বেনাপোল ইমিগ্রেশনের সেই দেলোয়ার রাতা-রাতি আঙ্গুল ফুলে কলাগাছ।

প্রকাশিত: ৯:২৮ পূর্বাহ্ণ, মার্চ ১০, ২০২০ | আপডেট: ১০:৫১:পূর্বাহ্ণ, মার্চ ১০, ২০২০

মোঃ আয়ুব হোসেন পক্ষী, বেনাপোল প্রতিনিধিঃ

যশোরের বেনাপোল সাদিপুর গ্রামের ইমিগ্রেশনের সেই দেলোয়ার যে রাতারাতি কোটি পোতি বনে। বেনাপোল ইমিগ্রেশ এসবি পুলিশ যোগদান করার পর ইমিগ্রেশন চেকপোষ্ট অফিসের মধ্যে চিহ্নত দালাল দেলোয়ার তৈরী করেছে নিজে টাকা আদায়ের বিশাল সিন্ডিকেট কৌশল। কারনে অকারনে পাসপোর্ট যাত্রীদের বিভিন্ন ভাবে ফাঁদে ফেলে লাইনের আগে পার করে দেয়া সহ টাকা আদায় করছে।বাংলাদেশে যে সমস্ত দেশের দূতাবাস নাই পাশের দেশ ভারত থেকে সে সব দেশের ভিসার জন্য বাংলাদেশীরা ভারতে যায়। তাদেরকে বিদেশ পার্টি হিসাবে আখ্যায়িত করে সে পাসপোর্ট যাত্রীদের কাছ থেকে কৌশলে ভয় ভীতি দেখিয়ে মোটা অংকের টাকা নিয়ে তাদের পাসপোর্টে ডিপারচার সিল দেওয়া ব্যাবস্থা করে।

একাধিক সুত্রে জানা গেছে,দেলয়ার ইমিগ্রেশনের পুলিশের খাদ্যদ্রব্য বহনের জন্য পিয়নের সহযোগিতা নিয়ে পাসপোর্ট যাত্রীদের কাছে পুলিশের বড় কর্তা পরিচয়ে দিয়ে সাধারন যাত্রীদের কাছ থেকে মোটা অংকের টাকা নিয়ে ইমিগ্রেশন পার করে দেয়।ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তাদের সহযোগিতায় এইসব কর্মকান্ড তিনি অনেকদিন ধরে চালিয়ে যাচ্ছেন।

স্থানীয়া জৈনিক ব্যক্তি বলেন তার গ্রামের বাড়িতে বিলাশ বহুল প্রসাদ তৈরি না করে বিভিন্ন জায়গায় কোটি কোটি টাকার সম্পতি ও নাম বে নামে ব্যাংক ব্যালেন্স করেছে।সে ব কলোম পড়া লেখা না করে কি ভাবে এতো টাকার মালিক হলো আমাদের বোধগম্য হয়।তার এ টাকা উৎস কোথা থেকে দুদুক তলব করলে সেটা পাওয়া যাবে।

নাম প্রকাশ না করার শর্তে তাদের একজন বলেন বড় স্যারকে না জানিয়ে ভারতীয় পাসপোর্টে বিজনেস ভিসা যাত্রীদে সাথে সখ্য তৈরি করে হুন্ডি ও ডলারে কাজে জড়িত থাকতে পারে তা না হলে এতো তাড়াতাড়ি আঙ্গুল ফুলে কলা গাছ হয় কি ভাবে। ইমিগ্রেশন অফিসের ভিতরে কাস্টসম সাইডে ল্যাগেজ পার্টির মালামাল কাস্টম চেকিং থেকে ছাড় করানোর এবং ডিউটি ফ্রি শপ থেকে বিদেশি মদ দিয়ে বড় বড় নেতাদের ম্যানেজ করে নেন অনুসন্ধান করে দেখা গেছে দুইটি ডিউটি ফ্রি শপের মালিক মনে হয় দেলোয়ার সাহেব কাজে সে তাদের কে সহযোগীতা করে। নিজেকে এসবির নিয়োগকৃত লোক বলে পরিচয় দেয়।সে বিনা পাসপোর্ট এ প্রতিদিন ২থেকে৩বার ভারতে যাতায়াতও করে থাকে।

এ ব্যাপারে বেনাপোল ইইমিগ্রেশন ওসি আহসান হাবিব এর কাছে জানতে চাইলে তিনি বলেন এ নামে এখানে কেও আছে কি আমার জানা নাই।যদি থাকে তাহলে আইনুযায়ি পদক্ষেপ নেব।

Print Friendly, PDF & Email