রাজাপুরে স্বতন্ত্র প্রার্থীর সমর্থকের বাড়িতে হামলা অগ্নি সংযোগ নৌকার সমর্থকদের কুপিয়ে জখম

প্রকাশিত: ৪:৪৮ অপরাহ্ণ, মার্চ ২৩, ২০১৯ | আপডেট: ৪:৪৮:অপরাহ্ণ, মার্চ ২৩, ২০১৯

উপজেলা পরিষদ নির্বাচনকে কেন্দ্র করে ঝালকাঠির রাজাপুরের মঠবাড়ি ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যনের বাড়িতে হামলা করেছে নৌকা প্রতীকের কর্মী সমর্থকরা। শনিবার বেলা ১২টায় উপজেলার বাঘরী বাজার সংলগ্ন চেয়ারম্যানের নিজ বাস ভবনে এ ঘটনা ঘটে। এ সময় চেয়ারম্যান মোস্তফা কামাল সিকদারসহ সতন্ত্র প্রার্থী বাচ্চু মৃধার সমর্থক ৮ সমর্থক আহত হয়েছে। এদের মধ্যে দু’জনের অবস্থা গুরুতর। এ ঘটনার রেশ ধরে বিকেলে উপজেলার বাইপাস এলাকায় নৌকা সমর্থিত দুইজন নেতাকর্মীকে কুপিয়ে আহত করে আনারস মার্কার সমর্থকরা। এ ঘটনায় রাজাপুরে উত্তেজনা বিরাজ করছে।
স্থানীয়রা জানায়, শনিবার দুপুরে মঠবাড়ী ইউনিয়ন চেয়ারম্যান কামাল সিকদার তার ভগ্নিপতি সতন্ত্র ( আ’লীগের বিদ্রোহী )প্রার্থী উপজেলা আওয়ামীলীগের সিনিয়ার সহ-সভাপতি মিলন মাহমুদ বাচ্চুর নির্বাচনী এজেন্টদের সাথে বাসায় বসে কথা বলছিলেন। এসময় নৌকার সমর্থক ইন্দ্র পাশার নান্নু হাওলাদার, রফিক, রুবেল, সেলিমের নেতৃত্বে মোস্তফা কামাল সিকদারের বসতঘর, ব্যবসা প্রতিষ্ঠান ঔষধের দোকানে ভাংচুর করা হয়। রামদা দিয়ে ঘরের দরজা জানালাসহ ঘরের অসবাব পত্র ভাংচুর করে ও একটি মটোর সাইকেল পুড়িয়ে দেয়া হয়। আনারস প্রতীকের সমর্থকদের কুপিয়ে ও পিটিয়ে আহত করে। এতে ৩ জন সমর্থক আহত হয়। আহতদের রাজাপুর স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়েছে। এর মধ্যে আহত মিঠুনের অবস্থা গুরুতর হওয়ায় তাকে বরিশাল শের ই বাংলা মেডিকেল হাসপাতালে প্রেরণ করা হয়েছে।
আহত চেয়ারম্যান মোস্তফা কামাল সিকদার বলেন, ‘আওয়ামীলীগ কেন্দ্রীয় আ’লীগ নেতা মনিরুজ্জামান মনির ও ভাইস চেয়ারম্যান প্রার্থী আফরোজা আক্তার লাইজুর নেতৃত্বে আমার বড়িতে ও আমার ব্যবসা প্রতিষ্ঠান ঔষধের ফার্মেসীতে ভাংচুর করা হয়েছে। আমার ভাইয়ের মটোরসাইকেল পুড়িয়ে দেওয়া হয়েছে। আমি এ ঘটনায় রাজাপুর থানায় লিখিত অভিযোগ দেব’।
এ ব্যাপারে রাজাপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মো.জাহিদ হোসেন জানান,‘ভাংচুর ও অগ্নি সংযোগের খবর শুনে ঘটনাস্থলে পুলিশ পাঠানো হয়েছে। এ ঘটনায় লিখিত অভিযোগ পাইনি।’
এ ব্যপারে নৌকার প্রার্থী অধ্যক্ষ মনিরুজ্জামান মনির ও ভাইস চেয়ারম্যান প্রার্থী আফারাজা আক্তার লাইজুর মোবাইলে ফোন দিলে মুঠোফোন রিসিভ না করায় তাদের বক্তব্য জানাযায়নি। অপরদিকে কেন্দ্রীয় আ’লীগ নেতা মনিরুজ্জামান মনিরের মোবাইলে ফোন দিলে অন্য একজন তার ফোন রিসিভ করে বলেন তিনি বড়ইয়াতে একটি সভায় ব্যস্ত আছেন।