কাহারোলে ইউপি চেয়ারম্যন মাছের অভয় আশ্রম বন্দ করে রাস্তা বানিয়ে অবৈধ বালু উত্তলন করছে

রংপুর ব্যুরো

প্রকাশিত: ১০:৫০ পূর্বাহ্ণ, জুন ২০, ২০২২ | আপডেট: ১০:৫০:পূর্বাহ্ণ, জুন ২০, ২০২২

দিনাজপুর প্রতিনিধি: দিনাজপুরের কাহারোলে এক ইউপি চেয়ারম্যানের নদী থেকে অবৈধ বালু উত্তোলনের ফলে বন্ধ হয়ে গেছে মায়ের অভয়াশ্রম, হুমকির মুখে পড়েছে নদীতীরবর্তী ইউনিয়ন পরিষদ ভবনটিও।

দিনাজপুরের কাহারোল উপজেলার সুন্দরপুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যন আনোয়ার হোসেন মানিক মাছের অভয়াশ্রম বন্ধ করে নদীর মাঝখান দিয়ে রাস্তা বানিয়ে নদী হতে অবৈধ ভাবে বালু উত্তোলন করে বিক্রয় করায় দশ চাকার ড্রাম ট্রাক চলাচলের ফলে হুমকির মুখে পড়েছে ইউনিয়ন পরিষদ ভবন, দেখা দিয়েছে ফাটল। সরেজমিন ঢাকা-পঞ্চগড় মহাসড়কের ধারে কাহারোল উপজেলার সুন্দরপুর ইউনিয়ন পরিষদ সংলগ্ন পিছনে রয়েছে আত্রাই নদী ও নদীর মৎস অভয়াশ্রম ঘুরে জানা যায়, ২০০০ সালে ঢাকা-পঞ্চগড় মহাসড়কের পাশে আত্রাই নদীর ধারে বালু মাটিতে সুন্দরপুর ইউনিয়ন পরিষদ ভবনটি তৈরী করা হয়। ভবনটি রক্ষার জন্য নদীতে বোল্ডার দিয়ে বাধ নির্মান করা হয়। পাশাপাশি ২০১৪ সালে ইউনিয়ান পরিষদের সহযোগিতায় ও মৎস বিভাগের সরকারী অর্থায়নে মৎস অভয়াশ্রমটি উদ্বোধন করেন দিনাজপুর-১ (বীরগঞ্জ-কাহারোল) আসনের জাতীয় সংসদ সদস্য মনোরঞ্জন শীল গোপাল।

বর্তমান ইউপি চেয়ারম্যন আনোয়ার হোসেন মানিক পরিষদ ভবন ঘেষে মৎস অভয়াশ্রমের মাঝখান দিয়ে রাস্তা বানিয়ে আত্রাই নদীর বালুর চর হতে অবৈধ ভাবে বালু উত্তলন কর বিক্রয় করছেন। আর বালু পরিবহনের কাজে ব্যবহৃত দশ চাকার ড্রাম ট্রাক চলাচলের ফলে ইউনিয়ন পরিষদ ভবনে দেখা দিয়েছে ফাটল। পাশাপাশি ইউপি চেয়ারম্যন মানিক এর ভাতিজা রিয়াজুলের পুত্র মিশু ক্ষমতার অপব্যবহার করে পরিষদের অল্প দুরে নদীতে ড্রেজার মেশিন লাগিয়ে বালু উত্তোলন করে বিক্রয় করছে।

সুন্দরপুর ইউনিয়নের পূর্ব মল্লিকপুর গ্রামের স্থানীয় বাসিন্দা আজাদ আলীর পুত্র সুমন ইসলাম জানায়, ইউপি চেয়ারম্যনের নেতৃত্বে ইউনিয়ন পরিষদ ভবনের পাশ দিয়ে মৎস অভয়াশ্রমের মাঝখান দিয়ে রাস্তা বানিয়ে রাতের অন্ধকারে নদী হতে অবৈধ ভাবে বালু উত্তোলন করে বিক্রয় করা হচ্ছে। নদীর চরে আমারা আবাদ করে খাই। আমরা এলাকাবাসী প্রতিবাদ করলে চেয়ারম্যন মানিক ও তার সহযোগী বীরগঞ্জ উপজেলার পাল্টাপুর ইউনিয়নের কুড়ীটুিকয়া গ্রামের তোফাজ্জল হোসেন রাজা বালু উত্তোলনে বাধা দিলে কাহারোল উপজেলা নির্বাহী অফিসারকে দিয়ে মামলা করার হুমকি দেন। সুন্দরপুর ইউনিয়ন পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যন নাসারুল ইসলাম জানান, অবৈধ ভাবে বালু উত্তলন করে ড্রাম ট্রাকের মাধ্যমে নিয়ে যাওয়ার ফলে পরিষদ ভবনটি হুমকির মুখে পড়ে। দেখা দিয়েছে ফাটল এবং মৎস অভয়াশ্রমটির মাঝখান দিয়ে রাস্তা বানানোর ফলে ব্যাহত হচ্ছে মাছের উৎপাদন।

এবিষয়ে সুন্দরপুর ইউনিয়ন পরিষদের সচিব মোঃ সোহরাব আল কে জিজ্ঞাসা করা হলে তিনি বলেন, পরিষদ ভবনের পাশ দিয়ে মৎস অভয়াশ্রমের মাঝ দিয়ে রাস্তা বানিয়ে বালু উত্তোলন করা হচ্ছে। কে বা কারা বালু উত্তলন করছে আমি জানিনা। তবে ইউপি চেয়ারম্যনের জানার কথা।

সংরক্ষিত মহিলা ইউপি সদস্যা ললিতা রানী রায় জানান, আমাদের চোখ তো অন্ধ না। পরিষদ ভবনের পাশ দিয়ে রাস্তা বানিয়ে বালু উত্তোলন চলছে দেখছি। কিছু বলতে পারছি না।

সুন্দরপুর ইউনিয়ন পরিষদের ভুমি কর্মকর্তা মোস্তাফিজুর রহমান তালুকদার বলেন, উপজেলা নির্বাহী অফিসারের নির্দেশে আমি সরজমিনে তদন্তে গেলে অবৈধভাবে বালু উত্তোলন করতে দেখি। বিষয়টি উর্দ্ধতন কর্তৃপক্ষকে জানানো হয়েছে।

এবিষয়ে কাহারোল উপজেলা নির্বাহী অফিসার মনিরুল হাসান বালু উত্তোলন করে নিয়ে যাওয়ার ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে বলেন, সংবাদ পেয়ে আমি ঘটনাস্থলে গিয়ে ২টি ড্রাম ট্রাক আটক করি। ড্রাম ট্রাক ২টিকে ভ্রাম্যমান আদালত ৫০হাজার টাকা জরিমানা করা হয়। একটির জরিমানার টাকা ইউপি চেয়ারম্যন পরিশোধ করে।

সুন্দরপুর ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান আনোয়ার হোসেন মানিক মুঠোফোনে জানান, আমি এগুলোর সাথে জড়িত নই। ইউএনওর নির্দেশে বর্তমানে কাজ বন্ধ রয়েছে। এবিষয়ে তিনি প্রশাসনের সাথে কথা বলার অনুরোধ জানান।

কাহারোল উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যন বীরমুক্তিযোদ্ধা আব্দুল মালেক সরকার জানান, আমি ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছি। সরকারি নির্দেশনা ছাড়াই এখানে বালু উত্তোলন করে বিক্রি করা হচ্ছে। অভিযোগের কারণে বর্তমানে কাজ বন্ধ রয়েছে। এর বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নিতে উর্ধতন কর্তপক্ষকে জানানো হয়েছে।

Print Friendly, PDF & Email