মুক্তাগাছায় আওয়ামী লীগের পৃথক কর্মসূচী শহরে আতঙ্ক

জি এম নিউজ জি এম নিউজ

বাংলার প্রতিচ্ছবি

প্রকাশিত: ১১:৩৪ অপরাহ্ণ, নভেম্বর ২, ২০১৭ | আপডেট: ১১:৩৪:অপরাহ্ণ, নভেম্বর ২, ২০১৭
মুক্তাগাছায় আওয়ামী লীগের পৃথক কর্মসূচী শহরে আতঙ্ক

শুক্রবার জেল হত্যা দিবসকে কেন্দ্র করে মুক্তাগাছায় উপজেলা আওয়ামীলীগ ও শহর আওয়ামীলীগ পৃথক পৃথক সভা আহ্বান করায় নেতা-কর্মীদের মধ্যে উত্তেজনা ছড়িয়ে পড়েছে। দুই গ্রুপই সভা সফল করতে মাইকিংয়ের মাধ্যমে ব্যাপক প্রচারণা চালিয়ে যাচ্ছে। শ্লোগানে-শ্লোগানে চলছে মিছিল। শহরবাসী আতঙ্কিত। প্রশাসনের রয়েছে সতর্ক দৃষ্টি।

উপজেলা আওয়ামীলীগ স্থানীয় ডাক বাংলোর সামনে বিকেল ৩টায় সভা আহবান করে ব্যাপক প্রচারণা চালিয়ে যাচ্ছে। অপর দিকে শহর আওয়ামীলীগ একই সময়ে ২শ’ গজের মধ্যে পৌর সাধারণ পাঠাগার মিলনায়তনে সভা ডেকে মিছিল মাইকিংয়ের মাধ্যমে প্রচারণা অব্যাহত রেখেছে। এতে করে উভয় গ্রুপের নেতা-কর্মীদের মধ্যে উত্তেজনা বিরাজমান। সহিংসতার আশংকায় শহরবাসীরাও আতঙ্কিত।

সভা সফল করতে বৃহষ্পতিবার সন্ধ্যায় শহর আওয়ামীলীগের উদ্যোগে একটি বিরাট বিক্ষোভ মিছিল শহর প্রদক্ষিণ করে। এতে নেতৃত্ব দেন শহর আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক এবিএম জহিরুল হক। মিছিলটি আটানী বাজার থেকে শুরু হয়ে শহরের প্রধান প্রধান রাস্তা প্রদক্ষিণ করে।

উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক বিল্লাল হোসেন সরকার নতুন বার্তাকে বলেন, ‘শহর কমিটির কোন বৈধতা নেই, তারা উপজেলা আওয়ামী লীগকে চ্যালেঞ্জ করে পৃথক সভা আহবান করতে পারে না, তাদের সভা সংবিধান বিরোধী।’

মুক্তাগাছা শহর আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক এবিএম জহিরুল হক নতুন বার্তাকে বলেন, ‘উপজেলা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদকের দাবী অযৌক্তিক। আমাদের কমিটি নির্বাচিত। তারা তাদের লুটপাটের ধারা অব্যাহত রাখতে মনগড়া মন্তব্য করে নেতাকর্মীদের মধ্যে বিভক্তি সৃষ্টি করছে। আমরা নিয়মতান্ত্রিক ভাবেই রাজনৈতিক কর্মকান্ড চালিয়ে যাচ্ছি।’

উপজেলা নির্বাহী অফিসার সুবর্ণা সরকার নতুন বার্তাকে বলেন, ‘যেহতু পৃথক পৃথক স্থানে সভা হচ্ছে তাই কোন রকম গন্ডগোল হওয়ার সম্ভাবনা দেখছি না।’

মুক্তাগাছা থানার ওসি আখতার মুর্শেদ সাংবাদিকদের বলেন, ‘সভাকে কেন্দ্র করে যাতে কোন অপ্রীতিকর ঘটনান সৃষ্টি না হয় তার জন্যে পুলিশ সদস্যরা সতর্ক থাকবে।’