স্ত্রী-সন্তানদের হারিয়ে আপনাদের নিয়ে বেচে থাকতে চাই: কামরান

জি এম নিউজ জি এম নিউজ

বাংলার প্রতিচ্ছবি

প্রকাশিত: ১০:১৩ অপরাহ্ণ, মার্চ ১৬, ২০১৯ | আপডেট: ১০:১৩:অপরাহ্ণ, মার্চ ১৬, ২০১৯

জাহেদুর রহমান জাহেদ, গোলাপগঞ্জ (সিলেট) প্রতিনিধি : গোলাপগঞ্জে উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে নৌকার প্রার্থী এডভোকেট ইকবাল আহমদ চৌধুরীর শেষ নির্বাচনী জনসভায় মানুষের ঢলে কানায় কানায় পুর্ণ হয়ে উঠে উপজেলা সদর।

কর্মী-সমর্থক ও সাধারণ ভোটারসহ বিভিন্ন শ্রেণী পেশার মানুষের উপস্থিতি ছিল লক্ষ্যনীয়। প্রবীণ রাজনীতিবিদ এডভোকেট ইকবাল আহমদ চৌধুরীর সমর্থনে সবাই একাট্টা পোষণ করে আগামী ১৮ মার্চ ব্যক্তি ইকবাল চৌধুরীকে নির্বাচিত করবেন বলে আগত অনেকেই জানান। উপস্থিত অনেকেই বলেন, জীবনের শেষ মুহুর্তে এই প্রবীণ রাজনীতিদকে সম্মান জানাতে আমরা সবাই উপজেলার পাড়া মহল্লার এবং প্রত্যন্ত অঞ্চল থেকে সভাস্থলে এসেছি। তিনি কোন দল করেন এই বিষয়টির দিকে না তাকিয়ে ব্যক্তি ইকবাল চৌধুরীকে ভোট দেব এই অভিমত জানান বিভিন্নজন।

শনিবার বিকেল থেকে উপজেলা বিভিন্ন প্রান্ত থেকে সমর্থক ও ভোটাররা আসতে থাকেন গাড়ী নিয়ে। সভাস্থলে আসা শুরু হয় জেলা ও স্থানীয় আওয়ামীলীগ এবং অঙ্গসংগঠনের নেতাকর্মীদের। সব মিলিয়ে নির্বাচনী শেষ জনসভা মানুষের উপস্থিতিতে মুখরিত হয়ে উঠে সভাস্থল।

গতকাল শনিবার বিকেল ৪টায় গোলপগঞ্জ চৌমুহনীতে উপজেলা আওয়ামীলীগ সাধারণ সম্পাদক রফিক আহমদের সভাপতিত্বে ও জেলা আওয়ামীলীগ নেতা সৈয়দ মিছবাহ উদ্দিনের পরিচালায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে মহানগর আওয়ামীলীগ সভাপতি, সাবেক সিটি মেয়র বদর উদ্দিন আহমদ কামরান বলেন, গোলাপগঞ্জের বর্ষীয়ান রাজনীতিবিদদের মধ্যে এডভোকেট ইকবাল আহমদ চৌধুরীই প্রথম সারিতে। তিনি একজন পরিচ্ছন্ন রাজনৈতিক ব্যক্তিত্ব। তিনি রাজনৈতিক জীবনে উপজেলাবাসীর সেবায় কাটিয়েছেন।

এবারের নির্বাচন ইকবাল চৌধুরীর শেষ নির্বাচন। তিনি স্ত্রী-সন্তানদের হারিয়ে আপনাদের মাঝে, উপজেলাবাসীকে নিয়ে বেচে থাকতে চান। তিনি উপজেলাবাসীকে সব সময় ভাবেন, বিধায় তিনি উপজেলা রাজনীতির সাথে জড়িয়ে রয়েছেন, কারন উপজেলাবাসীর সুখ-দুঃখে পাশে থেকে কাজ করে যেতে। চাইলে তিনি আজ জাতীয় রাজনীতির সাথে জড়িত থাকতে পারতেন। তার সহকর্মী বাংলাদেশের বিশিষ্ট পার্লামেন্টারিয়ান সুরঞ্জিত সেন গুপ্তসহ অনেক বিচারপতি, সচিব রয়েছেন যারা তার ক্লাসমেট ছিলেন। শুধু উপজেলাবাসীকে ভালোবাসেন বলে এখনো আপনারে পাশে রয়েছেন। তাই ১৮ মার্চ নির্বাচনে আপনারা দলমতের উর্ধ্বে থেকে ঐক্যের সাথে ভোট প্রয়োগ করে প্রবীণ এই রাজনীতিবিদকে জীবনের শেষ নির্র্বাচনে জয়যুক্ত করবেন এটা আমাদের আশা এবং প্রত্যাশা।

প্রধান বক্তার বক্তব্য রাখেন জেলা আওয়ামীলীগের যুগ্ম সম্পাদক সুজাত আলী রফিক। বিশেষ অতিথির বক্তব্য দেন জেলা আওয়ামীলীগের উপ-দপ্তর সম্পাদক জগলু চৌধুরী, মহানগর আওয়ামীলীগের সহ-সভাপতি, সিটি কাউন্সিলর বীর মুক্তিযোদ্ধা আব্দুল খালিক, মহানগর আওয়ামীলীগের তথ্য প্রযুক্তি বিষয়ক সম্পাদক তপন মিত্র, সিলেট পরিবহন শ্রমিক ইউনিয়নের বিভাগীয় সভাপতি সেলিম আহমদ ফলিক।

বক্তব্য দেন ও উপস্থিত ছিলেন গোলাপগঞ্জ পৌরসভার মেয়র আমিনুল ইসলাম রাবেল, উপজেলা আওয়ামীলীগ ও নির্বাচন পরিচালনা কমিটির যুগ্ম সম্পাদক লুৎফুর রহমান, এডভোকেট ইকবাল চৌধুরীর ছোট ভাই এলিন চৌধুরী, মহানগর ছাত্রলীগের সাবেক সাধারন সম্পাদক আব্দুল আলিম তুষার, ঢাকাদক্ষিন ইউপি সাবেক চেয়ারম্যান মজির উদ্দিন চাকলাদার, আমুড়া ইউপির সাবেক চেয়ারম্যান আছদ্দর আলী জালালী, উপজেলা আওয়ামীল নেতা জহির উদ্দিন, উপজেলা যুবলীগের যুগ্ম সম্পাদক রুহেল আহমদ, উপজেলা ছাত্রলীগ সভাপতি খায়রুল হক, উপজেলা এডুকেশন ট্রাস্ট ইউকের সাধারণ সম্পাদক মস্তাফিজুর রহমান রুহেল।

উপস্থিত ছিলেন মহানগর যুব মহিলালীগ সভাপতি ও ভাইস চেয়ারম্যান প্রার্থী নাজিরা বেগম শীলা, বাদেপাশা ইউপি চেয়ারম্যান মো. মস্তাক আহমদ, উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার আলহাজ্ব শফিকুর রহমান, জেলা পরিষদ সদস্য সায়্যিদ আহমদ সুহেদ, পৌর কাউন্সিলর এম ফজলুল আলম, জেলা ছাত্রলীগ নেত জাফরান জামিল, ফুলবাড়ী ইউপি আওয়ামীলীগ নেতা আব্দুল হানিফ খান, পৌরসভার সাবেক কমিশনার ফরিদ উদ্দিন ইরান, বাদেপাশা ইউপি যুবলীগ নেতা আলিম উদ্দিন বাবলু, আওয়ামীলীগ নেতা নাজিমুল হক লস্কর, আমুড়া ইউপি আওয়ামীলীগের যুগ্ম সম্পাদক আবু সুফিয়ান আজম প্রমুখ।