বীরগঞ্জে অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদ অভিযান

রংপুর ব্যুরো

প্রকাশিত: ২:৫৪ অপরাহ্ণ, নভেম্বর ১১, ২০১৭ | আপডেট: ২:৫৪:অপরাহ্ণ, নভেম্বর ১১, ২০১৭

দিনাজপুরের বীরগঞ্জ উপজেলা প্রশাসন ও পৌরসভার উদ্যোগে মহাসড়কের দুই ধারে অবৈধভাবে গড়ে ওঠা স্থাপনা উচ্ছেদ অভিযান শুরু।
বীরগঞ্জ পৌর শহরের জেলখানা মোড় হতে ফিসারী এলাকা পযন্ত ১০ নভেম্বর শুক্রবার সকাল হতে বিকাল ৫টা পযর্ন্ত ঢাকা-পঞ্চগড় মহাসড়কের দুই ধারে অবৈধভাবে গড়ে ওঠা স্থাপনাগুলি উপজেলা প্রশাসনের নির্বাহী অফিসার ও নির্বাহী ম্যাজিষ্টেট মোহাম্মদ আলম হোসেনের নেতৃত্বে উচ্ছেদ অভিযান চলে। এ সময় উপস্থিত ছিলেন বীরগঞ্জ থানার ওসি তদন্ত মসলেহুল গনী, পৌর সচিব আবু হানিফ সরদার, কাউন্সিলর আব্দুল বারেক, কাউন্সিলর আহম্মেদ আলী, কাউন্সিলর মুক্তার হোসেন, কাউন্সিলর মেহেদী হাসান, কাউন্সিলর মামুন, কাউন্সিলর তাইজুদ্দিন সহ সড়ক ও জনপদ, উপজেলা ও পৌরসভার কর্মকর্তা-কর্মচারীরা। এ সময় টিনশেড দিয়ে তৈরি স্থাপনাগুলো অনেকে নিজেরাই সরিয়ে নিয়েছেন। খাবারের হোটেল, চা স্টল, মুদি দোকান, যাত্রী ছাউনিসহ প্রায় দুই শতাধিক অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদ করা করা হয়।

পৌর সচিব আবু হানিফ সরদার জানায়, দীর্ঘ দিন থেকে গড়ে উঠা অবৈধ স্থাপনায় যানজটের সৃষ্টি হতো। ভোগান্তিতে পড়তে হতো পথচারীদের। রাস্তার পরিধি বাড়াতে ও ড্রেন নির্মানের জন্য অবৈধভাবে গড়ে ওঠা স্থাপনা গুলো উচ্ছেদ করা হয়েছে। নিয়মিত উচ্ছেদের অংশ হিসেবে পূর্বেই তাদেও জানানোর পরেও তারা সওে না যাওয়ায় এ অবৈধ স্থাপনাগুলো উচ্ছেদ করা হয়।
উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোহাম্মদ আলম হোসেন জানায়, মহাসড়কে চার লাইনের রাস্তা নির্মানের জন্য ও আধুনিক শহর গড়ার স্বার্থে রাস্তার ধারে গড়ে ওঠা অবৈধ স্থাপনা গুলো সরকার উচ্ছেদের উদ্যোগ নেয়। তারই ধারা বাহিকতায় এ উচ্ছেদ আভিযান চলে। এতে যানবাহন ও জানসাধারণ সুষ্ঠুভাবে চলাচল করতে পারবে। পরবর্তীতে যেন আর অবৈধ স্থাপনা গড়ে উঠতে না পারে এজন্য নিয়মিত অভিযান অব্যাহত থাকবে বলেও জানান তিনি।

এ ব্যপারে সুধি মহল উচ্ছেদ অভিযানকে সাধুবাদ জানিয়ে বলেন, স্থাপনাগুলো দখলমুক্ত হওয়ায় স্থানীয় জনসাধারণের মধ্যে এক ধরনের স্বস্তি ফিরে এসেছে। কিছু প্রভাবশালী ব্যাক্তি দীর্ঘদিন থেকে মহাসড়কের ২ ধারের জায়গাগুলো দখল করে মোটা অংকের টাকার বিনিময়ে দোকান করার জন্য বিক্রয় বা ভাড়া দিয়েছিল। উচ্ছেদের পর আবার যেন ওই মহল জায়গা দখল করতে না পারে এজন্য কর্তৃপক্ষের নজর দেওয়ার অনুরোধ করেছেন।

Print Friendly, PDF & Email