ছাত্রের শরীরে গরম চা ঢেলে দেন মক্তবের শিক্ষক

প্রকাশিত: ৯:২০ অপরাহ্ণ, সেপ্টেম্বর ২৫, ২০২০ | আপডেট: ১:১৯:অপরাহ্ণ, সেপ্টেম্বর ২৬, ২০২০

# সিলেটের জৈন্তাপুরে ম’সজিদে (মক্তব) পাঠদানের সময় এক শিক্ষক ফ্লাক্সের গরম চা ঢেলে দিয়ে ৭ বছরের শি’শুর শরীর পুড়িয়ে দেওয়ার অ’ভিযোগ উঠেছে।
গত মঙ্গলবার ভোরে সীমান্তবর্তী জৈন্তাপুর উপজে’লার হেমু তিনপাড়া পশ্চিম মহল্লা জামে ম’সজিদের মক্তব্যে এ ঘটনা ঘটে। তবে অ’ভিযু’ক্ত শিক্ষকের দাবি, দুর্ঘ’টনাবশত শিক্ষার্থীর গায়ে গরম চা পড়ে গেছে।

# নাবিল উপজে’লার ফতেহপুর (হরিপুর) ইউনিয়নের হেমু মাঝপাড়া গ্রামের এখলাছ উদ্দিনের ছে’লে। সে স্থানীয় হেমু সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের দ্বিতীয় শ্রেণির শিক্ষার্থী। শি’শুটির বাবা এখলাছ উদ্দিন চাকরির সূত্রে হবিগঞ্জে থাকেন।

# এখলাছ উদ্দিন জানান, মঙ্গলবার ভোর ৬টার দিকে নাবিল গ্রামের মক্তবে আরবি পড়তে যায়। সেখানে আরেক শি’শুর সঙ্গে কথা বলায় শিক্ষক আব্দুল করিম ফ্লাক্সের গরম চা তার শরীরে ঢেলে দেন।

# এতে তার গলা ও ঘাড়ের অনেকখানি পুড়ে চামড়া উঠে যায়। এ ঘটনার পর শি’শুর মাকে চাপ দিয়ে কাউকে বিষয়টি জানাতে নিষেধ করা হয়। পরে স্থানীয় একটি ফার্মেসি থেকে তাকে ওষুধ এনে দেওয়া হয়।

# জৈন্তাপুর থা’নার ভা’রপ্রাপ্ত কর্মক’র্তা (ওসি) মহসিন আলী জানান, ঘটনার পর শি’শুর পরিবার অ’ভিযোগ করেনি। তবে, খবর পেয়ে পু’লিশ সেখানে গিয়ে অ’ভিযু’ক্ত শিক্ষককে খুঁজে পায়নি।

# এদিকে আজ শুক্রবার বিকেলে শি’শুটিসহ অ’ভিভাবকরা থা’নায় হাজির হয়ে অ’ভিযোগ করেছেন। শি’শুটির চিকিৎসার ব্যবস্থা করছে পু’লিশ। অ’ভিযু’ক্ত শিক্ষককে আ’ট’কে অ’ভিযান চলছে বলেও জানান ওসি।