নদীর পানিতে নিমজ্জিত কলাপাড়ার লঞ্চঘাটের পল্টন

প্রকাশিত: ৩:৩৪ অপরাহ্ণ, মে ১৮, ২০১৮ | আপডেট: ৩:৩৪:অপরাহ্ণ, মে ১৮, ২০১৮
নদীর পানিতে নিমজ্জিত কলাপাড়ার লঞ্চঘাটের পল্টন

কলাপাড়ায় লঞ্চ ঘাটের পল্টনের তলদেশ ছিদ্র হয়ে নদীর পানি প্রবেশ করে নিমজ্জিত হয়েছে। বেশ কয়েক দিন আগে আন্ধারমনিক নদীর লোনা পানিতে বি আই ডব্লিউ টি এর পল্টনটি ছিদ্র হয় যায়। এটি পুরোপুরি তলিয়ে থাকায় কার্গো ও লঞ্চ ভিরতে নদীতে ভাটার জন্য অপেক্ষা করতে হয়। প্রতিদিন দুইদফা অস্বাভাবিক জোয়ারের পানি পল্টনটি ডুবে যাওয়াতে সকল ধরনের নৌ-যান থেকে যাত্রী ও মালামাল সময় মত ওঠানামা করাতে পারছেনা। এর ফলে সংশ্লিষ্ট শ্রমিক, যাত্রী ও স্থানীয় ব্যবসায়িরা পড়েছে বিপাকে।

স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, প্রতি সপ্তাহেই পৌর শহরের ব্যবসায়িদের মালামালবাহী কার্গো জাহাজ এ পণ্টনে ভিড়ে। দুই এক মাস আগেও শ্রমিকরা পণ্য খালাসের জন্য ব্যস্ত সময় পার করতো। কিন্তু এ পল্টনটি লোনা পানিতে ডুবে যাওয়ায় শ্রমিকরা পন্য খালাসের জন্য নদীর ভাটার অপেক্ষা করতে হয়। পল্টনটি সংস্কার কিংবা নতুন পল্টন স্থাপনের জন্য বি আই ডব্লিউ টি এর কতৃপক্ষের সু-দৃষ্টি কামনা করছে স্থানীয় ব্যাবসায়ি সহ শ্রমিকরা।

শ্রমিক সরদার সোবাহান হাওলাদার জানান, পল্টনে কার্গো ও লঞ্চ ভিরতে পারছেনা। পন্যবাহী কার্গো পল্টুনে ভিরানোর জন্য নদীতে ভাটার অপেক্ষা করতে হয়। এছাড়া কার্গো থেকে ব্যবসায়িদের মালামাল মাথায় করে খুব ঝুঁকি নিয়ে তীরে উঠাতে হচ্ছে।
লঞ্চঘাট সংলগ্ন ব্যবসায়ী পরান চন্দ্র বিশ্বাস জানান, এক সময় ঢাকাসহ দেশের বিভিন্ন স্থান থেকে লঞ্চ ও মালামালবাহী জাহাজ এ টার্মিনালে ভিড়তো। তখন ছিলো লঞ্চঘাটটি জমজমাট। এখন ঢাকা থেকে দোতালা লঞ্চ না আসলেও স্থানীয় ব্যবসায়িদের মালামাল পরিবহনের জন্য প্রতি সপ্তাহে ঘাটে কার্গো পল্টনে ভিড়ায়। বেশ কিছু দিন ধরে পল্টনটি নদীর পনিতে তলিয়ে থাকায় ছোট খাট লঞ্চ, ট্রলারসহ কার্গো ভিড়তে পারছেনা।

ঘাট ইজারদার মো.গোলাম রব্বানী শামিম জানান, এ বিষয়ে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষকে লিখিতভাবে জানানো হয়েছে।
পটুয়াখালীর নদী বন্দরের সহকারি পরিচালক (নৌ-পরিবহন) খাজা সাদিকুর রহমান জানান, পল্টনটি সরোজমিনে পরিদর্শন করে দেখেছি। আশা করি এই মাসে নতুন পল্টন স্থাপন করা হবে বলে তিনি জানিয়েছেন।