ঝালকাঠি জেলা-উপজেলায় ঐতিহাসিক মুজিবনগর দিবস পালিত

প্রকাশিত: ৩:৫০ পূর্বাহ্ণ, এপ্রিল ১৮, ২০১৯ | আপডেট: ৩:৫০:পূর্বাহ্ণ, এপ্রিল ১৮, ২০১৯

নানা কর্মসূচির মধ্যদিয়ে ঝালকাঠি জেলা শহরে ও উপজেলায় ঐতিহাসিক মুজিবনগর দিবস পালিত হয়েছে। বুধবার সকালে জেলা ব্যাপী পৃথক কর্মসূচীতে মুজিবনগর দিবস পালন করা হয়। এ উপলক্ষ্যে বুধবার সকাল ১১ টায় জেলা প্রশাসকের সভাকক্ষে আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয় । এতে প্রধান অতিথি ছিলেন ঝালকাঠির জেলা প্রশাসক মো. হামিদুল হক। অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক এস এম ফরিদ উদ্দিনের সভাপতিত্বে আলোচনা সভায় অন্যদের মধ্যে বক্তব্য দেন সিভিল সার্জন ডাক্তার শ্যামল কৃষ্ণ হাওলাদার, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মো. জাহাঙ্গির আলম ও জেলা আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট খান সাইফুল­াহ পনির। অনুষ্ঠানে সরকারি বেসরকারি কর্মকর্তাসহ বিশিষ্টজনরা উপস্থিত ছিলেন। এদিকে দিবসটি উপলক্ষে তথ্য অফিসের উদ্যোগে মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক চলচ্চিত্র প্রদর্শনী ও বিভিন্ন শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে আলোচনা সভা এবং রচনা প্রতিযোগিতা অনুষ্ঠিত হয়।
জেলার রাজাপুর উপজেলায় ঐতিহাসিক মুজিবনগর দিবস উপলক্ষ্যে বুধবার সকাল সাড়ে ১০টায় উপজেলা পরিষদ অডিটোরিয়ামে “ঐতিহাসিক মুজিবনগর দিবস এবং বাংলাদেশর স্বাধীনতা” শীর্ষক আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত ও সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান পরিবেশিত হয়েছে। সভায় উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোঃ সোহাগ হাওলাদার’র সভাপতিত্বে প্রধান অতিথি হিসেবে ছিলেন উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান অধ্যক্ষ মোঃ মনিরউজ্জামান। বিশেষ অতিথি ছিলেন উপজেলা মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান আফরোজা আক্তার লাইজু, উপজেলা পরিষদ নবনির্বাচিত ভাইস চেয়ারম্যান জিয়া হায়দার খান লিটন, উপস্থিত ছিলেন উপজেলা স্বাস্থ্য কর্মকর্তা ডা: মাহাবুবুর রহমান, রাজাপুর রিপোর্টার্স ইউনিটি সভাপতি আউয়াল গাজী প্রমূখ।
অপরদিকে নলছিটিতে ঐতিহাসিক মুজিনগর দিবস পালিত হয়েছে। এ উপলক্ষে বুধবার সকাল ১১ টায় উপজেলা পরিষদের হলরুমে আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়। উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো. আশ্রাফুল ইসলামের সভাপতিত্বে আলোচনা সভায় অন্যদের মধ্যে বক্তব্য দেন সহকারী কমিশনার (ভূমি) মো. শাখাওয়াত হোসেন, জেলা পরিষদ সদস্য ও উপজেলা আ’লীগ সহ সভাপতি খন্দকার মজিবর রহমান, মুক্তিযোদ্ধা সংসদের ডেপুটি কমান্ডার তাজুল ইসলাম চৌধূরী দুলাল, উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা মিলি আক্তার, মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা আনোয়ার আজিম প্রমুখ। এছাড়া অনুষ্ঠানে স্থানীয় সাংবাদিক, সুশীল সামাজের প্রতিনিধি ও সরকারি বেসরকারি কর্মকর্তাসহ বিশিষ্টজনরা উপস্থিত ছিলেন। পরে স্থানীয় শিল্পিদের অংশগ্রহনে একই স্থানে একটি সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান অনুষ্ঠিত হয়।