Dhaka ১০:২১ অপরাহ্ন, শুক্রবার, ১২ জুলাই ২০২৪, ২৮ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

খাগড়াছড়ি পার্বত্য জেলা ও এর সৌন্দর্য

  • Reporter Name
  • Update Time : ০৯:৪৩:৩৯ পূর্বাহ্ন, বুধবার, ২১ ফেব্রুয়ারী ২০২৪
  • ৩৭৩ Time View

খাগড়াছড়ি পার্বত্য জেলা, অন্য দুটি পার্বত্য জেলার সাথে, এর ঘূর্ণিঝড় পাহাড়ি রাস্তা এবং পাহাড়ের সৌন্দর্যের সাথে একটি মন্ত্রমুগ্ধ অভিজ্ঞতা প্রদান করে। পাহাড়ের মানুষের সরলতা এবং আতিথেয়তা এবং পাহাড়ের মোহনীয়তায় বিমোহিত হন না এমন ব্যক্তি খুঁজে পাওয়া সম্ভবত খুবই বিরল। পাহাড়ি মানুষদের সহজ-সরল প্রকৃতি এবং তাদের আতিথেয়তার উষ্ণতার কারণে দর্শনার্থীরা প্রায়শই এই জায়গাগুলিতে বারবার ফিরে আসার ইচ্ছা অনুভব করে।

খাগড়াছড়ি পার্বত্য জেলা

তিন পার্বত্য জেলার মধ্যে, খাগড়াছড়ি এমন একটি স্থান যা আমরা অনেকেই পরিদর্শন করেছি, এর উল্লেখযোগ্য ল্যান্ডমার্কগুলির সাথে পরিচিত হয়েছি। আজ, আমরা আপনাদের সামনে নিয়ে আসছি এই জেলার কিছু কম-জানা ইতিহাস, সাথে এর কিছু সৌন্দর্যের স্থান।

খাগড়াছড়ি জেলার ইতিহাস ও সংক্ষিপ্ত বিবরণ

‘খাগড়া’ একটি নদীর নাম। খাগড়াছড়ির প্রাচীন নাম ছিল ‘তারক’। খাগড়াছড়িতে নদীর দুই ধারে খাগড়া নামক স্রোতসহ গভীর বন ছিল। খাগড়া বনের এই স্রোত থেকেই ‘খাগড়াছড়ি’ নামের উৎপত্তি। নদীর তীরে খাগড়া বন থাকায় কালক্রমে জনসংখ্যা বৃদ্ধি পাওয়ায় এলাকাটি খাগড়াছড়ি নামে পরিচিতি লাভ করে।

ঐতিহাসিক বিশ্লেষণ থেকে জানা যায় যে খ্রিস্টীয় 6 ম থেকে 14 শতকের মধ্যে এই অঞ্চলটি পর্যায়ক্রমে ত্রিপুরা ও আরাকান রাজপরিবার দ্বারা শাসিত ছিল। 590 থেকে 953 খ্রিস্টাব্দ পর্যন্ত, মোট 363 বছর ধরে, ত্রিপুরা রাজবংশ পার্বত্য অঞ্চলে (খাগড়াছড়ি সহ) এবং চট্টগ্রাম শাসন করেছিল। পরবর্তীতে, 953 খ্রিস্টাব্দ থেকে 1240 খ্রিস্টাব্দ পর্যন্ত, আরাকান রাজকীয় বংশ 297 বছর ধরে এই অঞ্চলে শাসন করে। পরবর্তীকালে, আরও 102 বছর (1342 খ্রিস্টাব্দ পর্যন্ত), ত্রিপুরা রাজকীয় লাইন এই অঞ্চলের উপর নিয়ন্ত্রণ পুনরুদ্ধার করে।

ঐতিহাসিক সূত্রে জানা যায়, দশম শতক থেকে পঞ্চদশ শতক পর্যন্ত ত্রিপুরা রাজপরিবার, আরাকান রাজপরিবার এবং গৌড়ের মুসলিম সুলতানরা যথাক্রমে ৮, ৯ ও ৬ বার এই অঞ্চলে আক্রমণ করেছিল। যাইহোক, 1342 খ্রিস্টাব্দ থেকে এই অঞ্চলের নিয়ন্ত্রণ মুসলিম শাসক সুলতান ফখরুদ্দিন মুবারক শাহের হাতে চলে যায়, চট্টগ্রাম সহ আশেপাশের এলাকা।

মুসলিম শাসনামলে, 1757 খ্রিস্টাব্দে, ইস্ট ইন্ডিয়া কোম্পানি 1760 খ্রিস্টাব্দে নবাব মীর কাশিম আলী খানের শাসনামলের পর চট্টগ্রামের নিয়ন্ত্রণ নিয়ে বাংলা আক্রমণ করে। পরবর্তীতে, 1761 খ্রিস্টাব্দে, 14 ফেব্রুয়ারীতে, একটি যুদ্ধ সংঘটিত হয়। স্বাধীন ত্রিপুরা মহারাজা এবং ব্রিটিশ সরকার। যুদ্ধে ত্রিপুরা মহারাজার পরাজয়ের ফলে একটি সন্ধি স্বাক্ষরিত হয়।

আকর্ষণীয় স্থান এবং তাদের অবস্থান

1. আলুটিলা পর্যটন কেন্দ্র

পর্যটন কেন্দ্রটি খাগড়াছড়ি-চট্টগ্রাম মহাসড়কের কাছে অবস্থিত, যা বাস বা ট্যাক্সি দ্বারা সহজে যেতে পারে।

হাইওয়ে থেকে হেরিংবোন রোড দিয়ে জিপ, প্রাইভেট কার, মাইক্রোবাস বা পায়ে হেঁটে আলুটিলার জলপ্রপাত বা রিচং জলপ্রপাত পৌঁছানো যায়।

2. আলুটিলার গুহা বা রহস্যময় গুহা

পর্যটন কেন্দ্রটি খাগড়াছড়ি-চট্টগ্রাম মহাসড়কের কাছে অবস্থিত, যা বাস বা ট্যাক্সি দ্বারা সহজে যেতে পারে। এই গুহার মধ্য দিয়ে যাত্রা করা বিভিন্ন ধরনের রোমাঞ্চকর অভিজ্ঞতা প্রদান করে।

3. দেবতার পুকুর (দেবতার লেক)

জেলা কেন্দ্র খাগড়াছড়ি-মহালছড়ি-রাঙ্গামাটি সড়ক থেকে ১১ কিলোমিটার দক্ষিণে জেলার নুয়ানছড়ি মৌজায় প্রধান সড়ক থেকে প্রায় ৪ কিলোমিটার পশ্চিমে শান্ত দেবতার পুকুর অবস্থিত। স্থানীয়রা বিশ্বাস করেন যে এক দেবতা এখানে বাস করেছিলেন এবং এই শান্ত হ্রদে স্নান করতেন।

4. শান্তিপুর অরণ্য কুটির

পাকা রাস্তা পানছড়ি পর্যন্ত বিস্তৃত, কিছু অংশ হেরিংবোনের কাছে নুড়িযুক্ত। পানছড়ি পর্যন্ত বাসে ভ্রমণ, তারপর গাড়ি বা জীপে করে সাইটে যান।

5. বিডিআর মেমোরিয়াল পার্ক

খাগড়াছড়ির প্রধান বাসস্ট্যান্ড থেকে সরাসরি সিএনজেড বা টমটমে বিডিআর মেমোরিয়াল পার্কে যান।

6. মৌবিনী লেক

খাগড়াছড়ি থেকে সরাসরি সিএনজিতে করে পানছড়ি উপজেলার ভৈবনছড়া হয়ে মৌবিনী লেকে পৌঁছান। মৌবিনী লেকের সৌন্দর্য যে কাউকে মুগ্ধ করতে বাধ্য করবে।

7. জেলা পরিষদ পার্ক

খাগড়াছড়ির প্রধান বাসস্ট্যান্ড থেকে সরাসরি সিএনজেড বা টমটমে ভ্রমণ করুন জেলা পরিষদ পার্কে পৌঁছাতে।

8. ডিসি পার্ক

খাগড়াছড়ি থেকে মানিকছড়ি উপজেলায় সরাসরি বাস বা সিএনজেডে ভ্রমণ করুন, তারপর মানিকছড়ি বাসস্ট্যান্ড থেকে টমটম বা সিএনজেড হয়ে ডিসি পার্কে যান।

বিশ্রাম ঘর:

খাগড়াছড়ি পার্বত্য জেলায় অবস্থিত কিছু সরকারি ও বেসরকারি হোটেলের বিবরণ নিচে দেওয়া হল। আপনার সফর পরিকল্পনা করার আগে তাদের সাথে যোগাযোগ নিশ্চিত করুন.

ডাক বাংলো জেলা পরিষদ, খাগড়াছড়ি; একটি জেলা পরিষদ দ্বারা সংস্কার করা হয়েছে, এই ডাক বাংলোটি বর্তমানে একটি এনজিওকে লিজ দেওয়া হয়েছে – বিস্তারিত জানার জন্য জেলা পরিষদের সাথে যোগাযোগ করুন৷

  • পরজাতন মোটেল এ কে এম রফিকুল ইসলাম, পরজাতন মোটেল, খাগড়াছড়ি সদর, খাগড়াছড়ি। 01715712189

  • হোটেল নিরিবিলি মীর হোসেন, নারিকে বাগান, খাগড়াছড়ি সদরের মানিকছড়ি ইউনিয়নের বাজার রোডে অবস্থিত, মোবাইল নং- ০১৮১৩৩৪৩৮৫১, ০১৮২০৭১৪৪৪২

  • হোটেল গাইরিং জনাব এস. অনন্ত বিকাশ, ত্রিপুরা সাঙ্গা-মিলনপুর, ৭ নং। পৌরসভা ওয়ার্ড, সদর উপজেলা, খাগড়াছড়ি পার্বত্য জেলা। 017155163173, 01554319947

  • আবাশিক হোটেল দার আল হিজাজ জনাব মুজাহের পানখাইয়া পাড়া রোড, কপি হাউজের কাছে, মানিকছড়ি ইউনিয়নের বাজার, খাগড়াছড়ি সদর, খাগড়াছড়ি পার্বত্য জেলা। 01951051206, 01786910513

  • ইকোছড়ি ইন মিঃ সেলিম, হোটেল ইকোছড়ি ইন, খাগড়াছড়ি, ক্যান্ট, পূর্ব গেট, সদর, খাগড়াছড়ি। 0182874014

  • হোটেল হিল প্যারাডাইস জনাব সেলিম, সেলিম ট্রেড সেন্টার, কোর্ট রোড, সদর, খাগড়াছড়ি। 01754933076, 01647478149

  • গাংচিল আবাশিক হোটেল রঞ্জিত মহাজন, আশা কমপ্লেক্স, কলেজ রোড, নারিকেল বাগান, খাগড়াছড়ি। 01878338218, 0371612323

  • হোটেল রাজু (আবাসিক) ওসমান গণি, নারিকেল বাগান, কলেজ রোড, খাগড়াছড়ি। 0155066056, 037161161

  • বার্ন রিসোর্ট (আবাসিক হোটেল) অজিত কুমার দেব, কলেজ রোড, নারিকেল বাগান, খাগড়াছড়ি। 01815600498, 037162526

  • মাউন্ট ইন হোটেল (আবাসিক) জনাব আনোয়ার হোসেন কলেজ রোড, নারিকেল বাগান, খাগড়াছড়ি। 01864830800, 037162828

  • অরণ্য বিলাস (আবাসিক হোটেল) স্বপন চন্দ্র দেব নাথ কলেজ রোড, নারিকেল বাগান, খাগড়াছড়ি। 01765804949, 037162526

  • গেস্ট হাউস খাগড়াছড়ি (আবাসিক) জনাব তাহেরুল ইসলাম (তাহির), নজরুল পাড়া, কলেজ রোড, খাগড়াছড়ি, 01765804949, 037162526

নৈসর্গিক খাগড়াছড়ি পার্বত্য জেলায় একটি অনন্য অভিজ্ঞতার জন্য, এই হোটেলগুলি বিভিন্ন পছন্দ অনুসারে বিভিন্ন বিকল্পের সাথে আরামদায়ক থাকার ব্যবস্থা করে।

Tag :

Write Your Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Save Your Email and Others Information

About Author Information

golam mostafa

মাদারীপুরের সাবেক এসপি সুব্রত কুমারসহ ৫ জনের বিরুদ্ধে চার্জশিট দাখিল

খাগড়াছড়ি পার্বত্য জেলা ও এর সৌন্দর্য

Update Time : ০৯:৪৩:৩৯ পূর্বাহ্ন, বুধবার, ২১ ফেব্রুয়ারী ২০২৪

খাগড়াছড়ি পার্বত্য জেলা, অন্য দুটি পার্বত্য জেলার সাথে, এর ঘূর্ণিঝড় পাহাড়ি রাস্তা এবং পাহাড়ের সৌন্দর্যের সাথে একটি মন্ত্রমুগ্ধ অভিজ্ঞতা প্রদান করে। পাহাড়ের মানুষের সরলতা এবং আতিথেয়তা এবং পাহাড়ের মোহনীয়তায় বিমোহিত হন না এমন ব্যক্তি খুঁজে পাওয়া সম্ভবত খুবই বিরল। পাহাড়ি মানুষদের সহজ-সরল প্রকৃতি এবং তাদের আতিথেয়তার উষ্ণতার কারণে দর্শনার্থীরা প্রায়শই এই জায়গাগুলিতে বারবার ফিরে আসার ইচ্ছা অনুভব করে।

খাগড়াছড়ি পার্বত্য জেলা

তিন পার্বত্য জেলার মধ্যে, খাগড়াছড়ি এমন একটি স্থান যা আমরা অনেকেই পরিদর্শন করেছি, এর উল্লেখযোগ্য ল্যান্ডমার্কগুলির সাথে পরিচিত হয়েছি। আজ, আমরা আপনাদের সামনে নিয়ে আসছি এই জেলার কিছু কম-জানা ইতিহাস, সাথে এর কিছু সৌন্দর্যের স্থান।

খাগড়াছড়ি জেলার ইতিহাস ও সংক্ষিপ্ত বিবরণ

‘খাগড়া’ একটি নদীর নাম। খাগড়াছড়ির প্রাচীন নাম ছিল ‘তারক’। খাগড়াছড়িতে নদীর দুই ধারে খাগড়া নামক স্রোতসহ গভীর বন ছিল। খাগড়া বনের এই স্রোত থেকেই ‘খাগড়াছড়ি’ নামের উৎপত্তি। নদীর তীরে খাগড়া বন থাকায় কালক্রমে জনসংখ্যা বৃদ্ধি পাওয়ায় এলাকাটি খাগড়াছড়ি নামে পরিচিতি লাভ করে।

ঐতিহাসিক বিশ্লেষণ থেকে জানা যায় যে খ্রিস্টীয় 6 ম থেকে 14 শতকের মধ্যে এই অঞ্চলটি পর্যায়ক্রমে ত্রিপুরা ও আরাকান রাজপরিবার দ্বারা শাসিত ছিল। 590 থেকে 953 খ্রিস্টাব্দ পর্যন্ত, মোট 363 বছর ধরে, ত্রিপুরা রাজবংশ পার্বত্য অঞ্চলে (খাগড়াছড়ি সহ) এবং চট্টগ্রাম শাসন করেছিল। পরবর্তীতে, 953 খ্রিস্টাব্দ থেকে 1240 খ্রিস্টাব্দ পর্যন্ত, আরাকান রাজকীয় বংশ 297 বছর ধরে এই অঞ্চলে শাসন করে। পরবর্তীকালে, আরও 102 বছর (1342 খ্রিস্টাব্দ পর্যন্ত), ত্রিপুরা রাজকীয় লাইন এই অঞ্চলের উপর নিয়ন্ত্রণ পুনরুদ্ধার করে।

ঐতিহাসিক সূত্রে জানা যায়, দশম শতক থেকে পঞ্চদশ শতক পর্যন্ত ত্রিপুরা রাজপরিবার, আরাকান রাজপরিবার এবং গৌড়ের মুসলিম সুলতানরা যথাক্রমে ৮, ৯ ও ৬ বার এই অঞ্চলে আক্রমণ করেছিল। যাইহোক, 1342 খ্রিস্টাব্দ থেকে এই অঞ্চলের নিয়ন্ত্রণ মুসলিম শাসক সুলতান ফখরুদ্দিন মুবারক শাহের হাতে চলে যায়, চট্টগ্রাম সহ আশেপাশের এলাকা।

মুসলিম শাসনামলে, 1757 খ্রিস্টাব্দে, ইস্ট ইন্ডিয়া কোম্পানি 1760 খ্রিস্টাব্দে নবাব মীর কাশিম আলী খানের শাসনামলের পর চট্টগ্রামের নিয়ন্ত্রণ নিয়ে বাংলা আক্রমণ করে। পরবর্তীতে, 1761 খ্রিস্টাব্দে, 14 ফেব্রুয়ারীতে, একটি যুদ্ধ সংঘটিত হয়। স্বাধীন ত্রিপুরা মহারাজা এবং ব্রিটিশ সরকার। যুদ্ধে ত্রিপুরা মহারাজার পরাজয়ের ফলে একটি সন্ধি স্বাক্ষরিত হয়।

আকর্ষণীয় স্থান এবং তাদের অবস্থান

1. আলুটিলা পর্যটন কেন্দ্র

পর্যটন কেন্দ্রটি খাগড়াছড়ি-চট্টগ্রাম মহাসড়কের কাছে অবস্থিত, যা বাস বা ট্যাক্সি দ্বারা সহজে যেতে পারে।

হাইওয়ে থেকে হেরিংবোন রোড দিয়ে জিপ, প্রাইভেট কার, মাইক্রোবাস বা পায়ে হেঁটে আলুটিলার জলপ্রপাত বা রিচং জলপ্রপাত পৌঁছানো যায়।

2. আলুটিলার গুহা বা রহস্যময় গুহা

পর্যটন কেন্দ্রটি খাগড়াছড়ি-চট্টগ্রাম মহাসড়কের কাছে অবস্থিত, যা বাস বা ট্যাক্সি দ্বারা সহজে যেতে পারে। এই গুহার মধ্য দিয়ে যাত্রা করা বিভিন্ন ধরনের রোমাঞ্চকর অভিজ্ঞতা প্রদান করে।

3. দেবতার পুকুর (দেবতার লেক)

জেলা কেন্দ্র খাগড়াছড়ি-মহালছড়ি-রাঙ্গামাটি সড়ক থেকে ১১ কিলোমিটার দক্ষিণে জেলার নুয়ানছড়ি মৌজায় প্রধান সড়ক থেকে প্রায় ৪ কিলোমিটার পশ্চিমে শান্ত দেবতার পুকুর অবস্থিত। স্থানীয়রা বিশ্বাস করেন যে এক দেবতা এখানে বাস করেছিলেন এবং এই শান্ত হ্রদে স্নান করতেন।

4. শান্তিপুর অরণ্য কুটির

পাকা রাস্তা পানছড়ি পর্যন্ত বিস্তৃত, কিছু অংশ হেরিংবোনের কাছে নুড়িযুক্ত। পানছড়ি পর্যন্ত বাসে ভ্রমণ, তারপর গাড়ি বা জীপে করে সাইটে যান।

5. বিডিআর মেমোরিয়াল পার্ক

খাগড়াছড়ির প্রধান বাসস্ট্যান্ড থেকে সরাসরি সিএনজেড বা টমটমে বিডিআর মেমোরিয়াল পার্কে যান।

6. মৌবিনী লেক

খাগড়াছড়ি থেকে সরাসরি সিএনজিতে করে পানছড়ি উপজেলার ভৈবনছড়া হয়ে মৌবিনী লেকে পৌঁছান। মৌবিনী লেকের সৌন্দর্য যে কাউকে মুগ্ধ করতে বাধ্য করবে।

7. জেলা পরিষদ পার্ক

খাগড়াছড়ির প্রধান বাসস্ট্যান্ড থেকে সরাসরি সিএনজেড বা টমটমে ভ্রমণ করুন জেলা পরিষদ পার্কে পৌঁছাতে।

8. ডিসি পার্ক

খাগড়াছড়ি থেকে মানিকছড়ি উপজেলায় সরাসরি বাস বা সিএনজেডে ভ্রমণ করুন, তারপর মানিকছড়ি বাসস্ট্যান্ড থেকে টমটম বা সিএনজেড হয়ে ডিসি পার্কে যান।

বিশ্রাম ঘর:

খাগড়াছড়ি পার্বত্য জেলায় অবস্থিত কিছু সরকারি ও বেসরকারি হোটেলের বিবরণ নিচে দেওয়া হল। আপনার সফর পরিকল্পনা করার আগে তাদের সাথে যোগাযোগ নিশ্চিত করুন.

ডাক বাংলো জেলা পরিষদ, খাগড়াছড়ি; একটি জেলা পরিষদ দ্বারা সংস্কার করা হয়েছে, এই ডাক বাংলোটি বর্তমানে একটি এনজিওকে লিজ দেওয়া হয়েছে – বিস্তারিত জানার জন্য জেলা পরিষদের সাথে যোগাযোগ করুন৷

  • পরজাতন মোটেল এ কে এম রফিকুল ইসলাম, পরজাতন মোটেল, খাগড়াছড়ি সদর, খাগড়াছড়ি। 01715712189

  • হোটেল নিরিবিলি মীর হোসেন, নারিকে বাগান, খাগড়াছড়ি সদরের মানিকছড়ি ইউনিয়নের বাজার রোডে অবস্থিত, মোবাইল নং- ০১৮১৩৩৪৩৮৫১, ০১৮২০৭১৪৪৪২

  • হোটেল গাইরিং জনাব এস. অনন্ত বিকাশ, ত্রিপুরা সাঙ্গা-মিলনপুর, ৭ নং। পৌরসভা ওয়ার্ড, সদর উপজেলা, খাগড়াছড়ি পার্বত্য জেলা। 017155163173, 01554319947

  • আবাশিক হোটেল দার আল হিজাজ জনাব মুজাহের পানখাইয়া পাড়া রোড, কপি হাউজের কাছে, মানিকছড়ি ইউনিয়নের বাজার, খাগড়াছড়ি সদর, খাগড়াছড়ি পার্বত্য জেলা। 01951051206, 01786910513

  • ইকোছড়ি ইন মিঃ সেলিম, হোটেল ইকোছড়ি ইন, খাগড়াছড়ি, ক্যান্ট, পূর্ব গেট, সদর, খাগড়াছড়ি। 0182874014

  • হোটেল হিল প্যারাডাইস জনাব সেলিম, সেলিম ট্রেড সেন্টার, কোর্ট রোড, সদর, খাগড়াছড়ি। 01754933076, 01647478149

  • গাংচিল আবাশিক হোটেল রঞ্জিত মহাজন, আশা কমপ্লেক্স, কলেজ রোড, নারিকেল বাগান, খাগড়াছড়ি। 01878338218, 0371612323

  • হোটেল রাজু (আবাসিক) ওসমান গণি, নারিকেল বাগান, কলেজ রোড, খাগড়াছড়ি। 0155066056, 037161161

  • বার্ন রিসোর্ট (আবাসিক হোটেল) অজিত কুমার দেব, কলেজ রোড, নারিকেল বাগান, খাগড়াছড়ি। 01815600498, 037162526

  • মাউন্ট ইন হোটেল (আবাসিক) জনাব আনোয়ার হোসেন কলেজ রোড, নারিকেল বাগান, খাগড়াছড়ি। 01864830800, 037162828

  • অরণ্য বিলাস (আবাসিক হোটেল) স্বপন চন্দ্র দেব নাথ কলেজ রোড, নারিকেল বাগান, খাগড়াছড়ি। 01765804949, 037162526

  • গেস্ট হাউস খাগড়াছড়ি (আবাসিক) জনাব তাহেরুল ইসলাম (তাহির), নজরুল পাড়া, কলেজ রোড, খাগড়াছড়ি, 01765804949, 037162526

নৈসর্গিক খাগড়াছড়ি পার্বত্য জেলায় একটি অনন্য অভিজ্ঞতার জন্য, এই হোটেলগুলি বিভিন্ন পছন্দ অনুসারে বিভিন্ন বিকল্পের সাথে আরামদায়ক থাকার ব্যবস্থা করে।