মা-মেয়ে দগ্ধ ও লঞ্চে ধর্ষণের পর হত্যার ঘটনায় মহিলা পরিষদের উদ্বেগ

জি এম নিউজ জি এম নিউজ

বাংলার প্রতিচ্ছবি

প্রকাশিত: ৫:৩৯ অপরাহ্ণ, সেপ্টেম্বর ১৫, ২০২০ | আপডেট: ৫:৩৯:অপরাহ্ণ, সেপ্টেম্বর ১৫, ২০২০

# কুষ্টিয়া জেলার ভেড়ামারায় সাবেক স্বামীর অ্যাসিড নিক্ষেপে মা ও মেয়ে দগ্ধ এবং বরিশাল-ঢাকা রুটের এমভি পারাবত-১১ লঞ্চ অজ্ঞাতপরিচয় এক নারীকে ধর্ষণের পর শ্বাসরোধে হত্যার ঘটনায় গভীর উদ্বেগ ও ক্ষোভ প্রকাশ করে জড়িতদের দ্রুত গ্রেপ্তার, যথাযথ আইনী ব্যবস্থা গ্রহণসহ দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবি জানিয়েছে বাংলাদেশ মহিলা পরিষদ।

 

# আজ মঙ্গলবার গণমাধ্যমে পাঠানো বিবৃতিতে বলা হয়, গত ১৪.০৯.২০২০ তারিখ বিভিন্ন দৈনিক সংবাদ মাধ্যমে প্রকাশিত সংবাদে জানা যায় যে, কুষ্টিয়া জেলার ভেড়ামারা উপজেলার গোলাপনগর গ্রামে সাবেক স্বামীর অ্যাসিড নিক্ষেপে মা ও মেয়ে দগ্ধ হওয়ার ঘটনা ঘটেছে। জানা যায় যে, দুই বছর আগে ভেড়ামারা উপজেলার বাহাদুরপুর গ্রামের মোক্তার আলীর ছেলে রিন্টু আলীর সঙ্গে নির্যাতনের শিকার নারীর বিয়ে হয়। তাঁদের বনিবনা না হওয়ায় এক বছর আগে পারিবারিকভাবে বিচ্ছেদ হয়।

 

# এরপর থেকে রিন্টু বিভিন্ন সময় ওই নারীকে উত্যক্ত করতেন। গত ১৩.০৯.২০২০ তারিখ রবিবার রিন্টু আলী সাবেক স্ত্রীকে জোর করে তুলে নেওয়ার চেষ্টা করেন। এ সময় নির্যাতনের শিকার নারীর মা বাধা দিলে রিন্টু রাসায়নিকজাতীয় দাহ্য পর্দাথ তাঁদের দিকে ছুড়ে মারেন। তাঁদের চিৎকারে প্রতিবেশীরা ছুটি এসে উদ্ধার করে ভেড়ামারা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করেন। এ ঘটনায় ভেড়ামারা থানায় মামলা দায়ের হয়েছে।

 

# বিবৃতিতে বলা হয়, শাল-ঢাকা রুটের এমভি পারাবত-১১ লঞ্চ অজ্ঞাতপরিচয় এক নারীকে ধর্ষণের পর শ্বাসরোধে হত্যার ঘটনা ঘটেছে। জানা য়ায়, গত ১৩.০৯.২০২০ তারিখ রবিবার সন্ধ্যায় রাজধানীর সদরঘাট থেকে লঞ্চের রেজিস্টারে কামরুল নামের ব্যক্তি ওই নারীকে নিয়ে লঞ্চের তৃতীয় তলার ৩৯১ নম্বর সিঙ্গল কেবিনে ওঠেন। গত ১৪.০৯.২০২০ তারিখ সোমবার বরিশাল-ঢাকা রুটের এমভি পারাবত-১১ লঞ্চটির তৃতীয় তলার একটি কেবিন থেকে থেকে মধ্যবয়সী অজ্ঞাতপরিচয় এক নারীর লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ।

 

# এমতবস্থায় বাংলাদেশ মহিলা পরিষদ মা ও মেয়ে অ্যাসিডে দগ্ধ এবং অজ্ঞাতপরিচয় নারীকে ধর্ষণের পর শ্বাসরোধে হত্যার ঘটনায় গভীর উদ্বেগ ও ক্ষোভ প্রকাশ করছে। ঘটনার সাথে জড়িতদের দ্রুত গ্রেফতার এবং তাদের বিরুদ্ধে যথাযথ আইনী ব্যবস্থা গ্রহন, সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ তদন্তসহ জড়িতদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবি জানাচ্ছে। হত্যার শিকার নারীর পরিচয় উ্দ্ঘাটনাপূর্বক তার লাশ পরিবারের কাছে হস্তান্তরের অনুরোধ জানাচ্ছে।

 

# সেইসাথে এসিড দ্বারা ক্ষতিগ্রস্ত ব্যক্তিদের সুচিকিৎসাসহ তাদের আইনগত সহায়তা প্রদান করতে হবে। এসিডজাতীয় দ্রব্যের অপব্যবহার রোধে এবং এসিডজাতীয় দ্রব্যের অপপ্রয়োগকারীদের শাস্তির লক্ষ্যে এসিড নিয়ন্ত্রণ আইন, ২০০২ (সংশোধনী ২০১০) এর যথাযথ আইনের বাস্তবায়নের দাবি জানাচ্ছে। এ ধরণের বর্বর, নৈরাজ্যজনক সহিংসতার ঘটনার পুনরাবৃত্তি প্রতিরোধে আশুকার্যকর পদক্ষেপ গ্রহনের জন্য সরকার, প্রশাসনের বিশেষ দৃষ্টি আকর্ষণ করছে।