পঞ্চগড়ে করোনা আক্রান্ত রোগীদের মধ্যে ৩ ভাগ রোগীর মধ্যে ইতোমধ্যে ২ ভাগ রোগীই সুস্থ হয়েছে

জি এম নিউজ জি এম নিউজ

বাংলার প্রতিচ্ছবি

প্রকাশিত: ৪:১১ অপরাহ্ণ, জুন ২৮, ২০২০ | আপডেট: ৪:১১:অপরাহ্ণ, জুন ২৮, ২০২০

পঞ্চগড়ের ৫ উপজেলার ৪৩টি ইউনিয়নের বিভিন্ন এলাকায় গত ১৭ এপ্রিল থেকে ২৬ জুন মোট ৬৯ দিনে এ পর্যন্ত ১৩২ জন করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন। আক্রান্তদের মধ্যে এ পর্যন্ত ৯১ জন পুরোপুরি সুস্থ হয়ে বাড়ি ফিরেছেন। সুস্থ ৯১ জনের দ্বিতীয় ও তৃতীয় বার নমুনার রিপোর্ট নেগেটিভ আসায় জেলা স্বাস্থ্য বিভাগ তাদের ছাড়পত্র দিয়েছেন।শুক্রবার (২৬ জুন) ওই ৯১ জন করোনা আক্রান্ত রোগীর সুস্থ হওয়ার তথ্যটি নিশ্চিত করেছেন পঞ্চগড় সিভিল সার্জন ডা. ফজলুর রহমান।বর্তমানে জেলায় ৪০ জন করোনা আক্রান্ত রোগী চিকিৎসাধীন রয়েছে বলে স্বাস্থ্য বিভাগ সূত্রে জানা গছে। তাদের মধ্যে ৪ জন করোনা আক্রান্ত রোগী পঞ্চগড় করোনা ডেডিকেডেট হাসপাতালে অবস্থান করলেও বাকিরা সবাই নিজ নিজ বাড়িতে রেখে চিকিৎসা দেয়া হচ্ছে। তাছাড়া করোনা আক্রান্ত ও সুস্থতার হার পর্যবেক্ষণ করলে দেখা যায়, করোনা আক্রান্ত ৩ ভাগ রোগীর মধ্যে ইতোমধ্যে ২ ভাগ রোগীই সুস্থ হয়েছেন। তবে আক্রান্ত বাকি ৪১ জন রোগী শারীরিকভাবে সুস্থ রয়েছে। তাদের সবাইকে জেলা স্বাস্থ্য বিভাগ চিকিৎসাসহ প্রতিনিয়ত পর্যবেক্ষণ করছে।জানা গেছে, পঞ্চগড়ে যারা আক্রান্ত হয়েছে তারা বেশিরভাগ ঢাকা, নারায়ণগঞ্জ, গাজীপুর, কুমিল্লাসহ বিভিন্ন জেলা থেকে এসেছিলেন। তাছাড়া স্থানীয়ভাবেও অনেকে আক্রান্ত হয়েছেন।

জেলা স্বাস্থ্য বিভাগ জানায়, গত ১৭ এপ্রিল থেকে ২৬ জুন পর্যন্ত জেলার ৫ উপজেলায় বিভিন্ন জেলা থেকে ফেরত ও স্থানীয় বাসিন্দাসহ মোট ২ হাজার ৭৩ জনের নমুনা সংগ্রহ করে পরীক্ষার জন্য প্রথমে রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে এবং পরে দিনাজপুর এম মেডিকেল হাসপাতালের পিসিআর ল্যাবে প্রেরণ করলে তার মধ্যে ১ হাজার ৯৯৬টি নমুনার ফলফল পাওয়া যায়। তাদেরও মধ্যে ১৩২ জনের নমুনার রিপোর্ট পজিটিভ আসে। এর মধ্যে এ পর্যন্ত ৩ জনের মৃত্যু হয়েছে। তবে যে ৩ জন মারা গেছেন তারা সবাই বৃদ্ধ ছিলেন। এর মধ্যে ২ জনের মৃত্যুর পর করোনা শনাক্ত হয়েছে বলে জানায় স্বাস্থ্য বিভাগ।পঞ্চগড় সিভিল সার্জন ডা. ফজলুর রহমান জানান, গত ৬৯ দিনে জেলার বিভিন্ন এলাকার মোট করোনা আক্রান্ত ১৩২ জন রোগীর মধ্যে আজ পর্যন্ত ৯১ জন রোগীকে সুস্থ ঘোষণা করে ছাড়পত্র দেয়া হয়েছে। ৪১ জন রোগীকে স্বাস্থ্য বিভাগ প্রতিনিয়ত চিকিৎসা দিয়ে যাচ্ছে। তাছাড়া চিকিৎসাধীন সকল রোগীদের নিয়মিত খোঁজ খবর, পরামর্শ ও চিকিৎসা দেয়া হচ্ছে। স্বাস্থ্য বিভাগের সকল দিক নির্দেশনা, পরামর্শ ও নিয়মকানুন মেনে চলার পর তারা দ্রুত সুস্থ হয়ে উঠছে। আমরা আশাবাদী বাকিরাও সুস্থ হয়ে আমাদের মাঝে ফিরে আসবে।