নারী পুলিশের সঙ্গে অনৈতিক সম্পর্কে জড়ানোর অভিযোগে ওসির বিরুদ্ধে তদন্ত শুরু

প্রকাশিত: ১:৪৩ পূর্বাহ্ণ, অক্টোবর ৭, ২০২০ | আপডেট: ১:৪৩:পূর্বাহ্ণ, অক্টোবর ৭, ২০২০

না’রী সহকর্মীর সঙ্গে অনৈ’তিক সম্প’র্কে জড়ানো’র অভিযো’গে ওসি আবু নাসের রায়হানের বিরু’দ্ধে তদন্ত শু’রু হয়েছে। মঙ্গ’লবার (৬ অক্টোবর) দুপু’রে  নীলফামারীর সৈ’য়দপুর সার্কেলে’র অতিরিক্ত পুলি’শ সুপারের কার্যা’লয়ে ভিকটি’মের জবান’বন্দি রেকর্ড করা হ’য়েছে। ওই ওসির বি’রুদ্ধে ভিক’টিমের অভি’যোগ, বিয়ের প্রলোভন দেখি’য়ে দিনের পর দি’ন তাকে ধ’র্ষণ করা হয়েছে।

অ’ভিযোগ অনুযায়ী জানা গে’ছে, ওই নারী পুলি’শ প্রশিক্ষণ শেষে বিগ’ত ২০১৫ সালের ১২ নভে’ম্বর পুলিশ কন’স্টেবল পদে নীলফা’মারী পুলিশ লাই’নে যোগদান করেন। এ’রপর থেকেই নীল’ফামারী রিজার্ভ অফি’স ইন্সপে’ক্টর (বর্তমানে বরিশাল ডিআই’জি অফিসে ওসি ত’দন্ত হিসেবে কর্ম’রত) আবু না’সের রায়হান প্রা’য়ই তাকে উত্য’ক্ত করতে’ন এবং কুপ্র’স্তাব দিতেন।

বি’ভিন্ন অজুহাতে ভিক’টিমকে বাড়ি’তে ডেকে নিয়ে অ’শ্লীল প’র্ণ ছবি দে’খিয়ে তার স’ঙ্গে শারীরি’ক সম্প’র্ক করার প্রস্তা’ব দিতেন আবু না’সের রায়হান। এরই এক পর্যা’য়ে ২০১৬ সাল থেকে বিয়ে’র প্রলো’ভন দেখিয়ে ভি’কটিমের ইচ্ছার বি’রুদ্ধে শারীরিক সম্প’র্ক গড়ে তো’লেন এবং তা’দের এ সম্প’র্কের কথা জা’নিয়ে দেওয়ার ভ’য় দেখিয়ে পূ’র্বের স্বামী’কে তালা’ক দিতে বা’ধ্য করেন। স্বামী’কে তালাক দেওয়া’র পরও দীর্ঘ’দিন বিয়ে না করা’য় চাপ দিলে এক’দিন হুজু’র প্রকৃতি’র একজন লো’ক ডেকে এনে বি’য়ে করেন। কিন্তু কা’জীর মাধ্যমে রেজি’স্ট্রি করার কথা ব’ললে আবু রায়হান বলেন, আম’রাতো আ’ল্লাহকে সাক্ষী রে’খে বিয়ে ক’রেছি, রেজি’স্ট্রির প্রয়ো’জন নে’ই। এভাবে বি’য়ের নামে দীর্ঘ’দিন থেকে ধর্ষ’ণ করে আসছিল।

বিষয়’টি জানতে পেরে ভিক’টিমের পরিবা’রের লোকজ’ন বিয়ে রেজি’স্ট্রি করার চা’প দিলে ওসি কা’লক্ষেপণ কর’তে থাকেন এবং উ’ল্টো তাদের শারী’রিক সম্পর্কের ভি’ডিও ফুটেজ সামা’জিক যোগা’যোগ মাধ্যমে ছড়িয়ে দেও’য়ার হুমকি দেন। পরে কৌ’শল করে ভিক’টিমকে লালম’নিরহাটের পাট’গ্রাম পুলিশ লাই’নে এবং নিজে বরি’শাল ডিআ’ইজি অফিসে বদলি হয়ে যা’ন।

এ পর্যা’য়ে ভিক’টিম প্রথমে বরি’শাল ডিআ’ইজি বরাবরে লিখিত অভিযোগ দাখিল করে’ন এবং নিজ জে’লা ঠাকুর’গাঁয়ে নারী ও শিশু নির্যা’তন দমন ট্রা’ইব্যুনালে গত ২৮ সে’প্টেম্বর ধর্ষণে’র মামলা দা’য়ের করেন। মাম’লা নং ১৮৮/২০২০ ইং। এরই পরিপ্রে’ক্ষিতে বরি’শাল ডিআ’ইজি তদ’ন্তের নির্দেশ দিলে মঙ্গ’লবার (৬ অক্টোবর) সৈ’য়দপুর সার্কেল কার্যা’লয়ে ভিক’টিমকে ডেকে নিয়ে তার জ’বানবন্দি গ্রহ’ণ করা হয়।’

ভিক’টিমের জবানব’ন্দি গ্রহণের বিষয়’টি নিশ্চিত করে অতি’রিক্ত পুলিশ সুপার অ’শোক কুমার পাল জানান, এ সংক্রান্ত অভিযো’গের তদন্ত চলছে।

সূত্র: বাংলা’নিউজ।