গিনেস বুকে নাম উঠানো ঝালকাঠির কৃতি সন্তান জুবায়েরকে সংবর্ধনা

প্রকাশিত: ১:৪৩ অপরাহ্ণ, আগস্ট ১০, ২০২০ | আপডেট: ১:৪৩:অপরাহ্ণ, আগস্ট ১০, ২০২০

“নেক থ্রো ক্যাচেস” ক্যাটাগরিতে নতুন বিশ্ব রেকর্ডের জন্য গিনেস বুক অব ওয়ার্ল্ড রেকর্ড’স স্বীকৃতি পাওয়ায় ঝালকাঠির কৃতি সন্তান জোবায়েরকে সংবর্ধনা দেয়া হয়েছে। ঝালকাঠি শহরের মসজিদ বাড়ি সড়কের সাবেক পৌর কমিশনার জালাল আহমেদের ছেলে আশিকুর রহমান জুবায়ের গিনেস বুকে নাম ওঠায় রোববার বিকেলে ঝালকাঠি প্রেসক্লাব হলরুমে তাকে সংবর্ধনা দেয়া হয়। স্বেচ্ছাসেবী সংগঠন ইয়ুথ একশন সোসাইটি এ সংবর্ধনার আয়োজন করে। এসময় উপস্থিত ছিলেন সদর উপজেলা ভাইসচেয়ারম্যান ও মহিলালীগ নেত্রী ইসরাত জাহান সোনালী, জেলা আওয়ামীলীগের যুগ্ম সম্পাদক ও পৌর কাউন্সিলর তরুণ কর্মকার, যশোর সরকারী এমএম কলেজের সহযোগী অধ্যাপক (গণিত) ড. মু. আবদুস সালাম হাওলাদার, প্রেসক্লাব সভাপতি চিত্তরঞ্জন দত্ত, সাধারন সম্পাদক অ্যাডভোকেট আককাস সিকদার, নলছিটি উপজেলা পরিষদের সাবেক ভাইস চেয়ারম্যান ডালিয়া নাসরিন, সংবর্ধিত জুবায়েরের পিতা সাবেক পৌর কমিশনার জালাল আহমেদ প্রমুখ। ইয়ুথ একশন সোসাইটির সভাপতি শাকিল হাওলাদার রনির সভাপতিত্বে সদস্য ইসরাত সুলতানা নিশির পরিচালনায় স্বাগত বক্তব্য রাখেন সাধারন সম্পাদক মাহিদুল ইসলাম রাব্বি।
প্রথম বারের মতো গিনেস বুকে নাম উঠানো ২২ বছর বয়সী জুবায়ের এক মিনিটে সবচেয়ে বেশিবার ঘাড়ের ওপর ফুটবল নাচিয়ে ফ্রিস্টাইলের স্বীকৃতি পেয়েছেন । (৩০ জুলাই) রোববার তাকে এই স্বীকৃতি দেয় গিনেস বুক অফ ওয়ার্ল্ড রেকর্ডস কমিটি। এক মিনিটে ৬৫ বার ফুটবল ঘাড়ের ওপর নাচিয়ে জুবায়ের নতুন এ রেকর্ড গড়েন।
জুবায়ের বরিশাল বিএম(ব্রজমোহন) কলেজের ম্যানেজমেন্ট বিভাগে অনার্স চতুর্থ বর্ষের ছাত্র। শুরুতে পরিবার থেকে সমর্থন না পেলেও এখন জুবায়েরের কৃতিত্বে খুশি বাবা-মাসহ পরিবারের সবাই।
বাবা জালাল আহমেদ বলেন, খেলাধুলা থেকে দেশে খুব বেশি সাফল্য পাওয়া যায় না। এমন ধারণা থেকেই ছেলেকে পড়াশোনার প্রতি বেশি মনোযোগী হতে বলি। কিন্তু সে লুকিয়ে লুকিয়ে এ সব প্রাকটিস চালিয়েছে। এখন সে একটি বিশ্ব রেকর্ড করেছে। এ থেকে কী হবে জানি না। তবে চাই সে করুক। পড়াশুনার পাশাপাশি চালিয়ে যাক তার এই ফুটবল শৈলি।
জুবায়ের এর বড় ভাই লন্ডন ছাত্রলীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি জিয়াউর রহমান জিয়া বলেন, আমার ভাই এভাবে গিনেস বুকে নাম লিখাবে বুঝতে পারিনি। তবে ছোট থেকেই ওর খেলাধুলার প্রতি আগ্রহ ছিল ও যেন আরো ভালো করতে পারে তার জন্য সবার কাছে দোয়া চাইছি।
গিনেস রেকর্ডের বিষয়ে মো.আশিকুর রহমান জুবায়ের বলেন, নিজের খেয়াল থেকেই এগুলো করেছি। ছোটবেলাতে ক্রিকেটার হওয়ার ইচ্ছা থাকলেও বেশিদূর এগোতে পারিনি। তবে ইচ্ছা ছিল আলাদা কিছু করার। বাসায় লেখাপড়ার জন্য বাবা-মায়ের কড়া শাসন থাকলেও ঘরের দরজা বন্ধ করেই নিয়মিত চালিয়ে যেতাম প্রাকটিস। এক্ষেত্রে পেছনে কোনো প্রশিক্ষক ছিল না। তবে পৃষ্ঠপোষকতা পেলে আরও অনেকেই এর প্রতি ঝুঁকবে আশা করি।