বিএনপি আদালতকে হুমকি দিচ্ছে : সেতুমন্ত্রী

জি এম নিউজ জি এম নিউজ

বাংলার প্রতিচ্ছবি

প্রকাশিত: ৩:০৭ অপরাহ্ণ, জানুয়ারি ২৭, ২০১৮ | আপডেট: ৩:০৭:অপরাহ্ণ, জানুয়ারি ২৭, ২০১৮

জিয়া অরফানেজ ট্রাস্টে দুর্নীতির অভিযোগে খালেদা জিয়ার বিরুদ্ধে দায়ের করা মামলার রায়কে ঘিরে বিএনপি আদালতকে হুমকি দিচ্ছে বলে মন্তব্য করেছেন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের।

আজ শনিবার সকালে সাভারে এক অনুষ্ঠানে সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী বলেন, ‘বিএনপি রায় নিজেদের পক্ষে আনতে আদালতকে প্রভাবিত করার চেষ্টা করছে। বিএনপি নেতারা রায়কে ঘিরে যেভাবে আগাম মন্তব্য করছেন, হুংকার দিচ্ছেন, তাতে মনে হচ্ছে, রায় কী হবে তা তাঁরা জেনেই গেছেন।’

দুপুরে সাভারের হেমায়েতপুরে ২৫৫ কোটি টাকা ব্যয়ে হেমায়েতপুর-সিঙ্গাইর-মানিকগঞ্জ আঞ্চলিক সড়কের সম্প্রসারণ প্রকল্পের উদ্বোধন করতে এসে সাংবাদিকদের সঙ্গে আলাপকালে এসব কথা বলেন ওবায়দুল কাদের।

জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট দুর্নীতি মামলার বিচারকাজ শেষ হয়েছে। আদালত আগামী ৮ ফেব্রুয়ারি রায়ের দিন ঘোষণা করেছেন। গত বৃহস্পতিবার খালেদা জিয়ার উপস্থিতিতে রাজধানীর বকশীবাজারে স্থাপিত বিশেষ জজ আদালতের জজ ড. আখতারুজ্জামান এই দিন দেন।

এ মামলায় খালেদা জিয়া ও বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান তারেক রহমান ছাড়া অন্য আসামিরা হলেন—মাগুরার সাবেক সংসদ সদস্য (এমপি) কাজী সালিমুল হক কামাল, ব্যবসায়ী শরফুদ্দিন আহমেদ, প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের সাবেক সচিব কামাল উদ্দিন সিদ্দিকী ও সাবেক রাষ্ট্রপতি জিয়াউর রহমানের ভাগ্নে মমিনুর রহমান।

রায়ের দিন ঘোষণার পর থেকেই আওয়ামী লীগ ও বিএনপির নেতারা এ নিয়ে পাল্টাপাল্টি হুঁশিয়ারি দিয়ে যাচ্ছেন, যার ফলে ধীরে ধীরে উত্তপ্ত হয়ে উঠছে রাজনৈতিক অঙ্গন।

খালেদা জিয়ার মামলার রায়কে কেন্দ্র করে কোনো ধরনের বিশৃঙ্খলা সহ্য করা হবে না বলে গতকাল শুক্রবার সতর্ক করে দিয়েছেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খাঁন কামাল।

এর আগে বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য গয়েশ্বর চন্দ্র রায় বলেছেন, দলের চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার মামলায় ‘নেতিবাচক’ কোনো রায় হলে তার পরিণতি ‘ভয়াবহ’ হবে।

জবাবে আজ আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক বলেন, ‘এভাবে হুমকি-ধমকি দিয়ে কোনো লাভ নেই। এই হুমকি সরাসরি আদালতের বিরুদ্ধে। এর মাধ্যমে তাঁরা প্রমাণ করেছেন যে, বিএনপির হাতে দেশ যেমন নিরাপদ নয়, তেমনি দেশের গণতন্ত্র, আইনের শাসন এমনকি স্বাধীন বিচার ব্যবস্থাও নিরাপদ নয়।’

মন্ত্রী বলেন, বর্তমান সরকারের আমলে বিচার বিভাগ স্বচ্ছ ও নিরপেক্ষ বলেই আওয়ামী লীগের সংসদ সদস্যদের অনেকে আজ কারাগারে।

বিএনপির সমালোচনা করে ওবায়দুল কাদের বলেন, নির্বাচনের আগেই বিএনপি নির্বাচনে জিততে চায়। ২০১৩-১৪ সালের মত নির্বাচনের নামে বিএনপি যদি জ্বালাও-পোড়াও করতে চায় তাহলে জনগণ তাদের প্রতিহত করবে।

আওয়ামী লীগে কোনো অনুপ্রবেশকারী নেই জানিয়ে সেতুমন্ত্রী বলেন, আগামী রাষ্ট্রপতি নির্বাচনে দল ও দেশের কাছে যে ব্যক্তি গ্রহণযোগ্য মনে হবে তাঁকেই রাষ্ট্রপতি নির্বাচনে মনোনয়ন দেওয়া হবে। সংসদ নির্বাচনের জন্যও তিন মাস পর পর জরিপ হচ্ছে। যে ব্যক্তি জরিপে এগিয়ে থাকবেন দল থেকে তাঁকেই মনোনয়ন দেওয়া হবে।

এ সময় অন্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন স্থানীয় সংসদ সদস্য ডা. এনামুর রহমান, সাভার উপজেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মঞ্জুরুল আলম রাজীব, তেঁতুলঝোড়া ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান ফখরুল আলম সমরসহ সড়ক ও জনপদ বিভাগের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা। এনটিভি