লামায় অজ্ঞাত রোগাক্রান্ত ৩৩ জনকে লামাহাসপাতালের আইসোলেশন সেন্টারে ভর্তি

জি এম নিউজ জি এম নিউজ

বাংলার প্রতিচ্ছবি

প্রকাশিত: ১১:৩৯ অপরাহ্ণ, মার্চ ১৬, ২০২০ | আপডেট: ১১:৩৯:অপরাহ্ণ, মার্চ ১৬, ২০২০

ফরিদ উদ্দিন , লামা,

লামা উপজেলার সদর ইউনিয়নেরদুর্গম পুরাতন লাইল্যা মুরুং পাড়ায় অজ্ঞাত রোগে আক্তান্ত ৩৩ জনকে লামা হাসপাতালে আনাহয়েছে। অসুস্থ ৩৩ জন শিশু, নারী ও পুরুষকে হাসপাতালে ভর্তি রেখে চিকিৎসা প্রদান করাহচ্ছে।

 

লামা সদর ইউনিয়ন পরিষদ, স্থানীয় লোকজন ও সেনাবাহিনীর সহযোগিতায় সোমবার (১৬মার্চ) সকালে টলি ট্রাক্টর দিয়ে অসুস্থ রোগীদের হাসপাতালে আনা হয়। লামা উপজেলা স্বাস্থ্য কর্মকর্তা ডাঃমোহাম্মদুল হক জানিয়েছেন, প্রাথমিক ধারনা মতে ও রোগের আলামত দেখে মনে হচ্ছে রোগটিহাম। তারপরেও আমরা নিশ্চিত হতে আক্রান্তদের কাছ থেকে নমুনা রক্ত সংগ্রহ করে ঢাকায় স্বাস্থ্যবিভাগের গবেষনাগারে পাঠানো হবে। এদিকে গতকাল রোববার খবর পাওয়া মাত্র আমরা তিনসদস্যের একটি মেডিকেল টিম সেখানে পাঠিয়েছিলাম। তারা তাদের প্রাথমিক চিকিৎসা প্রদানকরে।

 

আমার পুরো মেডিকেল টিম আক্রান্তদের সেবা দিচ্ছে। হাসপাতালে ২টি ওয়ার্ডকেআইসোলেশন সেন্টার করা হয়েছে। ৩৩ জন রোগীকে সেখানে আলাদা করে চিকিৎসা সেবা দেয়াহচ্ছে। অজ্ঞাত রোগে আক্রান্ত হয়ে লামাহাসপতালে ভর্তি হওয়া রোগীরা হল, তাতাই ¤্রাে (১৩), মাছিং ¤্রাে (১১), তোম পাউ ¤্রাে(১), ছিদ্দিক ¤্রাে (২), রুই রাউ ¤্রাে (২), কাই কোম ¤্রাে (৫), মিং পুং ¤্রাে (৮), কাইতন ¤্রাে (৬), সংসোং ¤্রাে (৩), মিলং ¤্রাে (২), মেন লং ¤্রাে (৫), রা রুই ¤্রাে (২),ওরা উ ¤্রাে (৪), মেন পাও ¤্রাে (১৩), কাইং ওয়াই ¤্রাে (১৭), চং ক্রং ¤্রাে (১৫), পাউচুং ¤্রাে (৯), সুলং ¤্রাে (১০), চিং অং ¤্রাে (১৯), অই রা ¤্রাে (২০), মাংলে ¤্রাে(১৮), বাই টেপ ¤্রাে (১৫), কাই ওয়াই ¤্রাে (১৯), মেন লং (১১), কাতাই ¤্রাে (১৩), কাইচুই ¤্রাে (১৮), লংপা ¤্রাে (২০), তাইলিং (১২), ওরোরিং ¤্রাে (১৩), দুই লু ¤্রাে(১১), কংচিং ¤্রাে (১৮), রই ¤্রাে (২০) ও চিংরা ¤্রাে (১৩)। অসুস্থদের মধ্যে ৩ জনেরঅবস্থা আশংকাজনক বলে জানিয়েছেন ডাক্তাররা। পুরাতন লাইল্যা মুরুং পাড়ার পাড়াপ্রধান লাতুং কারবারী বলেন, গত ১ মাস ধরে এই রোগের প্রাদুর্ভাব দেখা দিয়েছে। ইতিমধ্যেদুতিয়া ¤্রাে (৮) নামে এক শিশুর মৃত্যু হয়েছে। পাড়ার লোকজন প্রায় সকলে অসুস্থ।

লামা সদর ইউপি চেয়ারম্যান মিন্টুকুমার সেন বলেন, আমরা খবর পেয়ে সোমবার সকালে ট্রাক্টর নিয়ে তাদের বুঝিয়ে লামাহাসপাতালে চিকিৎসার জন্য নিয়ে আসি। না হলে আরো কয়েকজন মারা যেত। আমরা ইউনিয়নপরিষদ হতে তাদের সকল চিকিৎসা ও খাবারের খরচ বহন করব। এদিকে রোগীদের হাসপাতালে আনাহলে লামা উপজেলা চেয়ারম্যান মোস্তফা জামাল, উপজেলা নির্বাহী অফিসার নূর-এ জান্নাতরুমি, লামা পৌরসভার মেয়র ও লামা থানা পুলিশের অফিসার ইনচার্জ মোহাম্মদ মিজানুররহমান হাসপাতাল পরিদর্শন করেন। তাদের সবকিছুর খোঁজখবর নেন। বান্দরবান সিভিল সার্জন ডা. অংসুইপ্রু মারমা জানিয়েছেন, আক্রান্তদের শরীরে হামের মত গুটি উঠেছে। তারা মারাত্মকভাবে অসুস্থহয়ে পড়েছে। তবে পাড়ার আশেপাশে যাতে রোগ আরো ছড়িয়ে পড়তে না পারে সেজন্য সেখানেএকটি মেডিকেল টিম কাজ করছে।প্রসঙ্গত, লামা উপজেলার সদরইউনিয়নের দুর্গমে অবস্থিত পুরাতন লাইল্যা মুরুং পাড়ার ৮টি পরিবারের প্রায় ৭০ জন শিশু,নারী ও পুরুষ সবাই অজ্ঞাত রোগে আক্রান্ত হয়ে পড়েছে। ইতিমধ্যে গত শুক্রবার অজানা রোগেআক্রান্ত হয়ে দুতিয়া ¤্রাে (৮) নামে এক শিশুর মৃত্যু হয়েছে। সে পাড়ার মেনহাত ¤্রাে এরছেলে।

আক্রান্তদের মধ্যে হতে বেশী অসুস্থ এমন ৩৩ জন লামা হাসপাতালে আনা হয়। ওই পাড়াটিলামা উপজেলা সদর থেকে প্রায় ৩৩ কিলোমিটার দূরে যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন দুর্গম এলাকায়অবস্থিত। ওই এলাকায় ব্যবসা করতে গিয়ে আব্দুল কাদের নামে এক ব্যবসায়ীর নজরে প্রথমেবিষয়টি আসে। তার মাধ্যমে সবাই বিষয়টি জানতে পারে। বান্দরবানের লামা উপজেলার দুর্গম পাহাড়ী এলাকার পুরাতন লাইল্যা মুরুংপাড়ায় হাম রোগে আক্রান্ত ১৪ শিশুসহ ৩৩ জনকেসোমবার বিকালে লামা হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।লামা উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডাঃমোহাম্মদুল হক জানিয়েছেন, প্রাথমিক ধারনা মতে ও রোগের আলামত দেখে মনে হচ্ছে রোগটিহাম। তারপরেও আমরা নিশ্চিত হতে আক্রান্তদের কাছ থেকে নমুনা রক্ত সংগ্রহ করে ঢাকায় স্বাস্থ্যবিভাগের গবেষনাগারে পাঠানো হবে। আক্রান্তদের হাসপাতালের আলাদা ওয়ার্ডেচিকিৎসা সেবা প্রদান করা হচ্ছে।সূত্র জানায়, উপজেলার সদর থেকে প্রায় ৩০ কিলোমিটার দুরেদুর্গম পাহাড়ী এলাকা উপজেলার লামা সদরইউনিয়নের পুরাতন লাইল্যা মুরুং পাড়ায় প্রতিঘরের শিশুসহ নারী-পুরুষ জ্বর, কাশি, এবং শরীরে এক ধরনের রেশ