খণ্ডিত শ্রমিকের লাশ পুঁতে তড়িঘড়ি করে ধান চাষ!

জি এম নিউজ জি এম নিউজ

বাংলার প্রতিচ্ছবি

প্রকাশিত: ১১:৪১ অপরাহ্ণ, জানুয়ারি ২৬, ২০১৮ | আপডেট: ১১:৪১:অপরাহ্ণ, জানুয়ারি ২৬, ২০১৮

শেরপুরের নালিতাবাড়ীতে এক নারী চাতাল শ্রমিকের খণ্ডিত লাশ মাটিতে পুঁতে তার ওপর লাগানো হচ্ছিল বোরো ধান! এই নারী শ্রমিক প্রায় আটদিন আগে নিখোঁজ হন। পরে সেই চাতাল শ্রমিকের বিচ্ছিন্ন মাথা ও হাত-পা বিহীন লাশ মাটির নিচ থেকে উদ্ধার করা হয়েছে।

নালিতাবাড়ি উপজেলার রাজনগর ইউনিয়নের সুরতখাল সংলগ্ন জমিতে মাটি খুঁড়ে লাশটি উদ্ধার করা হয়। নালিতাবাড়ী থানার থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা সারোয়ার হোসেন বলেন, ‘নিহত নারী শ্রমিকের নাম রোকসানা বেগম (২৫)। তিনি শেরপুরের ঝিনাইগাতী উপজেলার বনগাঁও পূর্বপাড়া গ্রামের সিরাজ আলীর মেয়ে।’

পুলিশ কর্মকর্তা সারোয়ার বলেন, ‘শুক্রবার সকালে একটি আবাদী জমিতে তড়িঘড়ি করে বোরো ধান রোপন করা হলে এলাকাবাসীর সন্দেহ হয়। পরে পুলিশে খবর দিলে তল্লাশি চালিয়ে এক স্থান থেকে পোঁতা অবস্থায় রোকসানার খণ্ডিত মাথা এবং আরেক স্থান থেকে দেহের অংশবিশেষ পাওয়া যায়। তবে তার হাত ও পা দেহের সঙ্গে পাওয়া যায়নি।’

জানা গেছে, ‘একই গ্রামের আব্দুল খালেকের ছেলে মাসুদ ও রোকসানা রাজনগর মজিদের একটি চাতালে এক সঙ্গে কাজ করতেন। পরে চাঁদগাওয়ে চাতালে কাজ পাইয়ে দেয়ার কথা বলে ১৭ জানুয়ারি রোকসানাকে সেখানে নিয়ে যায় মাসুদ। পরদিন রোকসানার মা জেলেহা খাতুন ওই গ্রামে গিয়ে তার মেয়েকে খুঁজে পাননি।

ওসি বলেন, ‘বৃহস্পতিবার সকালে সুরতখালের পাশের একটি জমিতে এক নারীর লাশ দেখে স্থানীয়রা ইউপি চেয়ারম্যান ফারুক আহমেদকে জানান। পরে পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে কিছুই পায়নি। এরপর শুক্রবার সকালে মাসুদের মামা মোতালেব তার জমিতে হঠাৎ করে বোরো ধান রোপন করতে শুরু করেন। এতে এলাকাবাসী সন্দেহ করে।’

তবে পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে জমির চাষ কাজে নিয়োজিতদের পায়নি। মাসুদও পলাতক। তবে রোকসানার মা তার মেয়ের লাশ সনাক্ত করেন। বর্তমানে পুলিশ লাশের সুতহাল তৈরি করতে ময়নাতদন্তের জন্য লাশ হাসপাতাল মর্গে পাঠিয়েছে।