গাঁজা উদ্ধার করে বিক্রি করে দিল পুলিশ

প্রকাশিত: ৪:৩১ পূর্বাহ্ণ, অক্টোবর ২৩, ২০২০ | আপডেট: ৪:৩১:পূর্বাহ্ণ, অক্টোবর ২৩, ২০২০

কিশোরগঞ্জের ভৈরবে আ’সামিসহ মাদক উদ্ধার করে বি’ক্রির অভিযোগে এক এসআইসহ ২ পুলি’শ সদস্যকে লাইনে প্র’ত্যাহার করা হয়েছে।

বৃহস্পতি’বার (২২ অক্টোবর) দুপুরে কিশোরগঞ্জের পুলি’শ সুপার মো. মাশরুকুর রহ’মান খালেদ এক নির্দে’শে তাদেরকে পুলিশ লাইনে প্র’ত্যাহার করা হয়।

পুলিশ সু’পার মাশরুকুর রহমান খালেদ জানান, অ’ভিযোগের ভিত্তিতে দুইজনকে পুলিশ সদস্য’কে লাইনে প্রত্যাহার করা হয়েছে। সেদিন ডি’উটিতে থাকা আরও তিন পুলিশ’কে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য ডাকা হয়েছে। অভিযো’গের বিষয়টি তদন্ত করে তাদের বিরু’দ্ধে ব্যবস্থা নেয়া হবে।

তারা হলে’ন, ভৈরব থানার এসআই দেলুয়ার হো’সেন, গাড়িচালক কনস্টেবল মো. মামুন। এছা’ড়াওেএ ঘটনায় আরও তিন পুলিশকে তলব করেছেন পুলিশ’সুপার।

ক্লোজড করা দুই পুলিশ বিরুদ্ধে আনা অভি’যোগ থেকে জানা যায়, তারা গত বুধবার সকা’লে ঢাকা-সিলেট মহাসড়কের ভৈরব সড়ক সেতুর ন্যাটাল টোল’প্লাজা এলাকায় গাড়ি তল্লাশি করে এক মাদক ব্যব’সায়ীকে ৭ কেজি গাঁ’জাসহ ‘আটক করেন। এস’ময় ওইসব গাঁজা রেখে মা’দক ব্যবসায়ীকে ছেড়ে দে’য় পুলিশ সদস্যরা।

পরে ওই ব্যব’সায়ী অন্য একটি বাসে করে ওই স্থান ত্যা’গ করে। এরপর এস আই দে’লোয়ার ও গাড়িচালক মা’মুন তারা দুজন উদ্ধারকৃত গাঁ’জা গোপনে রায়পুরা এলাকায় নিয়ে বি’ক্রি করে দেন। মাদ’ক বিক্রির টাকা তারা ভাগাভাগি ক’রে নেন বলে অভিযোগ উঠে’ছে।

পুলিশ সু’স্টেবলকে তলব করেন তার কা’র্যালয়ে। তলব করা তিন কনস্টে’বল হলেন- আমিনুল ইসলাম, জা’মাল উদ্দিন ও রাজীবুল ইসলাম।

এদিকে, পুলি’শ সুপারের কার্যালয় থেকে নি’র্দেশ আসার পর দুই পুলিশ সদস্য বিকে’লে ভৈরব থানা থেকে ছাড়’পত্র নিয়ে পুলিশ লাই’নে যোগদান করেছে ব’লে জানা গেছে।