কেন অল্প বয়সে চুল পাকে

জি এম নিউজ জি এম নিউজ

বাংলার প্রতিচ্ছবি

প্রকাশিত: ৮:১০ পূর্বাহ্ণ, জানুয়ারি ৫, ২০১৮ | আপডেট: ৮:১০:পূর্বাহ্ণ, জানুয়ারি ৫, ২০১৮
কেন অল্প বয়সে চুল পাকে

ফারমিনা তাসলিম : বাংলাদেশের বেশির ভাগ মানুষের চুলের রং সাধারণত কালো। বয়স বাড়ার সাথে সাথে চুলের রং পরিবর্তিত হতো। কিন্তু অনেকের ক্ষেত্রে অল্প বয়সে চুল পেকে যাওয়ার প্রবণতা দেখা যাচ্ছে।

চিকিৎসা বিজ্ঞানীরা বলেছেন, মানুষের চুল ফেলিকেলেস নামক বিশেষ কোষ দিয়ে গঠিত হয়। এ ফেলিকেলেস কোষে মেলানিন নামের একটি বিশেষ উপাদান থাকে। এ উপাদান ঠিকমতো থাকলে চুলের রং স্বাভাবিক থাকে। কিন্তু সময়ের সাথে সাথে চুলের ফেলিকেলেস কোষের মেলানিন হারানোর ফলে চুল সাদা হয়ে যায়।

বয়সের সাথে সাথে যেহেতু চুলের ফেলিকেলেস কোষ মেলানিন হারায় চুল সাদা হয়। কিন্তু আমরা দেখতে পাই অনেকের কিশোর বয়সে চুল সাদা হতে থাকে।

অল্প বয়সে চুল সাদা হওয়ার কারণ কি?

১. জীনতত্ত্ব : যদি চুল কম বয়সে সাদা হয় তাহলে বুঝতে হবে এটা জীনগত সমস্যা। অল্প বয়সে যদি আপনি সাদা চুল দেখেন তাহলে সম্ভবত আপনার বাবা-মা বা দাদির বাবা-মাও কম বয়সে সাদা চুল ছিল। আপনি জেনেটিক্স পরিবর্তন করতে পারবেন না। কিন্তু যদি এ রকম চুল আপনার পছন্দ না হয় তাহলে সবসময় আপনার চুল রং করতে পারেন।

২. মানসিক চাপ : আমরা সবাই মানসিক চাপের স্বীকার হয়। দীর্ঘস্থায়ী মানসিক চাপে ঘুমের সমস্যা, দুশ্চিন্তা, ক্ষুধা মন্দা ও উচ্চ রক্তচাপ হতে পারে। এতে মানসিক চাপ বাড়ে।

গবেষকরা বলেন, মানসিক চাপ আপনার চুলের রঙকে প্রভাবিত করতে পারে। ২০১৩ সালে একটি গবেষণায় মানসিক চাপ এবং চুল ফেলিকেলেসের স্টেম সেল কমে যাওয়ার মধ্যে যোগসূত্র পাওয়া গেছে। তখন যদি আপনি দেখেন আপনার সাদা চুলের পরিমান বেড়ে যাচ্ছে, তাহলে বুঝবেন এর জন্য আপনার মানসিক চাপই দায়ী।

৩. অটোইমিউন রোগ : শরীরের রোগ প্রতিরোধ কার্যক্রম অনেক সময় ঠিক মতো কাজ করে না, তখন তাকে অটোইমিউন রোগ বলে। এটা অকালে সাদা চুল হওয়ার কারণ হতে পারে। এ রোগ হলে শরীরের ইমিউন সিস্টেম তার নিজস্ব কোষগুলোকে আক্রমণ করে। ইমিউন সিস্টেম যখন চুল আক্রমণ করে তখন এটি সাদা হতে পারে।

৪. থাইরয়েড সমস্যা : থাইরয়েড সমস্যা দ্বারা সৃষ্ট হরমোনের পরিবর্তন অকালে সাদা চুলের জন্য দায়ী হতে পারে। থাইরয়েড আপনার ঘাড়ের ভিতর অবস্থিত একটি প্রজাপতির আকৃতির গ্রন্থি। এটা শরীরের অনেক কার্যক্রমকে নিয়ন্ত্রণ করতে সাহায্য করে। থাইরয়েড রোগটি স্বাস্থ্য ছাড়াও চুলের রংকে প্রভাবিত করতে পারে। একটি অতিরিক্ত সক্রিয় থাইরয়েড শরীরে কম মেলানিন উৎপাদন করে।

৫. ভিটামিন বি-১২ অভাব : কম বয়সে সাদা চুল ভিটামিন বি-১২ অভাবকে নির্দেশ করে। এই ভিটামিন শরীরের একটি গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে। এটি শরীরের শক্তি, চুল বৃদ্ধি ও চুলের রঙে অবদান রাখে। শরীরে স্বাস্থ্যকর লাল রক্ত কোষের জন্য ভিটামিন বি-১২ প্রয়োজন যা শরীরে চুল কোষসহ কোষে অক্সিজেন বহন করে। এটির অভাবে চুল কোষ দুর্বল ও মেলানিন উৎপাদনে প্রভাবিত করে।

৬. ধূমপান : অকালে সাদা চুল এবং ধূমপানের মধ্যে একটি সম্পর্ক আছে। এটি পরিচিত যে ধূমপান ফুসফুসের ক্যান্সার ও হৃদরোগের ঝুঁকি বাড়ায়। দীর্ঘমেয়াদী প্রভাবে চুল ক্ষতিগ্রস্ত হতে পারে। সিগারেটের বিষক্রিয়াগত কারণে সাদা চুল হতে পারে।

এক গবেষণায় জানা গেছে, থাইরয়েড সমস্যায় যদি চুল সাদা হয় তাহলে হরমোন থেরাপি চিকিৎসার পর পূনরায় স্বাভাবিক রং ফিরে আসতে পারে। ভিটামিন-১২ অভাবে সাদা চুল হলে চিকিৎসা করালে পিগমেন্ট হতে পারে। তবে ধূমপান বা মানসিক চাপের কারণে চুল সাদা হলে তা আর স্বাভাবিক রং এ ফেরত পাওয়া যাবে না। সূত্র – হেলথ নিউজ