দিনাজপুর রাজবাড়িতে আদালতের নিষেধজ্ঞা সত্বেও মুক্তিযোদ্ধা পরিবারের ভুমি দখলের অপচেষ্টার প্রতিবাদে সংবাদ সম্মেলন

রংপুর ব্যুরো

প্রকাশিত: ৯:১৪ অপরাহ্ণ, মে ১৯, ২০২১ | আপডেট: ৯:১৪:অপরাহ্ণ, মে ১৯, ২০২১

এন.আই.মিলন, দিনাজপুর প্রতিনিধি –

আদালতের নিষেধজ্ঞা সত্বেও দিনাজপুর সদরের রাজবাড়িতে মুক্তিযোদ্ধার সন্তানদের ভোগদখলী পৌনে ১০ শতক জমি জোবরদখলের অপচেষ্টা করছে সন্ত্রাসী রাবেয়া বেগম রাব্বি ও তার মদদপুষ্ট সন্ত্রাসীরা।
দিনাজপুর প্রেসক্লাব মিলনায়তনে ১৯ মে বুধবার সকালে ভুমিদখল, মিথ্যা মামলায় ফাঁসানো, খুন জখমের পরিকল্পনার অপচেষ্টায় জড়িতদের বিরুদ্ধে ন্যায় সঙ্গত আইনী বিচার প্রাপ্তি ও সন্ত্রাসীদের কঠোর শাস্তির দাবীতে সংবাদ সম্মেলন করেন শহরের রাজবাড়ি এলাকার মৃত: মমিন উদ্দীন আহমেদ‘র পুত্র মো: গোলাম রব্বানী ।

সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্যে তিনি বলেন, ১৯৯৪ সালের ২০ অক্টোবর ৯২৮৬ নং রেজিষ্ট্রী দলিলমুলে আমার পুর্ব পুরষেরা গৌরাঙ্গ চৌধুরী ও মনিন্দ্র নাথ চৌধুরী সহিত সম্পাদিত দলিলমুলে সম্পত্তি প্রাপ্ত হয়ে ভোগদভল করে আসছে এবং আমরা ১৯৯৫ সালের ৮ জানুয়ারী হতে নিজ নামে ৮৩৫ নং জমা খারিজ খতিয়ান খুলে ভোগদখলে রহিয়াছি। এই জমির বিরোধীয় বিবাদি পক্ষ মৃত মহিদুর রহমান,মৃত সহিদুর রহমান ও তার ওয়ারিশগন পৃথক একখানা বিনিময় দলিলমুলে মালিকানা দাবি করেন যার কোনো রেজিষ্ট্রী দলিল নেই। এরপর তারা নজিব উদ্দীন নামীয় সাড়ে ১১ শতক জায়গার একটি ভুয়া দলিল (যাহার নং ১১৮০১/৭৯ তাং ০৪/০৮/১৯৮৬) তৈরী করে তখন মশিউর রহমান বাদি হয়ে সদর সিনিয়র সহকারী জজ আদালতে মোকোদ্দমা আনয়ন করে যার নং ৬১/৯৫ অন্য। উক্ত মামলায় নিষেধজ্ঞার আবেদনে আদালত নামঞ্জুর করলে উক্ত আদেশের বিরুদ্ধে জজ আদালতে ৩৯/৯৭ নং মিস আপিল মোকদ্দমা দায়ের করলে আদালত শুনানীঅন্তে মঞ্জুর করেন এবং মৃত শহিদুর রহমানকে নালিশী সম্পত্তিতে কোনোরুপ কর্মকান্ড চালানোর উপর নিষেজ্ঞারোপ করেন।

মৃত শহিদুর রহমান সকল ভুয়া কাগজপত্রের মাধ্যমে নিজ নামে বিএস রের্কড করে ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের সাং শেরশাহসরী,ব্লক ডি মোহাম্মদপুর-১২০৭‘র বাসিন্দা ওয়াজেদ আলীর পুত্র নিরব মিয়াকে পৌনে ১০ শতক জায়গা হস্তান্তর করেন। একই সাথে আমার মামাতো বোন মুক্তিযোদ্ধার কন্যা রোকসানা বেগমের নিকট ভুয়া বন্ঠননামা বলে ৫ শতক জায়গা বিক্রয় করেন। রোকসানা জালিয়াতির বিষয়টি বুঝতে পেরে দাতা শহিদুর রহমানের বিরুদ্ধে জি,আর ৯২/২০২১ নং মোকদ্দমা আনয়ন করেন যাহা বিচারাধীন রয়েছে। পূর্বের আদেশ অমান্য করে নিরব মিয়াকে দলিলটি হস্তান্তর করায় আমরা ওয়ারিশগন পুনরায় সিনিয়র সহকারী জজ সদর আদালতে ৫১/২০২১ অন্য নম্বর মোকদ্দমা আনয়ন এবং নিষেধাজ্ঞার আবেদন করায় আদালত সন্তুষ্ট হয়ে গত ৯ মে/২১ অত্র মামলার ১১ নং আসামী নিরব মিয়াকে ৫ কার্য্য দিবসের মধ্যে কারণ দশানোর নোটিশ দেন। এরপরেও নিরব মিয়া ও তার স্ত্রীর বড় বোন রাবেয়া বেগম (রাব্বি) ভুমিদস্যু সন্ত্রাসীদের সাথে নিয়ে দফায় দফায় আমাকে ও আমার মামাতো বোন রোকসানাকে সম্পত্তি থেকে উচ্ছেদের জন্য অপচেষ্টা চালাচ্ছে। তাদের হুমকি-ধমকিতে আমরা চরম নিরাপত্তাহীনতায় দিনাতিপাত করছি।

অপরাধ জগতের সমরাজ্ঞ্রী রাবেয়া বেগম (রাব্বি)‘র বিরুদ্ধে বিভিন্ন থানায় চুরি, ছিনতাই, পর্ণোগ্রাফী আইনের বিভিন্ন মামলা থাকার পরেও সে অপরাধ করে বেড়াচ্ছে। আমরা মনে করি রাব্বী আমার পরিবার ও আমার মামাতো বোনের পরিবারকে খুনের পরিকল্পনাসহ মাদকের মিথ্যা মামলায় ফাঁসানোর পরিকল্পনা করছে। আমার ও আমার বোনের পরিবার বর্তমানে নিরাপত্তাহীনতায় ভুগছি। আমরা সংশ্লীষ্ট প্রশাসনের কাছে জান,মাল ও সম্পদের নিরপত্তা চাই। এসময় সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন, মামাতো বোন রোকসানা বেগম ও চাচা আবুল কালাম আজাদ।

Print Friendly, PDF & Email