রাজাপুরে বসত ঘরের সামনে মলমুত্র ঢেলে চাচাকে অবরুদ্ধ করে ভাতিজা

প্রকাশিত: ৯:৫৫ অপরাহ্ণ, মে ২৫, ২০২০ | আপডেট: ৯:৫৫:অপরাহ্ণ, মে ২৫, ২০২০

রাজাপুর উপজেলার সাতুরিয়া গ্রামে সাবেক সেনা সদস্যের বসত ঘরের সামনের প্রবেশদ্বারে মলমূত্র ঢেলে এবং বাঁশ বেধে অবরুদ্ধ করার অভিযোগ উঠেছে ভাতিজা ও ভাইজি জামাতার বিরুদ্ধে। এ ব্যাপারে সাবেক ওই সেনা সদস্য মোঃ বেলায়েত হোসেন প্রতিবাদ জানালে তাকে হত্যারও হুমকি দেয়ায় সোমবার (ঈদের দিন দুপুরে) তিনি রাজাপুর থানায় অভিযোগ করেছেন ।
অভিযোগ ও স্থানীয় সূত্রে জানাগেছে, সাতুরিয়া ইউনিয়নের সাবেক চেয়ারম্যান হেমায়েত হোসেন নুরু’র পুত্র মোঃ মাহমুদ হোসেন রাজু (৩০) ও মেয়ে জামাতা মোঃ সবুজ খান (৩১)সহ স্থানীয় আরো ৫/৬ জনের একটি দল রোববার রাতে (ঈদের চাঁদ রাতে) সাবেক সেনা সদস্য মোঃ বেলায়েত হোসেন এর বাড়ির পাশে সাউন্ড বক্স বাজিয়ে পিকনিক এর আয়োজন করে। রাজাপুর থানার টহল পুলিশ সাউন্ড বক্স এর শব্দ শুনে ঘটনাস্থলে গিয়ে সাউন্ড বক্স বন্ধ করে দেয়। কিন্তু পুলিশ ঘটনাস্থলে আসার বিষয়ে সংবাদদাতা হিসেবে বেলায়েত হোসেনকে সন্দেহ করে রাতের আধারে তার বাড়ির দরজা, বৈঠকখানা ও গেটে মলমুত্র ফেলে নোংরা করে এবং প্রবেশপথে বাঁশ বেধে অবরুদ্ধ করে রাখে। এ ব্যাপারে বেলায়েত হোসেন তার বড় ভাই সাবেক ইউপি চেয়ারম্যান হেমায়েত হোসেন নুরু’র কাছে অভিযোগ করলে তারা বেলায়েত হোসেন কে হত্যার হুমকি দেয়। নিরুপায় হয়ে তিনি রাজাপুর থানায় অভিযোগ দায়ের করেন।
বেলায়েত হোসেন জানান, তার আপন বড় ভাই সাবেক ইউপি চেয়ারম্যান মোঃ হেমায়েত হোসেন নুরু’র সাথে জমিজমা নিয়ে দীর্ঘদিন থেকে বিরোধ চলে আসছে। এজন্যই তারা আমার ঘরের পাশে সাউন্ড বক্স বাজিয়ে পিকনিক করতেছিলো। করোনা দুর্যোগের মধ্যে রাতে ভাতিজা ও ভাইর মেয়ে জামাইসহ কয়েক যুবক উচ্চশব্দে সাউন্ড বক্স বাজিয়ে পিকনিকের আয়োজন করে। পুলিশ এসে সাউন্ড বক্স বন্ধ কওে দেয়। আর আমার ঘরের সামনে ও বৈঠকখানায় মলমূত্র ঢেলে নোংড়া করেই ক্ষান্ত না হয়ে পথে বাঁশ বেধে রাখে।
এ ব্যাপারে সম্পূর্ণ অভিযোগ অস্বীকার করে মোঃ হেমায়েত হোসেন নুরু জানান,‘আমার পুত্র এবং মেয়ে জামাতা এরকম কোন ঘটনার সাথে সম্পৃক্ত নয় । যদি তারা এধরনের কাজ করে থাকে তাহলে তাদের বিচার করা হবে। রাজাপুর থানা অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মোঃ জাহিদ হোসেন জানান, অভিযোগের তদন্ত করে আইনগত ব্যবস্থ্যা নেয়া হবে।