‘যাচ্ছিলাম পরীক্ষা দিতে, চোখ খুলে দেখি হাসপাতালে’

জি এম নিউজ জি এম নিউজ

বাংলার প্রতিচ্ছবি

প্রকাশিত: ১১:৩০ অপরাহ্ণ, নভেম্বর ২, ২০১৭ | আপডেট: ১১:৩০:অপরাহ্ণ, নভেম্বর ২, ২০১৭
‘যাচ্ছিলাম পরীক্ষা দিতে, চোখ খুলে দেখি হাসপাতালে’

মুন্সীগঞ্জ সদর উপজেলার চরকেওয়ার ইউনিয়নের নলবুনিয়াকান্দি এলাকায় প্রতিপক্ষের দুই দফা হামলায় জেএসসি পরীক্ষার্থীসহ ১০ জন আহত হয়েছে। আজ বৃহস্পতিবার সকাল ৯টার দিকে এ ঘটনা ঘটে।

প্রথম দফায় মারামারি শেষে দ্বিতীয় দফায় জেএসসি পরীক্ষার্থীকে রিমা আক্তারকে (১৪) মারধর করে প্রতিপক্ষের লোকজন। হাসপাতালে ভর্তি থাকায় আজকের পরীক্ষা দিতে পারেনি সে।

এ ঘটনায় আহতদের মধ্যে রয়েছে নূর মোহাম্মদ (৩২), জহির (২৬), মালেক দেওয়ান (৫৭) ও রাসেল (২৪)। এদের জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। এদের মধ্যে নূর মোহাম্মদকে পরে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নেওয়া হয়।

স্থানীয় মিছির আলী জানান, আজ সকাল ৮টার দিকে লতিফ মোল্লা ও সাইদুর মোল্লার লোকজন দেশীয় অস্ত্র-সস্ত্র নিয়ে নূর মোহাম্মদের বাড়িতে হামলা চালিয়ে বাড়ির সবাইকে মারধর করে। নূর মোহাম্মদসহ তিনজনকে কুপিয়ে গুরুতর আহত করে। পরে স্থানীয় লোকদের সহয়তায় তাদের মুন্সীগঞ্জ জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। এর মধ্যে নূর মোহাম্মদের অবস্থা গুরুতর হলে তাঁকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়।

এদিকে সকাল ৯টার দিকে নূর মোহাম্মদের পক্ষের লতিফ দেওয়ানের মেয়ে রিমা আক্তার (১৪) জেএসসি পরীক্ষা দিতে বের হয়। তখন সাইদুর মোল্লার লোকজন রাস্তায় রিমাকে একা পেয়ে লাঠিসোঁটা দিয়ে গুরুতর জখম করে। রিমা অচেতন হয়ে মাটিতে লুটিয়ে পড়লে সন্ত্রাসীরা পালিয়ে যায়। স্থানীয় লোকজন রিমাকে মুন্সীগঞ্জ জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি করে।

এতে রিমা আক্তার জেএসসি বাংলা দ্বিতীয়পত্র পরীক্ষায় অংশগ্রহণ করতে পারেনি। আহত রিমা বলে, ‘সকালের দিকে মারামারি হয়েছিল আমাদের বাড়ি। আমি তো মারামারি করিনি। বাংলা দ্বিতীয়পত্র পরীক্ষা দিতে যাচ্ছিলাম পরীক্ষা কেন্দ্রে। পথে কিছু লোক মারধর করলে আমি মাটিতে পড়ে যাই। চোখ খুলে দেখি হাসপাতালে শুয়ে আছি।’

নূর মোহাম্মদের স্বজন হৃদয় জানান, গত ৩০ অক্টোবর সন্ধ্যা ৭টার দিকে লতিফ মোল্লার ভাগ্নির সঙ্গে শেরকান্দি এলাকার শাহাদাতের (প্রেমের সম্পর্ক) দেখা করার কথা ছিল। ওই দিন রাতে তাদের দুজনকে এক ঘরে আটকে রাখে গ্রামবাসী। পরে শাহাদাতকে মারধর করে লতিফ মোল্লার লোকজন। তারা বাধা দিলে তাদের সঙ্গে কথা কাটাকাটি হয় এবং ঘটনা ওই দিন শেষ হয়ে যায়। কিন্তু বৃহস্পতিবার লতিফ মোল্লা ও সাইদুর মোল্লাসহ তাদের বাড়িতে হামলা চালায়।

এ ব্যাপারে মুন্সীগঞ্জ সদর থানার উপপরিদর্শক (এসআই) সাচ্চু মিয়া জানায়, উভয় পক্ষের মধ্যে সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে। এ বিষয়ে এক পক্ষের অভিযোগ পেয়েছি। তদন্ত করে অপরাধীদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।