৬ ডিসেম্বর কলাপাড়া হানাদার মুক্ত দিবস ॥

প্রকাশিত: ১১:৩৯ অপরাহ্ণ, ডিসেম্বর ৫, ২০২০ | আপডেট: ১১:৩৯:অপরাহ্ণ, ডিসেম্বর ৫, ২০২০

রাসেল কবির মুরাদ , কলাপাড়া(পটুয়াখালী)প্রতিনিধি   ঃ   ৬ ডিসেম্বর রবিবার
কলাপাড়া হানাদার মুক্ত দিবস। ১৯৭১ সালের এ দিনে মুক্তিযোদ্ধাদের তোপের
মুখে পাকিস্তানী হানাদার বাহিনী ও তাদের এ দেশীয় দোসররা আত্মসর্মপন করতে
বাধ্য হয়। অবশেষে উড়িয়ে দেয় স্বাধীানতার পতাকা। কল্পাাড়া সেক্টরে  প্রধান
নির্বাচন কমিশনার কে,এম নুরুল হুদা মুক্তিযুদ্ধে সক্রিয় অংশ গ্রহন করে।
এতে আক্রমন পরিচালনার দায়িত্বে ছিলেন হাবিবুল্লাহ রানা। অন্যান্যদের
মধ্যে ছিলেন হাবিবুর রহমান শওকত, নির্মল রক্ষিত, রেজাউল করিম বিশ্বাস,
নাজমুল হুদা ছালেক, শাহআলম তালুকদার, সাজ্জাদুল ইসলাম বিশ্বাস, আরিফুর
রহমান মুকুল, আহম্মেদ আলী, আশরাফ আলী ও আবু তালেব।

আক্রমন পরিচালনাকারী মুক্তিযোদ্ধা হাবিবুল্লাহ রানা বলেন, ৪ ডিসেম্বর
বিকেলে পাকিস্তানী পতাকাবাহী ৮/১০ জনের একদল ভাট্রি নামে একটি জাহাজ নিয়ে
পটুয়াখালীর জেলার উদ্দেশ্যে গলাচিপা অতিক্রম কালে মুক্তিযোদ্ধারা
জাহাজটির গতি রোধ করে তীরে নোঙ্গর করে। এসময় জাহাজ থেকে সকলকে নামিয়ে
গলাচিপার সার্কেল অফিসারের কাছে নিরাপত্তা হেফাজতে রেখে জাহাজটি নিয়ে
কলাপাড়ায় আসে। ওইদিন রাত ৮ টার দিকে পাক-হানাদার বাহিনী ও তাদের এদেশের
দোসরদের বিরুদ্ধে সরাসরি  যুদ্ধে অংশ গ্রহন করে মুক্তিযোদ্ধারা। রাত  ৩
টার দিকে পুনরায় আক্রমন চালালে পাক হানাদাররা পিছু হটতে বাধ্য হয়। ৬
ডিসেম্বর সকাল ৮ টার দিকে কলাপাড়াকে হানাদার ও রাজাকারমুক্ত ঘোষনা করে
উড়ানো হয় স্বাধীন বাংলাদেশের পতাকা।