লকডাউন দিয়ে লাভ কি: কাদের মির্জা

জি এম নিউজ জি এম নিউজ

বাংলার প্রতিচ্ছবি

প্রকাশিত: ৫:৫৬ অপরাহ্ণ, এপ্রিল ১৪, ২০২১ | আপডেট: ৫:৫৬:অপরাহ্ণ, এপ্রিল ১৪, ২০২১

সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদেরের ছোট ভাই বসুরহাট পৌরসভার মেয়র আবদুল কাদের মির্জা বলেছেন,পবিত্র ঈদুল ফিতর এবং রমজান উপলক্ষে আমাদের পৌরসভাতে লকডাউনের কারনে,রমজানের কারণে প্রায় ৫/৭ হাজার লোকের মধ্যে সাড়ে ৪ শত টাকা করে দেওয়ার কথা ছিল। হঠাৎ করে আমাদের দুযোর্গ ও ত্রাণ মন্ত্রণালয় থেকে স্থগিত ঘোষণা করেছে।

আপনারা বড়লোককে বড় লোক বানাতে চান। গরীবকে গরীব বানাতে চান। রাজতৈনিক নেতারা সব দলের,প্রথম সারির দুই-একজন আছে,দ্বিতীয় সারির সব নেতা আজকে আমেরিকা সহ যে কয়েকটা দেশের নাম বলেছি,প্রত্যেকটা দেশে তাদের বাড়ী-গাড়ি এবং ব্যাংক ব্যালেন্স আছে এগুলো তদন্ত হওয়া উচিত। কেউ এ গুলো নিয়ে মনে কষ্ট নিলে আমার কিছু যায় আসেনা।

তিনি বলেন, লক ডাউন দিয়েছেন ভাল কথা লকডাউন কি কেউ মানে? আপনারা কাল থেকে দেখবেন প্রত্যেকটা পাড়ায় ঘরের সামনে সিড়ির উপরে সমস্ত ছেলে মেয়ে বসা। এটা কি লকডাউন? একটার পাশে একটা বসে আছে, লকডাউন নাকি এটা। দোকানে সাবান পানি নাই,লকডাউন? এটা কোন লকডাউন? এই লক ডাউন দিয়ে লাভ কি? আমি বলছি যে করোনা আমাদের সঙ্গী হয়ে গেছে? টিকা নেওয়ার পরেও করোনা হইতেছে।

তিনি আরো বলেন, কেউ কেউ আমাকে ম্যাসেজ দেয় আপনাদের সাথে আপস করার জন্য,যারা সিঙ্গাপুরে লক্ষ লক্ষ টাকা চাাঁবাজি করেছে মাননীয় মন্ত্রীর চিকিৎসার কথা বলে। সোবহান সাহেবের ছেলে থেকে টাকা নিছে,গাজীপুরের মেয়র জাহাঙ্গীর কাছ থেকে টাকা নিয়েছে,প্রত্যেকটা এমপি যারা সেখানে গেছে তাদের থেকে টাকা নিয়েছে। আর এই চিকিৎসার খরচ মন্ত্রী মহোদয়কে কে দিয়েছে,? মাননীয় প্রধান মন্ত্রী দিয়েছে । সে চাঁদাবাজি থেকে আরম্ভ করে মন্ত্রণালয়ের দুর্নীতি যারা করেছে তাদের সাথে আপস করব? মন্ত্রীর সহকারী সবগুলো মন্ত্রীর ভিজিটিং কার্ড ভাগ করে নিয়ে সমস্ত এমপি,ব্যবসায়ী,কন্টেক্টট্রার সবার দ্বারে দ্বারে গিয়ে জুয়েল হাজার হাজার টাকা নিয়ে লং আইল্যান্ডে বাড়ি করেছে। এটা নিউহর্য়কের সবচেয়ে অভিজাত এলাকা,জায়গা কিনে বাড়ি বানিয়েছে। দুইশটা বের হয়েছে মন্ত্রীর সহকারী। আর কেউ কেউ আমাকে ম্যাসেজ দেয় এদের সাথে আপস করার জন্য,আমি চোরের সাথে আপস করতাম?।