ঝালকাঠিতে স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের ৫ হাজার স্যালাইন এসেছে

প্রকাশিত: ৪:২৫ অপরাহ্ণ, এপ্রিল ২১, ২০২১ | আপডেট: ৪:২৫:অপরাহ্ণ, এপ্রিল ২১, ২০২১

ঝালকাঠিতে ভয়াবহ ডায়রিয়া পরিস্থিতি মোকাবেলায় জেলা সদর হাসপাতাল সহ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সসমূহে শরীরে পুষ করার আইভি স্যালাইন সংকট থাকায় কিংকর্তব্যবিমূঢ় ছিলো স্বাস্থ্য বিভাগ। স্যালাইনের জন্য হাহাকার ছিলো সরকারী-বেসরকারী সকল পর্যায়েই।
স্যালাইনের বরাদ্দ চেয়ে স্বাস্থ্য বিভাগে লিখিতভাবে আবেদন করে ঝালকাঠি জেলা স্বাস্থ্য বিভাগ। সরকারী প্রক্রিয়া অনুযায়ী স্যালাইন আসতে দেরী হওয়ায় স্যালাইন সংকটে রোগীর চাপ সামাল দিতে সহায়তা চেয়ে অফিসিয়াল ফেসবুক পেজে সহায়তারও আবেদন জানান চিকিৎসকরা। অবশেষে স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় থেকে ঝালকাঠির জন্য ৫ হাজার আইভি স্যালাইন বরাদ্দ করে প্রেরণ করে। যা বুধবার সকালে ঝালকাঠি সিভিল সার্জন কার্যালয়ে স্যালাইন পৌছেছে। আসার সাথে সাথেই উপজেলা ভিত্তিক বণ্টন করে জেলা সদর হাসাপাতালের জন্য ২হাজার এবং বাকি ৩টি উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের জন্য ১হাজার করে ৩ হাজার পৌছানো হয়েছে।
এরপূর্বে সোমবার বিকেলে ব্যক্তিগত উদ্যোগে ২ হাজার আইভি স্যালাইন দান করেন শিল্পমন্ত্রণালয় বিষয়ক সংসদীয় স্থায়ী কমিটির সভাপতি, ১৪ দলের মুখপাত্র ও সমন্বয়ক আমির হোসেন আমু এমপি। যার ১ হাজার ঝালকাঠি সদর হাসপাতালের জন্য এবং বাকি আরেক হাজার নলছিটি উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের জন্য দেয়া হয়েছে বলে জানিয়েছেন এমপি আমু।
রোববার সন্ধ্যায় নলছিটি উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের জন্য ব্যক্তিগতভাবে ১ হাজার আইভি স্যালাইন দান করেন বিশিষ্ট ব্যবসায়ী ও এম খান গ্রæপের চেয়ারম্যান মাহফুজ খান। অপরদিকে সোমবার রাতে ব্যক্তিগত উদ্যোগে ৩ হাজার ব্যাগ (প্রতি ব্যাগে ১হাজার মি.লি.) আইভি স্যালাইন দান করেন ঝালকাঠি-০১ (রাজাপুর-কাঠালিয়া) আসনের এমপি ও প্রিমিয়ার ব্যাংক চেয়ারম্যান বজলুল হক হারুন। যার ১হাজার ব্যাগ রাজাপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের জন্য এবং বাকি দুই হাজার ব্যাগ কাঠালিয়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের জন্য দেয়া হয়েছে বলে জানিয়েছেন অ্যাম্বাসেডর মাহমুদুল হাসান।
এছাড়াও জেলা সদর হাসপাতাল, নলছিটি উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স, রাজাপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স ও কাঠালিয়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে বেসরকারীভাবে স্থানীয় দানশীল ব্যক্তিরা স্যালাইন সহায়তা প্রদান করেন। রোববার রাত থেকে মঙ্গলবার পর্যন্ত সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের কাছে স্যালাইন হস্তান্তর করা হয়।
স্বাস্থ্য বিভাগ সূত্রে জানাগেছে, করোনার মধ্যে তীব্র গরমে হঠাৎ করে ডায়রিয়ার প্রকোপ দেখা দিয়েছে। প্রতিদিনই বাড়ছে ডায়রিয়া আক্রান্তের সংখ্যা। গত এক সপ্তাহে জেলায় আড়াই হাজারেরও বেশি মানুষ ডায়রিয়া আক্রান্ত হয়ে চিকিৎসা নিয়েছেন। ভর্তি হয়ে চিকিৎসা নিয়েছেন প্রায় দেড় হাজার মানুষ। হাসপাতালের নির্দিষ্ট বিছানায় স্থান না পেয়ে হাসপাতালের যত্রতত্র গাদাগাদি করে ফ্লোরে বিছানা পেতে শুয়ে চিকিৎসা নিতে হচ্ছে আক্রান্তদের। মেঝেতে এবং বারান্দায় বিছানা দিয়ে চিকিৎসার পরিবেশ নেই বলেও অভিযোগ স্বজনদের। ডায়রিয়া আক্রান্তদের বেশিরভাগই মহিলা, শিশু ও বয়স্ক। নেই স্যালাইন, নেই বিছানা একারণে অনেকেই হাসপাতালে প্রাথমিক চিকিৎসা নিয়ে বাড়িতে চলে গেছেন। ভয়াবহ এ পরিস্থিতিতে স্বাস্থ্যবিভাগের সকল জনবলই হিমশিম খাচ্ছেন। এমন ক্রান্তিলগ্নে শিল্পমন্ত্রণালয় বিষয়ক সংসদীয় স্থায়ী কমিটির সভাপতি, ১৪ দলের মুখপাত্র ও সমন্বয়ক আমির হোসেন আমু এমপি ২হাজার, ঝালকাঠি-০১ (রাজাপুর-কাঠালিয়া) আসনের এমপি ও প্রিমিয়ার ব্যাংক চেয়ারম্যান বজলুল হক হারুন ৩ হাজারসহ স্থানীয় দানশীল ব্যক্তিরা স্যালাইন সহায়তা প্রদান করায় আক্রান্ত রোগীদের চিকিৎসা সহায়তা দিতে পারছেন।
সিভিল সার্জন ডা, রতন কুমার ঢালী জানান, ঝালকাঠির ডায়রিয়া পরিস্থিতি সামাল দিতে পর্যাপ্ত আইভি স্যালাইন প্রয়োজন। স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় থেকে ৫হাজার স্যালাইন বুধবার সকালে এসে পৌছেছে। জেলা সদর হাসপাতালসহ ৪উপজেলায় বণ্টন করে দেয়া হয়েছে। এরপূর্বে ডায়রিয়া মহামারি আকার ধারণের পরিস্থিতির খবর শুনে এমপি আমির হোসেন আমু আমাদের ২হাজার, এমপি বজলুল হক হারুন ৩হাজার আাইভি স্যালাইন দিয়েছেন। এছাড়াও বেশ কয়েকজন দানশীল ব্যক্তি আইভি স্যালাইন প্রদান করেছেন যা ক্রান্তিলগ্নে আমাদের অনেক কাজে এসেছে। যার দ্বারা ডায়রিয়া আক্রান্ত জনসাধারনকে চিকিৎসা করা সম্ভব হচ্ছে।
সংসদ সদস্য আমির হোসেন আমু বলেন, ডায়রিয়া পরিস্থিতিতে স্যালাইন সংকটের কথা শুনে আমি ঝালকাঠি সদর হাসপাতাল ও নলছিটি উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ২ হাজার স্যালাইন দিয়েছি। হাসপাতালে যাতে পর্যাপ্ত স্যালাইন সরবরাহের ব্যবস্থা করা হয় সেজন্য স্বাস্থ্য মন্ত্রীর সাথে কথাও বলেছি। মন্ত্রণালয় থেকে ৫হাজার স্যালাইন পাঠিয়েছে।