়ে আলোচনা চলছে। অভিনয়শিল্পীদের পাশাপাশি দর্শকরাও মুগ্ধতা প্রকাশ করেছেন।

এফ এস নাঈম বলেন, সত্যি কথা বলতে কাজের প্রশংসা পেলে সবারই ভালো লাগে। আর শুটিংয়ের অভিজ্ঞতাও অনেক ভালো। তাছড়া হইচইয়ের মতো বড় প্লাটফর্মে আমার প্রথম কাজটা প্রদর্শিত হয়েছে। তাই প্রশংসা পাওয়ার পর মনে হচ্ছে পরিশ্রম সার্থক হয়েছে।

তিনি আরো বলেন, যখন সিনিয়রদের ফোন পেয়ে অভিনয়ের প্রসংশাটা শুনি তখন নিজেকে অনেক গর্বিত মনে হয়। আমাদের সহকর্মী থেকে সবাই, এই সিরিজটি দেখে আমাকে যেভাবে প্রসংশিত করছে তাতে আমার কাজের জোরটা না ততোটা বাড়ছে। তাই বলবো সামনে যেন সুন্দর সুন্দর কাজ দিতে পারি সেই দোয়া করবেন।

বৃহস্পতিবার রাতে হইচইয়ে মুক্তি পায় ওয়েব সিরিজ কারাগার। তাকদীরখ্যাত নির্মাতা সৈয়দ আহমেদ শাওকীর সঙ্গে সিরিজটি পরিচালনায় রয়েছেন সালেহ সোবহান অনিম। অভিনয় করেছেন চঞ্চল চৌধুরী, আফজাল হোসেন, ইন্তেখাব দিনার, বিজরী বরকতউল্লাহ, তাসনিয়া ফারিণ, এফ এস নাঈম, শতাব্দী ওয়াদুদ, জয়ন্ত চট্টোপাধ্যায়, এ কে আজাদ সেতুর মতো শিল্পীরা।

এই ওয়েব সিরিজে দেখা যায়, একটি কারাগারের ১৪৫ নম্বর সেলে হঠাৎ করে এক বন্দি হাজির। দীর্ঘদিন যে সেল বন্ধ ছিল, যে সেলের তালার সিলগালা করা হয়েছে, চাবি হারিয়ে গেছে, তালা কেটে ভেতরে ঢুকতে হয় খোদ জেল খানার বড় কর্মকর্তাকেই, সেখানে এক কয়েদির আগমন। কয়েদি দাবি করেন,তিনি নবাব সিরাজউদ্দৌলার সিপাহসালার মীরজাফরকে খুন করে জেলে আছেন। এর আগে ছিলেন আন্দামানসহ বিভিন্ন জেলে। কয়েদি কথা বলতে পারেন না। ইশারা ভাষার আশ্রয় নিয়ে যোগাযোগ করতে হয়।

সাধারণত এ ধরনের গল্প যত আগায়, তত জট খুলতে থাকে। কিন্তু শাওকির কারাগার যত এগোয়, তত জট পাকাতে থাকে। জট পাকাতে পাকাতেই শেষ হয়।
এরপর আসে দ্বিতীয় পর্বের ঘোষণা। সব রহস্যের সমাধান যে দ্বিতীয় পর্বে তা বুঝতে দর্শকের কষ্ট না হলেও, রহস্যের গতি প্রকৃতি বুঝতে যথেষ্ট বেগ পেতে হবে তা স্পষ্ট।

শাওকি বললেন, প্রথম পর্বে সব ক্লু দেওয়া আছে। প্রথম পর্বের ক্লু অনুযায়ী সব যখন মিলতে শুরু করবে, দর্শক একের পর এক ধাক্কা খাবে। প্রথম পর্বের কম গুরুত্বপূর্ণ চরিত্রগুলো দ্বিতীয় পর্বে ‘খেল’ দেখাবে।

Print Friendly, PDF & Email