বায়ু দূষন নিয়ন্ত্রণ আইন প্রনয়ন বিষয়ক কর্মশালা

জি এম নিউজ জি এম নিউজ

বাংলার প্রতিচ্ছবি

প্রকাশিত: ১১:০১ অপরাহ্ণ, অক্টোবর ২৪, ২০১৮ | আপডেট: ১১:০২:অপরাহ্ণ, অক্টোবর ২৪, ২০১৮

মর্জিনা বেগম/এইচ,এম ইমরান:

বায়ু দূষণ নিয়ন্ত্রণ আইন প্রনয়ন বিষয়ক স্টেইকহোল্ডারদের এক কর্মশালা গতকাল নগরীর বিডিএস মিলনায়তনে অনুষ্ঠিত হয়। কর্মশালায় উপস্থাপিত প্রবন্ধে বলা হয়,বরিশালে বাতাসে দূষণের মাত্রা ১৫০থেকে ২০০ এ.কিউ.আই। অন্যান্য বিভাগীয় শহরগুলোর তুলনায় এ মাত্রা কম হলেও খুব ভাল নয়। ইটভাটা,কলকারখানা ও যানবাহনের নির্গত কালো ধোঁয়া,গ্যাস চালিত যানবাহন,ক্লিনিক্যাল বর্জ্য এবং অপরিকল্পিত নগরায়নসহ নানাবিধ কারনে বায়ু দূষণ হচ্ছে।

 

এর ফলে হার্ট,লাঞ্চ এবং কিডনীসহ বিভিন্নবি রোগ বৃদ্ধি পাচ্ছে। বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার তথ্য অনুযায়ী বায়ূ দূষনের ফলে প্রতি বছর বিশ্বে ৪২ লাখ মানুষ মারা যায়। এ কারনে বায়ু দূষণের কারনগুলি বিষয়ে সকলকে সচেতন হবে। তাই বায়ুকে দূষণের হাত থেকে রক্ষার জন্য আইনের প্রনয়ন এবং বাস্তবায়ন জরুরী। কর্মশালায় এ আইনকে “নির্মল বায়ু সংরক্ষন আইন নাম করনের দাবীতে সকলে এক ম মত পোষন করেন।

 

বাংলাদেশ পরিবেশ আইনবিদ সমিতি (বেলা) ও বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয় (বুয়েট)’র যৌথভাবে আয়োজিত কর্মশালায় সভাপতিত্ব করেন,বরিশাল পরিবেশ অধিদপ্তরের পরিচালক মোঃ আবদুল হালিম। এছাড়া আলোচনা করেন,জেলা সিভিল সার্জন ডাক্তার মোঃ মনোয়ার হোসেন,পরিবেশ অধিদপ্তরের সাবেক অতিরিক্ত মহাপরিচালক ও কেইস প্রজেক্ট ‘র কনসালটেন্ট মোঃশাহজাহান,বিভাগীয় বন কর্মকর্তা মোঃ আবুল কালাম,বুয়েট’র সহকারী অধ্যাপক ডক্টর ইয়াসির আরাফাত,সেন্টার ফর ক্লাইমেট জাস্টিস বাংলাদেশ’র নির্বাহী পরিচালক মোঃ হাফিজুর রহমান খান,বিসিসি’র কাউন্সিলর কোহিনূর বেগম, ডাক্তার সৈয়দ হাবিবুর রহমান, অধ্যক্ষ গাজী জাহিদ হোসেন, অধ্যাপিকা টুনু কর্মকার ও শিবানী চৌধুরী,উন্নয়ন সংগঠক জাহানারা বেগম স্বপ্না ও সাংবাদিক স্বপন খন্দকার প্রমুখ।