স্টাইলিস্ট ইলেকট্রিক সিগারেট যুবকদের হাতে পৌঁছে যাচ্ছে

জি এম নিউজ জি এম নিউজ

বাংলার প্রতিচ্ছবি

প্রকাশিত: ১১:১০ পূর্বাহ্ণ, জুন ১৬, ২০১৯ | আপডেট: ১১:১০:পূর্বাহ্ণ, জুন ১৬, ২০১৯

রাজধানীর একটি কলেজের দ্বিতীয় বর্ষের ছাত্র। ফাহিম (ছদ্মনাম) বয়স ১৭ বছর। তিনি স্কুলের গণ্ডি পেরোনোর আগেই সিগারেটের প্রতি আসক্ত হয়ে পড়েন তিনি। প্রথমদিকে ২/৩টা সিগারেটে চাহিদা মিটলে বর্তমানে প্রতিদিন ৮/৯টারও বেশি প্রয়োজন হয় তার
ফাহিমের মতো অনেক ধূমপায়ী তরুণই এখন ইলেকট্রিক সিগারেটের দিকে ঝুঁকছেন।

মূলত সিগারেটের দাম বৃদ্ধি পাওয়ার কারণেই এমটা ঘটছে। রাজধানীর মিরপুর ১০ নম্বর এলাকার তরুণ সাকিবের সঙ্গে কথা হয় একটি চা-সিগারেটের দোকানে। তিনি ক্ষোভ প্রকাশ করে বলেন, আমি ছাত্র মানুষ এত টাকা পাবো কোথায়। বাসা থেকে টাকা পাঠায়, সেই টাকায় সারা মাস চলতে হয়। এর আগে একটি বেনসন সিগারেটের দাম ছিল ১০ টাকা, সেখান থেকে হয়েছে ১২ টাকা, এখন হয়েছে ১৫ টাকা। এভাবে দাম বাড়তে থাকলে অন্য ব্যবস্থা করতে হবে।

রাজধানীর নিউ মার্কেটে ই-সিগারেট বিক্রি করেন জামিল হোসেন। তিনি বলেন, এ সপ্তাহে আমাদের বিক্রি বেড়েছে। সিগারেটে দাম যদি এভাবে বাড়তে থাকে তাহলে আমাদের বিক্রিও বাড়বে। আমাদের বেশিরভাগ ক্রেতাই ছাত্র।

এদিকে আগামী অর্থবছরের (২০১৯-২০) বাজেট পাস হওয়ার আগেই পাইকারি ও খুচরা বাজারে বেড়েছে সিগারেটের দাম। তা নিয়ে ফাহিম বেশ চিন্তায় পড়ে যান। পরে এক বন্ধুর পরামর্শে বসুন্ধরা শপিং কমপ্লেক্স থেকে ইলেকট্রিক সিগারেট কেনেন তিনি। ফাহিম জানান, এখন আর প্রতিদিন সিগারেটের টাকা জোগাড় করতে কোনো চিন্তা করতে হবে না।

যার মাধ্যমে ধূমপায়ী ব্যক্তি ধূমপানের অনুভূতি পেয়ে থাকেন, এটা ব্যাটারি চালিত এমন এক ডিভাইস, যা দেখতে সিগারেটের মতো। ই-সিগারেট প্রস্ততকারীদের মতে, এতে শুধু নিকোটিন স্বল্প পরিমানে থাকে যা শুধু ধুমপায়ীদের সিগারেটের অনুভূতি দেয়, কিন্তু শরীরের তেমন কোনো ক্ষতি করে না।

বর্তমানে রাজধানী থেকে শুরু করে দেশের বিভিন্ন প্রান্তে এখন ইলেকট্রিক-সিগারেট পৌঁছে যাচ্ছে মুহুর্তেই। একটু স্টাইলিস্ট কিংবা উন্নত ধরণের নেশা এটা। ক্রমশ এই স্টাইলিস্ট ইলেকট্রিক সিগারেট যুবক ও তরুণ প্রজন্মের হাতে পৌঁছে যাচ্ছে।