দিনাজপুর জেলা আওয়ামী আইন সহায়তা কমিটির আয়োজনে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ঐতিহাসিক ৬ দফা দিবসে আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত

এন.আই.মিলন এন.আই.মিলন

দিনাজপুর প্রতিনিধি

প্রকাশিত: ১০:৪৯ অপরাহ্ণ, জুন ৭, ২০২০ | আপডেট: ১০:৪৯:অপরাহ্ণ, জুন ৭, ২০২০

এন.আই.মিলনদিনাজপুর প্রতিনিধি– ৬ দফা আন্দোলনের চুড়ান্ত পরিণতি আমাদের প্রিয় মাতৃভুমির স্বাধীনতা। ৬ দফার কারনেই শেখ মুজিবুর রহমান হয়েছেন বঙ্গবন্ধু এবং জাতির পিতা। তাই ৬ দফা মুক্তিকামী বাঙালির মুক্তির সনদ। বাঙালি জাতির স্বাধীনতা ও অর্থনৈতিক মুক্তির মূলমন্ত্র।

ঐতিহাসিক ৬ দফা দিবস উপলক্ষে ৭ জুন রোববার দিনাজপুর জেলা আইনজীবী সমিতি ভবনে দিনাজপুর জেলা আওয়ামী আইন সহায়তা কমিটি আয়োজিত আলোচনা সভায় বক্তারা উপরোক্ত কথাগুলো বলেন।

দিনাজপুর জেলা আওয়ামী আইন সহায়তা কমিটির সদস্য সচিব ও জেলা দায়রা জজ আদালতের অতিরিক্ত পিপি হাজী এ্যাডভকেট মোঃ সাইফুল ইসলাম এর প্রাণবন্ত পরিচালনায় জেলা আওয়ামী আইন সহায়তা কমিটির আহ্বায়ক ও দিনাজপুর জেলা আওয়ামী লীগের আইন সম্পাদক বর্ষিয়ান আইনজীবী এ্যাডভকেট মোঃ হামিদুল ইসলামের সভাপতিত্বে আলোচনা সভায় প্রধান অতিথি ছিলেন দিনাজপুর জেলা ও দায়রা জজ আদালতের পিপি মোঃ রবিউল ইসলাম রবি।

বিশেষ অতিথি হিসাবে উপস্থিত ছিলেন বাংলাদেশ সুপ্রীম কোর্টের এ্যাড. মোঃ শহিদুল ইসলাম শাহিন, দিনাজপুর জেলা জজ আদালতের স্পেশাল পিপি এড. শামসুর রহমান পারভেজ, বাংলাদেশ ছাত্রলীগের কেন্দ্রীয় কার্যকরি কমিটির সাবেক সদস্য সৈয়দ সালাউদ্দিন দিলীপ, দিনাজপুর জেলা যুবলীগের সাবেক সহ-সম্পাদক খলিলুল্লাহ আজাদ মিল্টন, সুপ্রীম কোর্টের হাইকোর্ট ডিভিশনের এডভোকেট হযরত আলী বেলাল ও এড. মোঃ রেয়াজুল ইসলাম।

এসময় সভায় উপস্থিত ছিলেন এড. জাহাঙ্গীর আলম তুষার, এড. শরিয়াত হোসেন, এড. মাসুদ রানা, এড. আরিফ ইকবাল হাসমী, এড. শফিউল ইসলাম, এড. অনিমেষ চন্দ্র রায়, এড. আব্দুল হাকিম প্রমুখ।

আলোচনা সভায় ৬ দফা আন্দোলনের ঐতিহাসিক পটভুমি আলোচনা করা হয়। ৬ দফাকে বাংলাদেশের স্বাধীনতার মূল সনদ/মন্ত্র হিসেবে উল্লেখ করেন বক্তারা। আলোচনা সভার শুরুতে জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের আত্মার মাগফিরাত করা হয়।

সেই সাথে বঙ্গবন্ধুর সাথে ৭৫’র ১৫ আগস্টের কালরাত্রীতে জঘন্য হত্যাকাণ্ডের শিকার সকলের এবং জাতীয় ৪ নেতাসহ সকল (স্বাধীনতার স্বপক্ষে) শহিদগণের আত্মার মাগফিরাত কামনা করা হয়।

বাঙালি জাতির তথা এ দেশের প্রায় ১৮ কোটি মানুষের আশা-আকাঙ্খার একমাত্র আশ্রয় স্থল প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী দেশরত্ন শেখ হাসিনার দীর্ঘায়ু কামনা করা হয়। শেষে বাংলাদেশসহ পুরো বিশ্ব করোনা মুক্ত হোক এ প্রার্থনা জানিয়ে বিশেষ মুনাজাত অনুষ্ঠিত হয়।