মধুর হোক এ ভালবাসা

জি এম নিউজ জি এম নিউজ

বাংলার প্রতিচ্ছবি

প্রকাশিত: ৭:৪৯ পূর্বাহ্ণ, ফেব্রুয়ারি ৩, ২০১৮ | আপডেট: ৭:৪৯:পূর্বাহ্ণ, ফেব্রুয়ারি ৩, ২০১৮
মধুর হোক এ ভালবাসা

একটু খাইয়ে দেওনা।
-অাজাইরা ঢং ভাল লাগেনা।
-এটা ঢং এর কি হল? অামার কি ইচ্ছে হতে পারেনা?
-তুমি ছোট বাচ্চা নও যে তোমাকে মুখে তুলে
খাওয়াব।
.
মেয়েটি অার কিছুই বলেনা। কারন এবারই প্রথম নয়।
অার সে এতদিনে মেনে নিতে বাধ্য হয়েছে সব
স্বামী রোমান্টিক হয়না।
যখন মেয়েটি গভীর রাতে ঘুম ভেঙ্গে বলে,
“অামার খুব ভয় করছে, তোমার বুকে একটু মাথা রাখি।”
উত্তরে মেয়েটির স্বামী বলে, “রাত দুপুরে ঢং
ভাল লাগেনা। ভয় পেলে বাতি জ্বালিয়ে ঘুমাও।”
কখনো যদি কোথাও ঘুরতে যেতে বলে।
উত্তরে স্বামী বলে, “তুমি বাচ্চা নও যে, হাতের
অাঙ্গুলে ধরে তোমাকে চিড়িয়াখানায় ঘুরতে নিয়ে
পশুপাখি দেখাব।”
মেয়েটি অভিমানে বালিশে মুখ গুজে কাঁদে।
.Photo
ছেলেটি একবার চিন্তা করেনা, সে যখন সারাদিন
কাজে থাকে তখনও মেয়েটি একা বাড়িতে। তারই বাবা
মায়ের খেদমতে নিয়োজিত। ছেলেটি যখন
কাজের শেষে বন্ধুদের অাড্ডায় গরম চায়ে চুমুক
দেয়, তখন মেয়েটি রান্নাঘরে গরম পাতিল নামাতে
গিয়ে হাতে ফোসকা পড়ে। দিন শেষে রাতে
যখন ছেলেটি বাড়ি ফিরে তখন তৃপ্তি নিয়ে খাবার খায়।
জিজ্ঞেস করেনা সারাদিন কেমন কাটল? খাবার তৈরীর
পিছনে কোন কষ্ট অাছে কিনা। ফোসকা পড়া হাতটি
কাছে নিয়ে একটিবার মিছে মিছে ফুঁ দিয়েও বলেনা,
“জাদুর পরশ দিয়ে দিছি, ভাল হয়ে যাবে।”
ছেলেটি জানেনা এখানেও কত ভালবাসা লুকিয়ে
অাছে।
.
অনেক ছেলেরাই জানেনা তাদের স্ত্রী এমন
অল্প স্বল্প ভালবাসার কাঙ্গাল। দিনের পর দিন, রাতের
পর রাত মনের মনিকোঠায় স্বপ্ন সাজায় তাকে এমন
করে একটু ভালবাসবে।
দিন যায়, রাত পেরিয়ে ভোর হয়। স্বপ্নগুলো
বুকের ভিতর ধুকরে ধুকরে অার্তনাদ করে কাঁদে।
.
অনেক ছেলেই জানেনা এমন অল্প স্বল্প
ভালবাসার অভাবেও মেয়েরা পরকীয়ায় জড়াতে
পারে।
হে স্বামী, তুমি যখন কাজ শেষে বাড়ি ফিরে খাওয়ার
পরেই নাক ডেকে ঘুমাও। বউকে মিষ্টি করে
দুটো কথাও বলোনা। সেখানে কেউ যদি তােক
ভালবাসার গল্প শুনায়, মেয়েটি তার প্রেমে পড়বে
নিশ্চিত।
.
পরকীয়ার অনেক কারনের মধ্যে সবচেয়ে বড়
কারন মনের অমিল।
শেষ অবধি ডিভোর্স পর্যন্ত গড়াতে পারে। অামি
মেনে নিচ্ছি পুরুষের দ্বায়িত্ব অনেক। অনেক
প্রতিকূল অবস্থা তাকে মোকাবেলা করতে হয়। সব
সময় মনে রোমান্টিকতা অাসেনা।
কিন্তু দুই মিনিটের মিষ্টি কথায় যদি একটি মেয়ে ভাল
থাকে, থাকুকনা। অার বউয়ের কাছে শেয়ার করলে
অবশ্যই সে বুঝবে। তোমাকে অারো সাহস
জোগাবে খারাপ পরিস্থিতী কাটিয়ে উঠার জন্য।
Photo
অামাদের বাড়ির কাছে এক নেশাখোর ছিল। সারাদিন
নেশা করত অার বউকে ধরে ধরে মারত। সারা এলাকার
মানুষ জড়ো হয়ে যেত। কত মানুষ বুঝাইতো
বউটিকে, ” দিনের পর দিন নেশাখোরের মার খাওয়ার
চেয়ে তাকে ছেড়ে চলে যা। নতুন করে
বাঁচতে শিখ। ”
বউটি তখন উত্তর দিত, “তোমরা শুধু অামার স্বামীর
মারটাই দেখো, ওর ভিতরের ভালবাসাটা অামি দেখি।”
একটি ভালবাসার নিদর্শন দেখার সৌভাগ্য হয়েছিল অামার।
একদিন তাদের বাড়ি গিয়েছিলাম নারকেল কিনতে।
তাদের গাছের নারকেল বিক্রি করত।
গিয়ে দেখি বউটির জ্বর, অার নেশাখোর স্বামী
বালতি দিয়ে পানি এনে মগ দিয়ে বউয়ের মাথায় পানি
ঢালে।
সবচেয়ে খুশির খবর হল, সে নেশাখোরটি এখন
অার নেশা করেনা। একটা মুদির দোকান চালায়। তাদের
এখন তিন ছেলে মেয়ে।
.
তিনবেলা থেকে একবেলা কম খেলে কষ্ট
পাবেনা। কিন্তু অবহেলা মানুষ সহ্য করতে পারেনা।
সর্বশেষে কথা একটাই, প্রিয়জনকে সময় দিন। শত
ব্যাস্ততায় স্ত্রীকে একটু সময় দিন। সেতো
অাপনার অর্ধাঙ্গিনী, সারা জীবনের সঙ্গী। ভালবাসার
সূতোয় সারাজীবন বেঁধে রাখুন বন্ধনটিকে।