গৌরনদীতে ব্যবসায়ী অপহরণের অভিযোগ ছাত্রলীগ নেতার বিরুদ্ধে

জি এম নিউজ জি এম নিউজ

বাংলার প্রতিচ্ছবি

প্রকাশিত: ১২:০০ পূর্বাহ্ণ, জানুয়ারি ২৪, ২০১৮ | আপডেট: ১২:০০:পূর্বাহ্ণ, জানুয়ারি ২৪, ২০১৮

গৌরনদীতে সরকারি গৌরনদী কলেজ ছাত্র সংসদের নাট্য সম্পাদক ও কলেজ ছাত্রলীগের সদস্য বেলাল রেজভী ও তার অপর দুই সহযোগীর বিরুদ্ধে চাঁদা দাবীর অভিযোগ পাওয়া গেছে। তারা ১০ লাখ চাঁদার না পেয়ে এক ঔষধ ব্যবসায়ীকে অপহরণ করে একটি বাড়িতে চার ঘণ্টা আটকে রাখে।

অভিযোগকারী ব্যবসায়ীর নাম মো. তুহিন। তিনি গৌরনদী উপজেলার উত্তর পালরদী গ্রামের মো. আবুল কালাম বেপারীর পুত্র। জানা গেছে, তুহিন গৌরনদী টিএ্যান্ডটি মার্কেট সংলগ্ন মো. আলমগীর উকিলের বাড়ির নিচতলা ভাড়া নিয়ে ‘মেসার্স মদিনা মেডিকেল হল’ নামে একটি ওষুধের দোকান চালান। গত ৬ মাস যাবৎ তিনি সেটি পরিচালনা করে আসছেন।

মো. তুহিন জানান, সোমবার সন্ধ্যায় সরকারী গৌরনদী কলেজ ছাত্রলীগের সদস্য ও সরকারি গৌরনদী কলেজ ছাত্র সংসদের নাট্য সম্পাদক বেলাল রিজভী (২২) ও তার সহযোগী সাগর সরদার(৩২) ও রিপন বেপারী(২৫) তার দোকানে আসে। তারা রোগী দেখানোর নাম করে দোকানে প্রবেশ করে। তারপর তারা চিকিৎসক তৌহিদুর রহমান((৩৬), ফার্মাসিষ্ট মো. বেলাল হোসেন(২১) ও ষ্টাফ আকলিমা আক্তারকে(৩৫)একটি কক্ষে নিয়ে আটক করে তালাবদ্ধ করে রাখে। এরপর তারা তুহিনকে জিম্মি করে তার কাছে দশ লক্ষ টাকা চাঁদা দাবী করে।

মো. তুহিন আরও জানান, বেলাল রেজভী ও তার সহযোগীরা আমাকে জঙ্গি আখ্যায়িত করে বিভিন্ন ভয়ভীতি দেখাতে থকে। তারা বলে ‘তোর দোকানে বিভিন্ন জেহাদি বইপত্র রয়েছে। টাকা না দিলে তোকে ধরিয়ে দেওয়া হবে।’ আমি টাকা দিতে অস্বীকার করলে তারা আমাকে বলে, ‘গৌরনদী পৌরসভার মেয়র মো. হারিছুর রহমান তোকে পার্টি অফিসে নিয়ে যেতে বলেছে।’ আমি মেয়রের কাছে যেতে রাজি হই। এরপর তারা আমাকে একটি মোটরসাইকেলে তুলে নিয়ে পৌর মেয়রের কাছে না নিয়ে আমাকে আশোকাঠী এলাকার একটি বাড়িতে নিয়ে যায়। সেখানে একটি বিল্ডিংয়ের একটি কক্ষে আমাকে সন্ধা সাড়ে ছয়টা থেকে রাত সাড়ে ১০টা পর্যন্ত ৪ ঘন্টা আটকে রাখে।

তুহিন আরো বলে, ‘অপহরণকারীরা দশ লাখ টাকা চাঁদা আদায়ের জন্য আমাকে বিভিন্ন হুমকি দিয়ে ভয়ভীতি দেখায়। এক পর্যায়ে আমাকে জিম্মি করে আমার কাছ থেকে একশত পঞ্চাশ টাকার জুডিশিয়াল স্ট্যাম্পে জোরপূর্বক স্বাক্ষর নেয়। আমাকে অপহরণের খবর পেয়ে আমার স্বজনরা আমাকে মুঠোফোনে কল দিলে আমার ফোন কেড়ে নিয়ে তাদের শিখিয়ে দেওয়া কথা বলতে আমাকে বাধ্য করে। এক পর্যায়ে পুলিশের উপস্থিতি টের পেয়ে আমার পকেটে থাকা নগদ ২০ হাজার টাকা কেড়ে নিয়ে বিষয়টি কাউকে না জানানোর হুমকি দিয়ে আমাকে ছেড়ে দেয়।

অভিযোগ সম্পর্কে জানতে ছাত্রলীগ নেতা বেলাল রেজভীর মোবাইলে অসংখ্যবার কল করলেও সে ফোন রিসিভ করেনি।

গৌরনদী মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. মনিরুল ইসলাম ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে বলেন, বিষয়টি ব্যবসায়ী তুহিন মৌখিকভাবে আমাকে অবহিত করেছে। কিন্তু এখনো কোন লিখিত অভিযোগ দেয়নি। লিখিত অভিযোগ পেলে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

  • ইত্তেফাক