Dhaka ০৪:৪৬ পূর্বাহ্ন, রবিবার, ২১ এপ্রিল ২০২৪, ৭ বৈশাখ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

মানসিক চাপে থাকার লক্ষণ আর প্রতিকারের উপায়

  • Reporter Name
  • Update Time : ১১:০২:১৭ পূর্বাহ্ন, শনিবার, ৯ মার্চ ২০২৪
  • ৮১ Time View

কাজের চাপ বা ব্যক্তিগত সমস্যা প্রায়ই মানসিক চাপের দিকে নিয়ে যেতে পারে। সময়ের সাথে সাথে, এটি জমা হতে পারে এবং নেতিবাচকভাবে শারীরিক এবং মানসিক স্বাস্থ্যকে প্রভাবিত করতে পারে। শরীর ও মনের উপর দীর্ঘস্থায়ী চাপের প্রভাবকে অবহেলা করা ঝুঁকিপূর্ণ হতে পারে।

 

মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের মায়ো ক্লিনিকের মতে, মানসিক চাপকে হালকাভাবে নেওয়ার মতো কিছু নয়। এটি হৃদরোগ, ডায়াবেটিস, উচ্চ রক্তচাপ এবং স্থূলতার মতো দীর্ঘমেয়াদী অসুস্থতার একটি প্রধান কারণ হতে পারে।

মানসিক চাপের লক্ষণগুলির মধ্যে রয়েছে কাজের প্রতি আগ্রহ বৃদ্ধি কিন্তু বিশেষজ্ঞরা অতিরিক্ত চাপকে ক্ষতিকারক বলে মনে করেন।

 

ক্রিস্টিন উইলসন, ক্যালিফোর্নিয়ার নিউপোর্ট হেলথ কেয়ারের একজন প্রধান এবং লাইসেন্সপ্রাপ্ত কাউন্সেলর, ‘ইটস নট দ্যাট ডেট ডটকম’-এ প্রকাশিত একটি নিবন্ধে বলেছেন, “মানসিক চাপ দৈনন্দিন জীবনে একটি সাধারণ অভিজ্ঞতা, বিশেষ করে যখন এটি নিয়মিত দৈনন্দিন রুটিনকে প্রভাবিত করে৷ এই চাপ অপ্রতিরোধ্য এবং দীর্ঘায়িত হয়, এটি মানসিক এবং শারীরিক স্বাস্থ্যের উপর উল্লেখযোগ্য প্রভাব ফেলতে পারে।”

 

অতএব, মানসিক চাপ চিহ্নিত করা এবং তা দূর করার দিকে মনোনিবেশ করা অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ।

মানসিক চাপের কারণগুলি শরীরে বিভিন্ন উপসর্গ যেমন ঘন ঘন ক্লান্তি, পেট ব্যথা, বুকে ব্যথা ইত্যাদিতে প্রকাশ পেতে পারে।

উপরন্তু, লক্ষণগুলির মধ্যে পুনরাবৃত্তিমূলক নেতিবাচক চিন্তা, খারাপ মেজাজ ইত্যাদি অন্তর্ভুক্ত থাকতে পারে।

উইলসনের মতে, পরিবার, বন্ধুবান্ধব বা প্রিয়জনের কাছ থেকে বিচ্ছিন্নতার অনুভূতি, ঘুমের সমস্যা, অতিরিক্ত ঘুম, স্মৃতিশক্তি হ্রাস, মনোযোগ দিতে অসুবিধা, সবই মানসিক চাপের লক্ষণ।

অনেকে ওষুধ, অ্যালকোহল বা অন্যান্য ওষুধ ব্যবহার করে মানসিক চাপ কমানোর চেষ্টা করেন, যা স্বাস্থ্যের ঝুঁকি বাড়ায় এবং অনেক ক্ষেত্রে মানসিক চাপকে আরও খারাপ করে।

যদি উপরের পদক্ষেপগুলি অকার্যকর বলে মনে হয়, দেরি না করে একজন স্বাস্থ্যসেবা পেশাদারের পরামর্শ নেওয়ার পরামর্শ দেওয়া হয়।

উইলসন সতর্ক করে বলেন, “যদি চাপের অনুভূতি মানসিক এবং শারীরিক সুস্থতাকে প্রভাবিত করে, তাহলে একজন মানসিক স্বাস্থ্য পেশাদারের সাহায্য নেওয়া প্রয়োজন।”

তিনি যোগ করেন, “এই ধরনের পরিস্থিতিতে, গভীর শ্বাস-প্রশ্বাসের ব্যায়াম চেষ্টা করা, কাজ থেকে বিরতি নেওয়া, বা কাছাকাছি বন্ধু বা প্রিয়জনের সাথে কথা বলা সহায়ক হতে পারে।”

মানসিক চাপ কমাতে ইতিবাচক অভ্যাস গড়ে তোলা

এমন অনেক দৈনন্দিন কাজ রয়েছে যা একজন ব্যক্তির মানসিক চাপ কমাতে সাহায্য করতে পারে।

 

উইলসন মানসিক চাপ কমানোর জন্য ক্রিয়াকলাপের পরামর্শ দেন, শারীরিক ব্যায়ামের ওপর জোর দেন সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ। নিয়মিত ক্রিয়াকলাপ যেমন হাঁটা, স্বাস্থ্যকর খাওয়া, পর্যাপ্ত ঘুম নিশ্চিত করা, বন্ধুবান্ধব এবং পরিবারের সাথে যোগাযোগ রাখা এবং আনন্দ নিয়ে আসে এমন শখগুলিতে সময় কাটানো মানসিক চাপ কমাতে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করতে পারে।

 

উইলসন বলেছেন, “জীবনে চাপ কমাতে ছোট ছোট পদক্ষেপ নেওয়া সামগ্রিক স্বাস্থ্য এবং মানসিক সুস্থতার উপর বড় প্রভাব ফেলতে পারে।”

তাই, অত্যধিক মানসিক চাপের লক্ষণ সম্পর্কে সচেতন হওয়া এবং দৈনন্দিন জীবনে কিছু ইতিবাচক অভ্যাস অন্তর্ভুক্ত করা শারীরিক এবং মানসিক উভয় সুস্থতার জন্য অপরিহার্য।

Tag :

Write Your Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Save Your Email and Others Information

About Author Information

gm news

মাদারীপুরের শিবচরে বজ্রপাতে ২ জনের মৃত্যু

মানসিক চাপে থাকার লক্ষণ আর প্রতিকারের উপায়

Update Time : ১১:০২:১৭ পূর্বাহ্ন, শনিবার, ৯ মার্চ ২০২৪

কাজের চাপ বা ব্যক্তিগত সমস্যা প্রায়ই মানসিক চাপের দিকে নিয়ে যেতে পারে। সময়ের সাথে সাথে, এটি জমা হতে পারে এবং নেতিবাচকভাবে শারীরিক এবং মানসিক স্বাস্থ্যকে প্রভাবিত করতে পারে। শরীর ও মনের উপর দীর্ঘস্থায়ী চাপের প্রভাবকে অবহেলা করা ঝুঁকিপূর্ণ হতে পারে।

 

মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের মায়ো ক্লিনিকের মতে, মানসিক চাপকে হালকাভাবে নেওয়ার মতো কিছু নয়। এটি হৃদরোগ, ডায়াবেটিস, উচ্চ রক্তচাপ এবং স্থূলতার মতো দীর্ঘমেয়াদী অসুস্থতার একটি প্রধান কারণ হতে পারে।

মানসিক চাপের লক্ষণগুলির মধ্যে রয়েছে কাজের প্রতি আগ্রহ বৃদ্ধি কিন্তু বিশেষজ্ঞরা অতিরিক্ত চাপকে ক্ষতিকারক বলে মনে করেন।

 

ক্রিস্টিন উইলসন, ক্যালিফোর্নিয়ার নিউপোর্ট হেলথ কেয়ারের একজন প্রধান এবং লাইসেন্সপ্রাপ্ত কাউন্সেলর, ‘ইটস নট দ্যাট ডেট ডটকম’-এ প্রকাশিত একটি নিবন্ধে বলেছেন, “মানসিক চাপ দৈনন্দিন জীবনে একটি সাধারণ অভিজ্ঞতা, বিশেষ করে যখন এটি নিয়মিত দৈনন্দিন রুটিনকে প্রভাবিত করে৷ এই চাপ অপ্রতিরোধ্য এবং দীর্ঘায়িত হয়, এটি মানসিক এবং শারীরিক স্বাস্থ্যের উপর উল্লেখযোগ্য প্রভাব ফেলতে পারে।”

 

অতএব, মানসিক চাপ চিহ্নিত করা এবং তা দূর করার দিকে মনোনিবেশ করা অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ।

মানসিক চাপের কারণগুলি শরীরে বিভিন্ন উপসর্গ যেমন ঘন ঘন ক্লান্তি, পেট ব্যথা, বুকে ব্যথা ইত্যাদিতে প্রকাশ পেতে পারে।

উপরন্তু, লক্ষণগুলির মধ্যে পুনরাবৃত্তিমূলক নেতিবাচক চিন্তা, খারাপ মেজাজ ইত্যাদি অন্তর্ভুক্ত থাকতে পারে।

উইলসনের মতে, পরিবার, বন্ধুবান্ধব বা প্রিয়জনের কাছ থেকে বিচ্ছিন্নতার অনুভূতি, ঘুমের সমস্যা, অতিরিক্ত ঘুম, স্মৃতিশক্তি হ্রাস, মনোযোগ দিতে অসুবিধা, সবই মানসিক চাপের লক্ষণ।

অনেকে ওষুধ, অ্যালকোহল বা অন্যান্য ওষুধ ব্যবহার করে মানসিক চাপ কমানোর চেষ্টা করেন, যা স্বাস্থ্যের ঝুঁকি বাড়ায় এবং অনেক ক্ষেত্রে মানসিক চাপকে আরও খারাপ করে।

যদি উপরের পদক্ষেপগুলি অকার্যকর বলে মনে হয়, দেরি না করে একজন স্বাস্থ্যসেবা পেশাদারের পরামর্শ নেওয়ার পরামর্শ দেওয়া হয়।

উইলসন সতর্ক করে বলেন, “যদি চাপের অনুভূতি মানসিক এবং শারীরিক সুস্থতাকে প্রভাবিত করে, তাহলে একজন মানসিক স্বাস্থ্য পেশাদারের সাহায্য নেওয়া প্রয়োজন।”

তিনি যোগ করেন, “এই ধরনের পরিস্থিতিতে, গভীর শ্বাস-প্রশ্বাসের ব্যায়াম চেষ্টা করা, কাজ থেকে বিরতি নেওয়া, বা কাছাকাছি বন্ধু বা প্রিয়জনের সাথে কথা বলা সহায়ক হতে পারে।”

মানসিক চাপ কমাতে ইতিবাচক অভ্যাস গড়ে তোলা

এমন অনেক দৈনন্দিন কাজ রয়েছে যা একজন ব্যক্তির মানসিক চাপ কমাতে সাহায্য করতে পারে।

 

উইলসন মানসিক চাপ কমানোর জন্য ক্রিয়াকলাপের পরামর্শ দেন, শারীরিক ব্যায়ামের ওপর জোর দেন সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ। নিয়মিত ক্রিয়াকলাপ যেমন হাঁটা, স্বাস্থ্যকর খাওয়া, পর্যাপ্ত ঘুম নিশ্চিত করা, বন্ধুবান্ধব এবং পরিবারের সাথে যোগাযোগ রাখা এবং আনন্দ নিয়ে আসে এমন শখগুলিতে সময় কাটানো মানসিক চাপ কমাতে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করতে পারে।

 

উইলসন বলেছেন, “জীবনে চাপ কমাতে ছোট ছোট পদক্ষেপ নেওয়া সামগ্রিক স্বাস্থ্য এবং মানসিক সুস্থতার উপর বড় প্রভাব ফেলতে পারে।”

তাই, অত্যধিক মানসিক চাপের লক্ষণ সম্পর্কে সচেতন হওয়া এবং দৈনন্দিন জীবনে কিছু ইতিবাচক অভ্যাস অন্তর্ভুক্ত করা শারীরিক এবং মানসিক উভয় সুস্থতার জন্য অপরিহার্য।