ঝালকাঠি সদর ও কাঠালিয়ায় স্বতন্ত্র (বিদ্রোহী) চেয়ারম্যান প্রার্থীর নির্বাচন বয়কট, পুনঃনির্বাচন দাবী

প্রকাশিত: ৬:০৪ অপরাহ্ণ, মার্চ ২৪, ২০১৯ | আপডেট: ৬:০৪:অপরাহ্ণ, মার্চ ২৪, ২০১৯

ঝালকাঠি সদর উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান পদে স্বতন্ত্র প্রার্থী ও জেলা আওয়ামীলীগের সহসভাপতি সৈয়দ রাজ্জাক আলী সেলিমের আনারস প্রতিকের এজেন্টদের বের করে দিয়ে কেন্দ্র দখল ও জাল ভোটের অভিযোগে নির্বাচন বয়কট করে পুনঃ নির্বাচনের দাবি জানিয়েছেন তিনি। রোববার দুপুর আড়াইটার দিকে সদর উপজেলার কির্ত্তিপাশা বাউলকান্দা গ্রামের নিজ বাড়িতে সাংবাদিক সম্মেলনে তিনি এ অভিযোগ করেন। সাংবাদিক সম্মেলনে তিনি জানান, অসহায় এবং আদর্শ মানুষকে সহায়তা দিয়ে পরিপূর্ণ আদর্শ মানুষ গড়ার লক্ষ্য নিয়ে নির্বাচনে অংশ গ্রহণ করছিলাম। কিন্তু পরিতাপের বিষয় নির্বাচনে দাড়ানোর পর থেকে নানান ধরনের নির্যাতন শুরু হয়েছে। গত ৪দিন ধরে বাড়িতে গৃহবন্ধি অবস্থায় রাখা হয়েছে। কোন এজেন্ট, কর্মী-সমর্থককে কোথাও যেতে দেয়া হয়নি। কালকের (শনিবার) এজেন্টদের পথরুদ্ধ করে এজেন্টশিপের কাগজপত্র ছিনিয়ে নিয়েছে। সকাল ৮টায় ভোট গ্রহণ শুরুর পর থেকে ঘণ্টাখানেক সুষ্ঠুভাবে ভোট গ্রহণ চলছিলো। এরমধ্যে ১০% ভোট কাস্ট হয়েছিলো। আশা করছিলাম ভোট নিরপেক্ষ ও সুষ্ঠ হবে। প্রশাসনও কঠোর অবস্থানে ছিলো। কিন্তু আওয়ামীলীগ মনোনীত নৌকা প্রতিকের প্রার্থী আরিফুর রহমান খান’র সন্ত্রাসী বাহিনী প্রতিরোধে জনবল অপ্রতুল হবার কারণে যেভাবে মোকাবেলা করা দরকার তা প্রশাসন এবং আমাদের পক্ষে সম্ভব হয়নি। কর্মী-সমর্থকদের বাঁচানো এবং রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষ এড়াতে এজেন্টদের নির্বাচনী কার্যক্রম থেকে সরে যাবার নির্দেশনা দিয়েছি। এটি একটি প্রহসনের নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়েছে। যেখানে সাধারণ মানুষ ভোট দিতে পারেনি। সন্ত্রাসীরা ভোট কেন্দ্র দখল করে জাল ভোট দিয়েছে। সম্পূর্ণ অগনতান্ত্রিক পন্থায় নির্বাচন হচ্ছে। আমি সংঘাত চাই না, তাই প্রতারণার এ নির্বাচন বর্জন করে এবং পুনঃনির্বাচন দাবি করছি বলে জানান তিনি।
অপরদিকে ঝালকাঠির কাঠালিয়া উপজেলার চেয়ারম্যান পদে স্বতন্ত্র ২ প্রার্থী কারচুপির অভিযোগে ভোট বর্জন করেন। রোববার (২৪ মার্চ) বেলা সারে ৩টায় বর্তমান উপজেলা চেয়ারম্যান ও স্বতন্ত্র চেয়ারম্যান প্রার্থী গোলাম কিবরিয়া সিকদার (কাপ-পিরিচ) উপজেলা সদরের বাসায় সাংবাদিকদের ডেকে আনুষ্ঠানিকভাবে ভোট বর্জনের ঘোষনা দেন। গোলাম কিবরিয়া সিকদার সাংবাদিকদের কাছে অভিযোগ করে বলেন, উপজেলার প্রায় সকল কেন্দ্রে ভোট কারচুপি ও অনিয়ম হয়েছে। কাপ-পিরিচের এজেন্টদের কেন্দ্র থেকে বের করে দিয়ে জাল ভোট দেয়া ও প্রশাসনের সহযোগিতায় বিভিন্ন কেন্দ্র থেকে আমার এজেন্টদেরকে মারধর করে বের করে দেয় নৌকা মার্কার প্রার্থীর কর্মী-সমর্থকরা। এসময় মফস্বল সাংবাদিক ফোরাম সভাপতি ও প্রেস ক্লাবের সিনিয়র সহসভাপতি ফারুক হোসেন খান, প্রেস ক্লাবের সাবেক সাধারন সম্পাদক ইত্তেফাক সংবাদদাতা প্রবীন সাংবাদিক অধ্যাপক মো.আবদুল হালিম,সাংবাদিক জাহিদুল ইমলামসহ বেশ কয়েকজন সাংবাদিক উপস্থিত ছিলেন। এসময় মোবাইল ফোনে সাংবাদিকদের ফোন করে বিএনপির প্রার্থী অ্যাডভোকেট জাহাংগির হোসেন ভোট বর্জনের কথা জানান।
পঞ্চম উপজেলা পরিষদ নির্বাচনের তৃতীয় ধাপে ঝালকাঠির চার উপজেলার ২৩৭টি কেন্দ্র সকাল ৮টা থেকে ভোট গ্রহণ শুরু হয়। সকাল থেকেই কেন্দ্রগুলোতে ভোটার উপস্থিতি কম ছিল। বেলা বাড়ার সাথে সাথে ভোটারদের উপস্থিতিও বাড়তে থাকে। কয়েকটি কেন্দ্রে ভোটারদের সাজানো লাইনও দেখা গেছে। প্রার্থীদের সমর্থকরা লাইনে দাঁড়িয়ে আছেন, কিন্তু ভোট দিচ্ছেন না। অলস সময় পার করছেন ভোট গ্রহনের দায়িত্বপ্রাপ্ত কর্মকর্তারা। কিছু কিছু কেন্দ্রে দেখা গেছে প্রকাশ্যে সিল দিতে বাধ্য করা হচ্ছে।
ইতোমধ্যে নলছিটি উপজেলায় বিনাপ্রতিদ্বন্দ্বিতায় আওয়ামী লীগ মনোনীত সিদ্দিকুর রহমান চেয়ারম্যান নির্বাচিত হয়েছে। তবে ভাইস চেয়ারম্যান পদে মফিজুর রহমান শাহিনের বিরুদ্ধে ভোট কারচুপির অভিযোগ করেছেন প্রতিদ্ব›িদ্ব প্রার্থী তাজুল ইসলাম দুলাল চৌধুরী। তাজুল ইসলাম চৌধুরী বলেন, সকাল থেকে দুপুর পর্যন্ত শান্তিপূর্ণভাবে ভোট অনুষ্ঠিত হয়েছে। দুপুরের পর থেকে উপজেলার সবগুলো কেন্দ্র দখল করে জাল ভোট দিচ্ছেন শাহিনের কর্মী-সমর্থকরা। এ বিষয়ে ভোট গ্রহন কর্মকর্তাদের কাছে অভিযোগ করেও কোন সুফল পাচ্ছি না। এছাড়াও জেলার রাজাপুর ও কাঁঠালিয়া উপজেলার বেশ কিছু কেন্দ্রে সংঘাত ও ভোট কারচুপির অভিযোগ করেছেন প্রার্থীরা।
জেলায় চেয়ারম্যান পদে ১০জন, ভাইস চেয়ারম্যান পদে ১৬জন এবং মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান পদে ১২জন প্রদ্বি›িদ্বতা করছেন।
জেলার ৪ উপজেলায় ২৩৭টি কেন্দ্রের ১হাজার ২ ৫০ কক্ষে ভোট গ্রহণ করা হয়েছে। প্রতিটি কেন্দ্রে পুলিশের ১ জন অফিসার, ২জন কনস্টেবল, ৮জন পুরুষ ও ৪ জন মহিলা আনসার ও ভিডিপি সদস্য নিরাপত্তা ও আইন শৃঙ্খলা রক্ষার দায়িত্ব পালন করবেন। এছাড়াও ৫টি ভ্রাম্যমাণ আদালত, ১২টি স্ট্রাইকিং ফোর্স এবং র‌্যাব, বিজিবি ও এপিবিএন সদস্যরা নিরাপত্তা ও শৃঙ্খলা রক্ষায় কাজ করেছেন। জেলা ম্যাজিস্ট্রেট ও জেলা প্রশাসক মোঃ হামিদুল হক এবং পুলিশ সুপার মোঃ জোবায়েদুর রহমান নির্বাচনী পরিবেশ সুষ্ঠ রাখার ঘোষণা দেয়ায় ভোটাররা স্বতঃস্ফুর্তভাবে উৎসব মুখর পরিবেশে ভোট প্রদান করছিলেন।
জেলায় মোট ভোটার সংখ্যা ৪লাখ ৬৯ হাজার ৪০২ জন। এদের মধ্যে পুরুষ ভোটার ২লাখ ৩৬ হাজার ৪৯৫ এবং মহিলা ভোটার ২লাখ ৩২ হাজার ৯০৭ জন।
সদর উপজেলায় ভোট কেন্দ্র ৭৭টি, ভোট কক্ষ ৪০২টি, ভোটার সংখ্যা ১লাখ ৫২ হাজার ৮৬৩। পুরুষ ভোটার ৭৭ হাজার ৩২৪ ও মহিলা ভোটার ৭৫ হাজার ৫৩৯জন। নলছিটি উপজেলায় ভোট কেন্দ্র ৭০টি, ভোট কক্ষ ৩৬৫টি, ভোটার সংখ্যা ১লাখ ৩৭ হাজার ৬১০। পুরুষ ভোটার ৬৯ হাজার ৫০৭ ও মহিলা ভোটার ৬৮হাজার ১০৩জন। রাজাপুর উপজেলায় ভোট কেন্দ্র ৫০টি, ভোট কক্ষ ২৬৭টি, ভোটার সংখ্যা ৯৮হাজার ৬৫৪। পুরুষ ভোটার ৪৯ হাজার ৬২৫ ও মহিলা ভোটার ৪৯ হাজার ২৯জন। কাঠালিয়া উপজেলায় ভোট কেন্দ্র ৪০টি, ভোট কক্ষ ২১৬টি, ভোটার ১লাখ ৭৮ হাজার ৯২৯জনের মধ্যে পুরুষ ভোটার ৮৯ হাজার ৬৬৪, মহিলা ভোটার ৮৯ হাজার ২৬৫ জন।
ঝালকাঠি সদর উপজেলায় প্রতিদ্ব›দ্বী ছিলেন চেয়ারম্যান পদে আওয়ামীলীগ মনোনীত জেলা আওয়ামীলীগ সহসভাপতি মোঃ আরিফুর রহমান খান (নৌকা), বিদ্রোহী (স্বতন্ত্র) জেলা আওয়ামীলীগের সহসভাপতি ও সাবেক সৈয়দ রাজ্জাক আলী সেলিম (আনারস), সদর উপজেলা আওয়ামীলীগের সাধারন সম্পাদক ও সাবেক ভাইসচেয়ারম্যান ইঞ্জিনিয়ার মোস্তাফিজুর রহমান। ভাইসচেয়ারম্যান পদে আওয়ামীলীগ নেতা মইন তালুকদার (তালা) লিয়াকত আলী খান (বই), এসএম শামীম আহমেদ (উড়োজাহাজ), মহিলা ভাইসচেয়ারম্যান পদে জেলা আওয়ামীলীগ সদস্য ও বর্তমান ভাইসচেয়ারম্যান ইসরাত জাহান সোনালী (হাঁস), মাকসুদা ইয়াসমিন (ফুটবল), সালমা রহমান (কলস)।
নলছিটি উপজেলায় চেয়ারম্যান পদে প্রতিদ্ব›িদ্বতা না থাকায় ভাইসচেয়ারম্যান পদে প্রতিদ্ব›িদ্বতা করছেন গোলাম হোসেন (টিউবওয়েল), মুক্তিযোদ্ধা তাজুল ইসলাম চৌধুরী (চশমা), মোঃ মফিজুর রহমান শাহীন (মাইক), শরীফ হোসাইন আহমেদ দুলাল শরীফ (তালা), মহিলা ভাইসচেয়ারম্যান পদে আয়শা আক্তার (ফুটবল), উম্মে হাবিবা আক্তার (কলস), মোর্শেদা বেগম (হাঁস)।
রাজাপুর উপজেলায় প্রতিদ্ব›িদ্বতা করছেন চেয়াম্যান পদে আওয়ামীলীগ মনোনীত উপজেলা আওয়ামীলীগ সহসভাপতি অধ্যক্ষ মনিরউজ্জামান (নৌকা), বিদ্রোহী (স্বতন্ত্র) উপজেলা আওয়ামীলীগের সহসভাপতি মিলন মাহমুদ বাচ্চু (আনারস), ভাইসচেয়ারম্যান পদে আব্দুল­াহ আল হাসান বাপ্পী মৃধা (বই), আহসান হাবীব রুবেল (টিউবয়েল), মোঃ জাকারিয়া সুমন (উড়োজাহাজ), মোঃ জিয়া হায়দার খান লিটন (তালা), মোঃ ফখরুল ইসলাম খান (চশমা), মহিলা ভাইসচেয়ারম্যান পদে আফরোজা আক্তার লাইজু (হাঁস), নাজনিন হোসাইন আখি (বৈদ্যুতিক পাখা), নাসরিন আক্তার (কলস), শাহানাজ (ফুটবল)।
কাঠালিয়া উপজেলায় প্রতিদ্ব›িদ্বতা করছেন চেয়ারম্যান পদে আওয়ামীলীগ মনোনীত উপজেলা আওয়ামীলীগ নেতা ও বর্তমান ভাইসচেয়ারম্যান এমাদুল হক মনির (নৌকা), উপজেলা আওয়ামীলীগের সাবেক সভাপতি ও বর্তমান চেয়ারম্যান গোলাম কিবরিয়া সিকদার (কাপ-পিরিচ), উপজেলা আওয়ামীলীগের সাবেক সাধারন সম্পাদক মোঃ তরুন সিকদার, বিএনপি নেতা মোঃ আব্দুল জলিল মিয়াজি (চিংড়ি মাছ) ও মোঃ জাহাঙ্গির জোমাদ্দার (দোয়াত-কলম)। ভাইসচেয়ারম্যান পদে মোঃ বদিউজ্জামান (তালা), মোঃ মনিরুজ্জামান গোলদার (তালা) ও হারুন অর রশিদ (টিউবয়েল), মহিলা ভাইসচেয়ারম্যান পদে নাজমিন আক্তার (কলস) ও ফাতিমা খনম (হাঁস)।

[sharethis-inline-buttons]