বাকেরগঞ্জের মাদক সম্রাট জাফর এখন নলছিটি

জি এম নিউজ জি এম নিউজ

বাংলার প্রতিচ্ছবি

প্রকাশিত: ৮:২৮ অপরাহ্ণ, ফেব্রুয়ারি ১৩, ২০১৮ | আপডেট: ৮:২৮:অপরাহ্ণ, ফেব্রুয়ারি ১৩, ২০১৮
বাকেরগঞ্জের মাদক সম্রাট জাফর এখন নলছিটি

বাকেরগঞ্জ প্রতিনিধি
বাকেরগঞ্জের কলসকাঠী ইউনিয়নের ঢাপরকাঠী গ্রামের মৃত. মো. বারেক ডিলারের পুত্র জাফর ওরফে ইয়াবা সম্রাট জাফর ও তার দুই সহযোগী ইয়াবা ব্যবসায়ী এখন নলছিটিতে প্রশাসনের চোখকে ফাঁকি দিয়ে অভিণব কৌশলে মাদক পাচার করে বেড়াচ্ছে। একটি সূত্রে জানায়, ঝালকাঠী জেলার নলছিটি থানার দপদপিয়া ইউনিয়নের জুরকাঠী গ্রামের মৃত: মো. কদা মীরের পুত্র মো. হারুন মীর ও মৃত: মো. ফুল শরীফের পুত্র মো. লিটন শরীফ দীর্ঘদিন যাবৎ ইয়াবা জাফরের সাথে মিলে ইয়াবা ব্যবসা পরিচালনা করে আসছে। সূত্রে আরও জানায়, হারুন ও লিটন জুরকাঠী বাজারে ব্যবসার আড়ালে ভাড়া চালিত মোটর সাইকেল যোগে কোন এক মাধ্যমে বরিশাল থেকে ইয়াবা ক্রয় করে শিমুলতলা, কাঠেরঘর, বুড়িরহাট, দপদপিয়া ও নলছিটি থানার বিভিন্ন স্থানে পাচার করে। হারুন ও লিটন রাতারাতি “আগুল ফুলে কলাগাছ” হয়েছে। তাদের মাদক পাচারের ফলে যুব সমাজ দিন দিন ধংসে পথে চলে যাচ্ছে। এলাকার লোকজন হারুন ও লিটনকে বাধা দিলে তাদের হামলা-মামলার ভয়-ভীতি দেখায়। জাফর মাদক ব্যবসা ছাড়াও তার বিরুদ্ধে ভুয়া কাগজপত্রে তৈরী করে জমি বিক্রয় ও প্রতারণা করে অর্থ হাতিয়ে নেয়া অভিযোগও পাওয়া গেছে। অভিযোগ সূত্রে জানা যায়, ইয়াবা জাফর তার সহযোগীদের নিয়ে মূল দলিলের বিপরিতে ডিগ্রি বা বাটোয়ারার জাল কাগজ তৈরী করে জমি কেনা-বেচার করছে। তথ্যানুসন্ধানে জানা যায়, উপজেলা রঙ্গশ্রীর আউলিয়াপুর গ্রামের মৃত: গোলাম আলী হাওলাদারের ছেলে মো. মজিদ হাওলাদার একই এলাকার মো. আফসের শিকদারের পুত্র কবির শিকদার, মো. আহম্মেদ বিশ্বাসের পুত্র মোতালেব বিশ্বাস, কাসেম মৃধার পুত্র মাসুদ আলম মৃধা, আ. মালেক হাওলাদার ও আইয়ুব আলী মৃধারকে প্রলোভন দেখিয়ে ভূয়া কাগজপত্র দিয়ে বাকেরগঞ্জের সাব-রেজিষ্টার অফিসে গিয়ে মালিক সাজিয়ে জমি বিক্রি এবং জাল কাগজপত্রকে উৎকোচ বানিজ্যে’র ফলে সঠিক কাগজপত্রে পরিগনিত করেছে। ভুক্তভোগী পরিবারগুলো বলছে, ইয়াবা জাফর, জুরকাঠী গ্রামের হারুন ও লিটনের তাড়নোয় ভিটে-মাটি ছাড়ার পথে এরা যুব সমাজটাকে ধংস করে দিয়েছে। আমাদের ছেলে-মেয়েদের স্কুলে পাঠিয়ে আতঙ্কে থাকতে হয়। এ প্রসঙ্গে জাফর, হারুন ও লিটনের সাথে যোগাযোগের চেষ্টা করা হলে তাদেরকে পাওয়া যায়নি। এ ব্যাপারে সচেতন মহল ও ভুক্তভোগিরা প্রশাসনের হস্তক্ষেপ কামনা করছে।