জগন্নাথপুরে লটারীর নামে প্রতারনা, ভ্রাম্যমান আদালতের অভিযান: তিন প্রতারককে এক মাসের জেল

জি এম নিউজ জি এম নিউজ

বাংলার প্রতিচ্ছবি

প্রকাশিত: ১০:১১ অপরাহ্ণ, মার্চ ১১, ২০২০ | আপডেট: ১০:১৩:অপরাহ্ণ, মার্চ ১১, ২০২০

জগন্নাথপুর (সুনামগঞ্জ) প্রতিনিধি::

সুনামগঞ্জের জগন্নাথপুর উপজেলার রানীগঞ্জ বাজারের পাশে ইসলামপুর গ্রামে ডিজিটাল মার্কেটিং ডিসকাউন্ট অফার নামে লক্ষ লক্ষ টাকা হাতিয়ে নিচ্ছিল একটি প্রতারক চক্র। ১০০ টাকার স্ক্র্যাচকার্ড দিয়ে চক্রটির টিভি, ফ্রিজ, স্মার্টফোন সহ বিভিন্ন আকর্ষণীয় দ্রব্য, এমন লোভনীয় সব অফার দিয়ে লোকদের প্রতারিত করে যাচ্ছিল।

মঙ্গলবার সন্ধায় জগন্নাথপুর উপজেলা সহকারী ভূমি কর্মকর্তা ও উপজেলা নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট ইয়াসির আরাফাত এর নেতৃত্বে ইসলামপুর গ্রামে প্রতারক চক্রের অস্থায়ী অফিসে ভ্রাম্যমান আদালত পরিচালনা করিয়া ভোক্তা অধিকার আইনের ২০০৯ এর ৪৪ ধারায় মিথ্যা বিজ্ঞাপন দ্বারা ক্রেতা সাধারণকে প্রতারিত করার অপরাধে প্রতারক চক্রের তিন সদস্যদের প্রত্যেককে ত্রিশ দিনের বিনাশ্রম কারাদন্ড প্রদান করা হয়।

প্রতারক চক্রের সদস্যরা হল নেত্রকোনা জেলার মোহনগঞ্জ থানার কানুখারী গ্রামের মৃত জানু মিয়ার ছেলে মজনু মিয়া (৪৫), হবিগঞ্জ জেলার চুনারুঘাট থানার রকমশ্রী গ্রামের মকসুদ আলীর ছেলে মোখলেছ মিয়া (৩০), নেত্রকোনা জেলার খালিয়াজুড়ী থানার নুরপুর (বোয়ালিয়া) গ্রামের মতিউর রহমানের ছেলে ওয়াসিম মিয়া (৩৫)।

অভিযানের সময় জগন্নাথপুর থানার এসআই রফিক মিয়া, উপজেলার ভূমি অফিসের সহকারী নুরুল হক, পাইলগাঁও ও রানীগঞ্জ ইউনিয়ন ভূমি অফিসের সহকারী কর্তকর্তা মো. জহুর আহমদ, স্থানীয় ইউপি সদস্য ইছরাক আলী, সাংবাদিক গোলাম সারোয়ার, সুজাত আলী সহ বিভিন্ন শ্রেণী পেশার মানুষ উপস্থিত ছিলেন।

স্থানীয় বাসিন্দা জামাল মিয়া, আলী হোসেন, জুবেল মাহমদ সহ আরো অনেকে জানান, ডিজিটাল মার্কেটিং ডিস্কাউন্ড অফার নামে ১০০ টাকা করে নিচ্ছিল প্রতারক চক্র। এখানে তারা উল্লেখ করে যদি কোন পণ্য স্ক্র্যাচ করার পর না উঠে তবে এক হাজার টাকার গিফট প্রদান করা হবে। প্রায় পনের দিন ধরে গ্রামের সহজ সরল লোকদেরকে লোভ দেখিয়ে লক্ষ লক্ষ টাকা হাতিয়ে নিচ্ছিল প্রতারক চক্রটি।

এ সময় জগন্নাথপুর উপজেলা সহকারী ভূমি কর্মকর্তা ও উপজেলা নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট ইয়াসির আরাফাত বলেন, লটারীর নামে সাধারন মানুষদের প্রতারনা করায় ভোক্তা অধিকার আইন ২০০৯ এর ৪৪ ধারায় মিথ্যা বিজ্ঞাপন দ্বারা ক্রেতা সাধারণকে প্রতারিত করার অপরাধে প্রতারক চক্রের তিন সদস্যদের প্রত্যেককে ত্রিশ দিনের বিনাশ্রম কারাদন্ড প্রদান করা হয়। সকল জনসাধারন এসব প্রতারক হতে মুক্ত থাকার আহবান জানান।