ভাস্কর্য নির্মাণের পরিবর্তে বঙ্গবন্ধুর নামে আল্লাহর ৯৯ নাম খচিত ‘মুজিব মিনার’ নির্মাণের প্রস্তাব আলেমদের

প্রকাশিত: ২:৩৯ পূর্বাহ্ণ, ডিসেম্বর ৬, ২০২০ | আপডেট: ২:৩৯:পূর্বাহ্ণ, ডিসেম্বর ৬, ২০২০

-শনিবার (৫ ডিসেম্বর) রাজধানীর যাত্রাবাড়ী মাদ্রাসায় শীর্ষ আলেমদের বৈঠকের পর সাংবাদিকদের জানিয়েছেন বেফাকের ভারপ্রাপ্ত মহাসচিব মাওলানা মাহফুজুল হক।
ভাস্কর্য নির্মাণের পরিবর্তে বঙ্গবন্ধুর নামে আল্লাহর ৯৯ নাম খচিত ‘মুজিব মিনার’ নির্মাণ বা কোরআন-সুন্নাহসমর্থিত ‘উত্তম বিকল্প’ সন্ধানের প্রস্তাব দিয়েছেন আলেমরা।

-এ সময় বৈঠকে উপস্থিত ছিলেন হেফাজতে ইসলামের আমির জুনায়েদ বাবুনগরীর প্রতিনিধি হাটহাজারী মাদ্রাসার মুফতি জসীমুদ্দীন, হেফাজতের মহাসচিব নূর হোসাইন কাসেমীর প্রতিনিধি মাওলানা নাজমুল হাসান, পটিয়া মাদ্রাসার মহাপরিচালক আবদুল হালিম বুখারীর প্রতিনিধি মাওলানা আবু তাহের নদভী, মুফতি মুহাম্মদ ওয়াক্কাস, মুফতি রুহুল আমীন, নুরুল ইসলাম জিহাদি, আবদুল হামিদ (মধুপুরের পীর), আবদুল কুদ্দুস, আতাউল্লাহ হাফেজ্জি, মুফতি মনসুরুল হক, সাজিদুর রহমান, মাওলানা আবদুল মতিন বিন হুসাইন, মাওলানা মুসলেহ উদ্দীন, মুফতি সৈয়দ ফয়জুল করীম, মাওলানা উবায়দুর রহমান খান নদভী, মাওলানা মামুনুল হক প্রমুখ।

– ‘উত্তম বিকল্প’ সন্ধানের প্রস্তাবে আল্লাহর ৯৯ নামখচিত মুজিব মিনার তৈরির প্রস্তাব আলোচনায় এসেছে। পাঁচ দফা লিখিত প্রস্তাবের বাইরেও প্রস্তাব এসেছে যে এসব বিষয়ে বেফাকের সভাপতি মাহমুদুল হাসানের পক্ষ থেকে দ্রুত সময়ের মধ্যে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বরাবর পত্র দেওয়া হবে। এ ছাড়া ভাস্কর্যের বিষয়ে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাসহ সরকারের ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের সঙ্গে আলোচনায় বসতে চান তারা।

-বৈঠকে গৃহীত প্রস্তাবে বলা হয়েছে, মানব মূর্তি বা ভাস্কর্য যেকোনো উদ্দেশ্যে তৈরি করা ইসলামে কঠোরভাবে নিষিদ্ধ। কোনো মহৎ ব্যক্তি বা নেতাকে মূর্তি বা ভাস্কর্য স্থাপন করে শ্রদ্ধা জানানো শরিয়তসস্মত নয়। এতে মুসলিম মৃত ব্যক্তির আত্মার কষ্ট হয়। কারও প্রতি শ্রদ্ধা প্রদর্শন ও তার স্মৃতিকে জাগ্রত রাখতে মূর্তি বা ভাস্কর্য নির্মাণ না করে কোরআন-সুন্নাহ সমর্থিত কোনো উত্তম বিকল্প সন্ধান করাই যুক্তিযুক্ত।