বাংলাকে দাপ্তরিক ভাষা করার দাবি জাতিসংঘ সদরদপ্তরে

প্রকাশিত: ৩:০৭ পূর্বাহ্ণ, ফেব্রুয়ারি ২২, ২০১৮ | আপডেট: ৩:১৭:পূর্বাহ্ণ, ফেব্রুয়ারি ২৪, ২০১৮
বাংলাকে দাপ্তরিক ভাষা করার দাবি জাতিসংঘ সদরদপ্তরে
স্থানীয় সময় বুধবার এ উপলক্ষে জাতিসংঘ সদর দপ্তর, ইউনেস্কোর নিউ ইয়র্ক কার্যালয়, নিউ ইয়র্ক সিটি মেয়র অফিস ও জাতিসংঘে বাংলাদেশ স্থায়ী মিশনসহ কলম্বিয়া, ফিজি ও তানজানিয়া মিশনের সম্মিলিত উদ্যোগে জাতিসংঘ সদর দপ্তরের কনফারেন্স রুমে সভার আয়োজন করা হয়।

আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস উপলক্ষে ইউনেস্কোর এবারের প্রতিপাদ্য ‘ভাষাগত বৈচিত্র এবং বহুভাষাবাদ: স্থায়িত্ব ও শান্তির মূল ভিত্তি’ উল্লেখ করে স্থায়ী প্রতিনিধি বলেন, “টেকসই শান্তি ও এজেন্ডা ২০৩০ বাস্তবায়নের সাথে এটি ঘনিষ্টভাবে সম্পর্কিত।”

আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস উপলক্ষে ইউনেস্কোর মহাপরিচালক ও নিউ ইয়র্ক সিটির মেয়রের বাণী অনুষ্ঠানটিতে পাঠ করা হয়। অনুষ্ঠানের শুরুতে ১৯৫২ সালের ভাষা শহীদদের স্মরণে এক মিনিট নিরবতা পালন করা হয়। এছাড়া ২১ ফেব্রুয়ারি ও আন্তর্জাতিক মাতৃভাষার উপর রচিত একটি প্রামাণ্য ভিডিও অনুষ্ঠানটিতে পরিবেশন করা হয়।

এ প্রসঙ্গে ফারুক খান বলেন, “প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ইতোমধ্যে বাংলাকে জাতিসংঘের অন্যতম দাপ্তরিক ভাষা হিসেবে স্বীকৃতি প্রদানের জন্য প্রস্তাবনা পেশ করেছেন।”

 বাংলাকে জাতিসংঘের দাপ্তরিক ভাষা হিসেবে স্বীকৃতি দেওয়ার জন্য প্রধানমন্ত্রীর এই প্রস্তাবনা বিবেচনায় আনতে তিনি উপস্থিত জাতিসংঘের উর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের দৃষ্টি আকর্ষণ করেন।

আলোচনা পর্বে আরো অংশ নেন জাতিসংঘে কলম্বিয়ার স্থায়ী প্রতিনিধি মারিয়া ইম্মা মেহিয়া ভেলেজ, তানজানিয়ার স্থায়ী প্রতিনিধি মডেস্ট জে. মিরো, ফিজির চার্জ দ্যা অ্যাফেয়ার্স লুকে দাউনি ভালু, জাতিসংঘের জেনারেল অ্যাসেম্বলি ও কনফারেন্স ম্যানেজমেন্ট বিভাগের প্রধান আন্ডার সেক্রেটারি জেনারেল ক্যাথরাইন পোলার্ড ও ডিপার্টমেন্ট অব পাবলিক ইনফরমেশন ও গ্লোবাল কমিউনিকেশনের প্রধান আন্ডার সেক্রেটারি জেনারেল অ্যালিসন স্মেল।