চরফ্যাশনে ধর্ষন চেষ্টা মামলায় ব্যবসায়ীকে হয়রানি করায় সংবাদ সম্মেলন

প্রকাশিত: ১২:৫০ পূর্বাহ্ণ, ডিসেম্বর ১, ২০২০ | আপডেট: ১২:৫০:পূর্বাহ্ণ, ডিসেম্বর ১, ২০২০
চরশন (ভোলা) প্রতিনিধিঃ চরফ্যাসন উপজেলার জাহানপুর ইউনিয়নে চুক্তির পত্রের মাধ্যমে দেয়া পাওনা টাকা চাওয়া নিয়ে বিরোধের জের ধরে ওই ইউনিয়নের শ্রমিক লীগ সাধারণ সম্পাদক মৎস্য ব্যবসায়ী মো. হেলাল উদ্দিন চৌধুরীর বিরুদ্ধে ধর্ষণ চেষ্টা মামলা দিয়ে হয়রানির অভিযোগ উঠেছে।
সোমবার (৩০নভেম্বর) বিকেলে চরফ্যাসন প্রেসক্লাবে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে এমন অভিযোগ করেন  হেলাল উদ্দিন চৌধুরী।
হেলাল উদ্দিন চৌধুরী অভিযোগ করেন,২০১৮ সালে ইলিশের মৌসুমে তিনি জাহানপুর ৯নং ওয়ার্ডের জেলে হাসেম মাঝিকে ষ্ট্যাম্পে চুক্তির মাধ্যমে ১৩লাখ টাকা জেলে দাদন দেন। দুই বছর হয়ে গেলেও দাদনের ওই টাকা ফেরত না দেয়ায় হেলালের সঙ্গে হাসেম মাঝির বিরোধ চলমান আছে।
তিনি আরও বলেন এ বিরোধের জের ধরেই হাসেম মাঝি ও তার পরিবার পাওনা টাকা আত্মসাতের অশুভ উদ্দেশ্যে আমাকে মামলায় জড়ানোর হুমকি দিয়ে আসছিলেন। মামলায় জাড়ানোর হুমকির পরপরই গত ৯অক্টোবর শুক্রবার রাতে হাসেম মাঝির  জাহানপুরের বসত ঘরে ঢুকে তার স্ত্রীকে ধর্ষণ চেষ্টার অভিযোগ তোলেন।
অভিযোগ তোলার  প্রায় এক মাস পর এলাকার কিছু কুচক্রী মহলের প্ররোচনায় গত ১২ নভেম্বর  আমাকে আসামী করে তার স্ত্রীকে ধর্ষণ চেষ্টার অভিযোগ তুলে ভোলার নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনালে একটি কমপ্লেইন পিটিশন দায়ের করান। যার নং ৭২৮। বিজ্ঞ আদালত অভিযোগ তদন্তে শশীভূষণ থানার অফিসার ইনচার্জকে নির্দেশ প্রদান করেন।
সংবাদ সম্মেলনে  এমন হয়রানি মূলক মামলা প্রত্যাহারের দাবী জানিয়েছেন তিনি। শশীভূষণ থানার ওসি মো. রফিকুল ইসলাম জানান,তদন্ত শেষে আদালতে প্রতিবেদন দাখিল করা হবে।