ঝালকাঠিতে ইসলামী ব্যাংকের ৮ কর্মকর্তা করোনা আক্রান্ত

প্রকাশিত: ৭:৫৯ অপরাহ্ণ, জুলাই ১৩, ২০২০ | আপডেট: ৭:৫৯:অপরাহ্ণ, জুলাই ১৩, ২০২০

ইসলামী ব্যাংক বাংলাদেশ ঝালকাঠি শাখার ৮জন কর্মকর্তা করোনা আক্রান্ত হয়েছেন। আরো ৩ কর্মকর্তার শরীরে করোনা উপসর্গ থাকায় পরীক্ষার জন্য নমুনা দিয়েছেন। এখন পর্যন্ত টেস্ট রিপোর্ট আসেনি। এছাড়াও কয়েকজনের শরীরে করোনা উপসর্গ লক্ষ্য করা গেছে। এ অবস্থায় ঝালকাঠি ইসলামী ব্যাংকের কার্যক্রম স্বাভাবিক থাকায় চরম ঝুকিতে লেনদেন করছেন গ্রাহকরা। সেই সাথে অন্যান্য কর্মকর্তারা ও কর্মচারীরা আক্রান্ত হবার আশঙ্কায় রয়েছেন।
ইসলামী ব্যাংক ঝালকাঠি শাখার ব্যবস্থাপক মোঃ খলিলুর রহমান করোনা আক্রান্ত হওয়ায় তিনি ছুটি নিয়ে হোম আইসোলেশনে আছেন। ব্যবস্থাপক মোঃ খলিলুর রহমানসহ ৬ জন আক্রান্ত হবার বিষয়টি গত ৮জুন জেলা প্রশাসক ও সিভিল সার্জনকে অফিসিয়াল চিঠি দিয়ে অবহিত করেছেন ভারপ্রাপ্ত ব্যবস্থাপক কাজী মিজানুর রহমান।
চিঠিতে উল্লেখ করা হয়, শাখা ব্যবস্থাপকসহ ৬জন কর্মকর্তা কোভিড-১৯ (করোনা) আক্রান্ত হয়েছেন। আক্রান্ত কর্মকর্তাগণ নিজ নিজ বাসায় আইসোলেশনে আছেন। এছাড়া এ্কই শাখার ৯জন কর্মকর্তা অসুস্থ কিন্তু সিরিয়াল জটিলতায় তারা টেস্ট করাতে পারছেন না। অনেক কর্মকর্তা অসুস্থতা নিয়ে অফিস করছেন। গ্রাহকদের স্বাস্থ্য বিধি ও সামাজিক দূরত্ব মেনে ব্যাংকিং লেনদেন করা সম্ভব হচ্ছে না। চিঠিতে উল্লেখিত আক্রান্তরা হলেন- ব্যবস্থাপক মোঃ খলিলু রহমান, অফিসার মোঃ কামরুল হাসান, মোঃ নাসরি উদ্দিন, মোঃ জাহিদুল ইসলাম, মোঃ সাইদুল ইসলাম ও মোঃ সোহেল মুন্সি।
সোমবার দুপুরে ব্যাংকে গিয়ে দেখাগেছে, কর্মকর্তা সঙ্কটে গ্রাহকদের ব্যাংকিং সেবা দিতে হিমশিম খাচ্ছে কর্তৃপক্ষ। অন্যান্য কর্মকর্তা ও কর্মচারীরা সংক্রমণের ভয়ে চরম ঝুকি নিয়ে গ্রাহকদের ব্যাংকিং সেবা দিচ্ছেন। ব্যাংকের কর্মকর্তাদের অধিকাংশ আক্রান্ত হবার খবর শুনে গ্রাহকরাও আতঙ্কগ্রস্ত হয়ে দ্রæত প্রয়োজনীয় কার্য সম্পাদন করে স্থান ত্যাগ করে বাইরে এসে স্বস্তির নিঃশ্বাস ফেলছেন।
ভারপ্রাপ্ত ব্যবস্থাপক কাজী মিজানুর রহমান জানান,গত ৮ জুলাই পর্যন্ত আমাদের ব্যবস্থাপকসহ ৬জন কর্মকর্তা করোনা আক্রান্ত ছিলেন। আজ (সোমবার) দুপুর পর্যন্ত ওই ৬ জন সহ আরো ২ জন করোনা আক্রান্ত হয়েছেন। তারা হলেন মোঃ রফিকুল ইসলাম ও মোঃ আব্দুল কুদ্দুস। আরো ৩জন কর্মকর্তার দেহে করোনা উপসর্গ দৃশ্যমান হওয়ায় তারা নমুনা দিয়েছেন এখনও রিপোর্ট আসেনি। এছাড়াও বেশ কয়েকজন কর্মকর্তা-কর্মচারীর মধ্যে উপসর্গ লক্ষ্য করা যাচ্ছে। এ ক্রান্তিকালে কতজন আক্রান্ত হয়, ব্যাংকিং সেবা কিভাবে প্রদান করবো এনিয়ে আশঙ্কা ও উদ্বেগ প্রকাশ করেছেন।
তিনি আরো জানান, আমরা ৫দিন আগে গত ৮জুলাই জেলা প্রশাসক (ডিসি) মহোদয় এবং সিভিল সার্জনকে চিঠি দিয়ে লিখিতভাবে অবগত করেছিলাম। এরপর জেলা প্রশাসক মোঃ জোহর আলী ব্যাংক ব্যবস্থাপক খলিলুর রহমান’র সাথে ফোনে কথা বলে জানান, আপনার উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের সাথে কথা বলে জনবল সরবরাহ করে ব্যাংকিং সেবা স্বাভাবিক রাখতে ব্যবস্থা নেয়ার পরামর্শ দেন ডিসি ।
ঝালকাঠি সিভিল সার্জন ডা. আবুয়াল হাসান জানান, ইসলামী ব্যাংক ব্যবস্থাপকের করোনা সংক্রমণের বিষয়টি আমাদের তথ্যে আছে। এছাড়া অন্যান্যদের তথ্য আমাদের কাছে নেই। কোথা থেকে তারা নমুনা পরীক্ষা করিয়েছেন তাও জানি না।
সিভিল সার্জন আরো জানান, কোন আর্থিক প্রতিষ্ঠানের জনবল করোনা আক্রান্ত হলে আক্রান্তরা ছুটি নিয়ে হোম আইসোলিউশনে থাকবেন। অন্যান্যরা কার্যক্রম স্বাভাবিকভাবে চালিয়ে যাবেন। জনবল ঘাটতি থাকলে উর্ধ্বতন কর্তপক্ষের সাথে কথা বলে ব্যবস্থা নিবেন। এই মুহুর্তে কোন আর্থিক প্রতিষ্ঠানকে লকডাউন করা যাচ্ছে না।