বরগুনার আমতলীতে দুবৃত্তের হামলায় আহত ২

আল নোমান আল নোমান

বরগুনা প্রতিনিধি

প্রকাশিত: ১:০৫ পূর্বাহ্ণ, মে ২৩, ২০২১ | আপডেট: ১:০৫:পূর্বাহ্ণ, মে ২৩, ২০২১

 

 

আমতলী উপজেলার চলাভাঙ্গা গ্রামে শুক্রবার রাত ৯ টায় দুবৃত্তের হামলায় যুবনেতা মো. আবুল কালাম আজাদ (৪০) ও শ্রমিকলীগের সাধারণ সম্পাদক মো. হাসান মৃধা (৩৮) গুরুতর আহত হয়েছে।আহত আজাদ আমতলী পৌরসভার মেয়র এবং উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যানের ভাগ্নে।

আহতদের ডাক চিৎকার শুনে স্থানীয়রা এগিয়ে আসলে সন্ত্রাসীরা পালিয়ে জায়। তাৎক্ষনিক স্থানীয়রা আহত আজাদ ও হাসানকে উদ্ধার করে আমতলী হাসপাতালে নিয়ে আসে। আশঙ্কাজনক অবস্থায় দুজনকে রাতেই বরিশাল শেবাচিম হাসপাতালে নেওয়া হলে আজাদের অবস্থা সংকটাপন্ন হলে ওই রাতেই তাকে ঢাকার পঙ্গু হাসপাতালে নিয়ে ভর্তি করা হয়। সন্ত্রাসী এ ঘটনার পর পুলিশের একাধিক টিম ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছে। এ ঘটনায় এলাকায় আতঙ্ক বিরাজ করছে। আহত যুব নেতা মো. আবুল কালাম আজাদ আমতলী উপজেলা আওয়ামীলীগের সম্পাদক ও পৌর মেয়র মো. মতিয়ার রহমানের ভাগ্নে।

স্থানীয় সূত্র জানায়, যুব নেতা মো. আবুল কালাম আজাদ ও শ্রমিকলীগের সাধারণ সম্পাদক মো. হাসান মৃধা শুক্রবার রাত ৯ টার দিকে কলাপাড়া উপজেলার ধানখালী ইউনিয়নের এক বাড়িতে দাওয়াত খেয়ে নোমর হাট- খুরিয়ার খেয়াঘাট সড়ক দিয়ে মোটর সাইকেল যোগে আমতলী আসছিল। চলাভাঙ্গা গ্রামের জামাল তালুকদারের বাড়ির নিকটে পৌছামাত্র পূর্ব থেকে সড়কে পাশে ওৎ পেতে থাকা ১০-১২ জনের একটি সন্ত্রাসী দল আজাদের মটর সাইকেলে গতি রোধ করে এলাপাথারী কোপাতে থাকে । রামদার কোপে আজাদের হাত ও দুই পায়ের রগসহ হাড় কেটে যায়। এসময় আজাদের ডাক চিৎকারে স্থানীয় জামাল তালুকদারসহ কয়েকজন এগিয়ে আসলে সন্ত্রাসীরা আজাদকে মাঠের মধ্যে ফেলে রেখে মটর সাইকেল যোগে পালিয়ে যায়।

পরে স্থানীয়রা তাদের উদ্ধার করে আমতলী হাসপাতালে নিয়ে আসে। আমতলী হাসপাতালে প্রাথমিক চিকিৎসা শেষে আজাদ এবং হাসানকে বরিশাল শেবাচিম হাসপাতালে পাঠানো হয়। আজাদের অবস্থা বেশী সংকটাপন্ন হলে ওই রাতেই তাকে উন্নত চিকিৎসার জন্য ঢাকার পঙ্গু হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। আমতলী হাসপাতালের জরুরী বিভাগের কর্তব্যরত চিকিৎসা মো. মোশের্^দ আলম জানান, আজাদের দুই হাত এবং দুই পায়ে একাধিক রামদার কোপের চিহ্ন রয়েছে। তার হাত এবং পায়ের অবস্থা সংকটাপন্ন।

সন্ত্রাসী হামলার খবর পেয়ে পুলিশের একাধিক টিমসহ বরগুনা পুলিশ সুপার মো. জাহাঙ্গির মল্লিক ও সহকারী পুলিশ সুপার মো. মহরম আলী শনিবার দুপুরে ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন। এ ঘটনায় এলাকায় আতঙ্ক বিরাজ করছে। এ রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত থানায় কান মামলা হয়নি ।

 

 

Print Friendly, PDF & Email