হামলার শিকার শিক্ষার্থীদের বিচার চাইলেন ছাত্রলীগ সভাপতি

জি এম নিউজ জি এম নিউজ

বাংলার প্রতিচ্ছবি

প্রকাশিত: ১১:৪৯ অপরাহ্ণ, জানুয়ারি ২৩, ২০১৮ | আপডেট: ১১:৪৯:অপরাহ্ণ, জানুয়ারি ২৩, ২০১৮

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে নিপীড়নবিরোধী শিক্ষার্থীদের উপর হামলার পর বাংলাদেশ ছাত্রলীগের সভাপতি সাইফুর রহমান সোহাগ এবার হামলার শিকার শিক্ষার্থীদের বিচার দাবি করেছেন।

তিনি বলেন: আমরা চার পাঁচ দিন ধরে আন্দোলন ও বিক্ষোভ দেখে আসছি। এতে সাধারণ শিক্ষার্থীদের শিক্ষার পরিবেশ নষ্ট করার চেষ্টা করার হচ্ছিল। বহিরাগত ও বাম সন্ত্রাসীদের দ্বারা বিশ্ববিদ্যালয়ের মাননীয় ভিসি স্যার অবরুদ্ধ ও লাঞ্ছনার শিকার হয়েছেন। তাই সাধারণ শিক্ষার্থীদের এক দফা এক দাবি, বাম সন্ত্রাসীদের বিচার করতে হবে।

মঙ্গলবার বিকেলে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের মধুর ক্যান্টিনে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে ছাত্রলীগের সভাপতি এসব কথা বলেন।

সাইফুর রহমান সোহাগ বলেন: আন্দোলনকারীরা আন্দোলনের নামে ক্যাম্পাসে বিশৃঙ্খলা সৃষ্টির চেষ্টা চালিয়েছে। তারা উপাচার্যের ওপর হামলা করেছে, ভাঙচুর চালিয়েছে। আমরা তাদের বিচার চাইছি এবং বিশ্ববিদ্যালয় থেকে বহিষ্কারের জোর দাবি জানাচ্ছি।

তিনি জানান: হামলায় ছাত্রলীগের নেতাকর্মীদের কোন হাত নেই। বরং ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা দুই পক্ষকে শান্ত করার জন্য আপ্রাণ চেষ্টা করে। ছাত্রলীগের এই চেষ্টার কারণে অবশেষে তা কন্ট্রোলে আসে।

একই সংবাদ সম্মেলনে ঢাবি ছাত্রলীগের সভাপতি আবিদ আল হাসান বলেন: আন্দোলনকারীরা নারী শিক্ষার্থীদের ওপর নিপীড়ন চালিয়েছে। শারীরিকভাবে নিপীড়ন চালিয়েছে। তিনি মোবাইলে ছবি দেখিয়ে বলেন, বাম ছাত্র সংগঠনগুলোর নেতৃবৃন্দ এই আন্দোলনে নেতৃত্ব দিয়েছে। তারা সাধারণ শিক্ষার্থী হয় কীভাবে?

আবিদ আল হাসানের দাবি, আন্দোলনকারীরা জঙ্গি কায়দায় হামলা ও ভাঙচুর চালিয়েছে। তাদের মধ্যে শিবির ও ছাত্রদলের নেতাকর্মীরা ছিল।

মধুর ক্যান্টিনে আয়োজিত এই প্রেস ব্রিফিংয়ে আরও উপস্থিত ছিলেন ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক এস এম জাকির হোসাইনসহ কেন্দ্রীয় ও ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় শাখার নেতৃবৃন্দ।

এর আগে একটি বেসরকারি টেলিভিশন চ্যানেলে প্রচারিত ফুটেজে দেখা যায়, রড, লাঠিসহ বিভিন্ন ধরনের অস্ত্র নিয়ে উপাচার্য ভবনে অবস্থান নেওয়া নিপীড়নবিরোধী শিক্ষার্থীদের উপর হামলা চালাচ্ছে ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা।

এ সময় কারো কারো শরীর থেকে রক্ত পড়তেও দেখা গেছে। অনেকে যন্ত্রণায় কাতরাতে কাতরাতে হামলা থেকে বাঁচতে সাহায্য চাইতে দেখা যায়। চ্যানেল আই