দিনাজপুরে তুলা বীজ খামারের সীমানা প্রাচীর নির্মান নিয়ে সংবাদ সম্মেলন

জি এম নিউজ জি এম নিউজ

বাংলার প্রতিচ্ছবি

প্রকাশিত: ৬:২০ অপরাহ্ণ, জুলাই ২৬, ২০২২ | আপডেট: ৬:২০:অপরাহ্ণ, জুলাই ২৬, ২০২২

দিনাজপুর প্রতিনিধি ঃ দিনাজপুরের সদরপুর গ্রামবাসীর চলাচলের জন্য ২ শত মিটার রাস্তা উন্মুক্ত রেখে কয়েক হাজার গ্রামবাসীর চলাচলের একমাত্র সড়ক রক্ষার দাবীতে ২৬ জুলাই মঙ্গল দিনাজপুর প্রেসক্লাব মিলনায়তনে সদর উপজেলার সদরপুর গ্রামের অসহায় মানুষের সংবাদ সম্মেলন। আয়োজিত সম্মেলনে গ্রামবাসীর পক্ষে লিখিত বক্তব্য পাঠ করেন মো. সেলিম আখতার।
লিখিত বক্তব্যে তিনি বলেন, আমরা দিনাজপুর সদর উপজেলাধীন ২নং সুন্দরবন ইউনিয়নের সদরপুর গ্রামের অধিবাসী। সদরপুর গ্রামে বসবাসরত প্রায় দুই শত পরিবারের পক্ষে এই সাংবাদিক সম্মেলনে উপস্থিত হয়েছি। আমরা সদরপুরের যে জায়গায় বসবাস করছি তা সদরপুরের তুলা বীজ বর্ধন খামারের উত্তর দিকে অবস্থিত। ১৯৮৪ সালে ভূমি হুকুম দখলের মাধ্যমে এই খামারের কার্যক্রম শুরু করা হয়। ভূমি হুকুম দখলের সময় ৭০-৮০ বছরের বেশি সময় হতে ব্যবহৃত প্রায় ২০০ মিটার লম্বা রাস্তাটিও হুকুম দখল করা হয় এবং স্থানীয় অনেক বাসিন্দার বাড়ি-ঘর উচ্ছেদ করা হয়। উচ্ছেদকৃত পরিবারগুলো ক্ষতিপুরণ না পেয়ে বর্তমানে অতি মানবেতর জীবন যাপন করছে।

যে ২০০ মিটার রাস্তার কথা বলছি তা বাংলাদেশ স্বাধীন হওয়ার ২৫-৩০ বছর আগের থেকে রাস্তা হিসেবেই ব্যবহার হয়ে আসছে। সদরপুর গ্রামের বসবাসকারি দেড় হাজার লোকসহ আশেপাশের প্রায় তিন হাজার মানুষ দশমাইল হতে সৈয়দপুরগামী মূল সড়কে আসা-যাওয়ার জন্য ঐ রাস্তা ব্যবহার করে থাকেন। মাত্র ২০০ মিটার রাস্তার কোথাও কোন বাঁক নাই। সর্বশেষ ভূমি জরিপকালেও রাস্তাটিকে রাস্তা হিসেবেই উল্লেখ করা হয়েছে।

বর্তমানে তুলাফার্ম কর্তৃপক্ষ তাদের হুকুম দখলকৃত এরিয়ায় প্রাচীর নির্মানের জন্য প্রস্তুতি গ্রহন করেছেন। ইট, বালুসহ নির্মান সামগ্রী জমা করেছেন। আমরা জেনেছি যে, তারা রাস্তাটিও প্রাচীর দ্বারা ঘিরে নিবেন এবং একটি বিকল্প রাস্তা ছাড়বেন। কিন্তু তারা যেভাবে বিকল্প রাস্তা দিতে চান, সেটা মোটেও গ্রহনযোগ্য নয়। আমরা এখন যেখানে মাত্র ২০০ মিটার পাড়ি দিয়ে মূল সড়কে আসা-যাওয়া করতে পারছি, সেখানে বিকল্প রাস্তায় এক থেকে দেড় কিলোমিটারের বেশি পথ পাড়ি দিতে হবে। মাত্র ২০০ মিটারের পরিবর্তে এক- দেড় কিলোমিটার ঘুরিয়ে দেয়া যুক্তিহীন। তদুপরি বিকল্প রাস্তা খুব বেশি প্রশ্স্ত হবে না এবং রাস্তাটিতে ৮-১০টি বাঁক থাকবে। এই সমস্ত অসুবিধা নিয়ে সদরপুরের মানুষ অবরুদ্ধ হয়ে স্বাভাবিক জীবন যাত্রা দূর্বিসহ হয়ে পড়বে। তাই আমাদের দাবী তুলা ফার্ম কর্তৃপক্ষ মাত্র ২০০ মিটারের রাস্তাটি ছেড়ে দিয়েই যেন প্রাচীর নির্মান করেন। পাশাপাশি হাজিপাড়া গ্রামের উত্তর-পূর্বে ও পূর্ব-পশ্চিমে প্রাচীর তোলার সময় প্রাচীর বরাবর ১০ ফুট রাস্তা ছেড়ে তা উক্ত ২০০ মিটারের রাস্তা সাথে সংযুক্ত করার জন্যও আমরা আবেদন জানাচ্ছি।

আমরা এই দাবী জানিয়ে একাধিকবার দিনাজপুরে ও ঢাকায় তুলা বোর্ড কর্তৃপক্ষের সাথে কথা বলার চেষ্টা করেছি। লিখিত পত্রেও আহ্বান জানিয়েছি যে, বাপ-দাদার আমল হতে ব্যবহার হওয়া রাস্তা বাদ দিয়েই যেন প্রাচীর নির্মান করা হয়। আমরা বলেছি, পাকিস্তান সৃষ্টির সময় হতে এই রাস্তা ব্যবহার হয়ে আসছে এবং রাস্তা বন্ধ করা অমানবিক ও নিষ্ঠুর আচরনের সমতুল্য হবে। আইনের দিক থেকেও কখনো কোন রাস্তা বন্ধ করা যায় না। এমন যুক্তি দেয়ার পরেও কর্তৃপক্ষ আমাদের কথায় সাড়া দেয় নাই এবং আমাদের লিখিত স্মারক পত্র রিসিভ করে নাই। ২০২১ সালের ১৫ মার্চ তারিখে আমরা তুলা ফার্মকে লিখিত পত্র দিয়েছিলাম, যে পত্রে স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান ও সদর উপজেলা চেয়ারম্যানের সুপারিশ ছিল। তারা সেটি নিলেও কোন রিসিপ্ট সাক্ষর দেয় নাই। মূলত তারা গ্রামবাসীর কোন কথাই শুনছেন না। এই কারনে আমরা সদর ইউএনও বরাবর গত ৯ জুন ২০২২ ও ১৮ জুলাই ২০২২ তারিখে লিখিত স্মারকলিপি দিয়েছি। রাস্তাটি খোলা রাখার দাবী জানিয়ে মাননীয় জেলা প্রশাসক বরাবরেও গত ২০ জুলাই ২০২২ তারিখে স্মারকলিপি দিয়েছি।

সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্যে তারা বলেন, তুলা বর্ধন খামার ভাল ভাবে চলুক, বড় প্রতিষ্ঠান হয়ে উঠুক এতে আমাদের কোনো আপত্তি নাই। আমাদের দাবী হলো একটাই, বাপ-দাদার সময়কাল হতে তথা পাকিস্তান আমল হতে যে ২০০ মিটার রাস্তা সদরপুর গ্রামবাসী ব্যবহার করছেন তা যেন প্রাচীরের বাইরে রাখা হয়। রাস্তা বাদ দিয়ে খামারের বাকি জায়গা প্রাচীর দ্বারা ঘিরে নিলে আমাদের কোন আপত্তি থাকবে না। আমরা এ বিষয়ে মাননীয় হুইপ মহোদয়েরও মাধ্যমে মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর সহযোগীতায় রাস্তাটি সদরপুর গ্রামবাসীর চলাচলের জন্য উন্মুক্ত রাখার দাবী জানাচ্ছি। এসময় গ্রামবাসীর পক্ষে আরো উপস্থিত ছিলেন,মো: হোসেন আলী, মো: মজিবর রহমান ও মো: বাবু সরকার প্রমুখ।

Print Friendly, PDF & Email