বিশ্ব রক্ষায় অস্ত্রের চেয়েও বেশি প্রয়োজন স্বাস্থ্য কর্মী!

পুঁজিবাদী বিশ্বের জন্য সমাজতান্ত্রিক কিউবার শিক্ষা

জি এম নিউজ জি এম নিউজ

বাংলার প্রতিচ্ছবি

প্রকাশিত: ৪:৩৯ অপরাহ্ণ, মে ২, ২০২০ | আপডেট: ৪:৪০:অপরাহ্ণ, মে ২, ২০২০

আরও একবার পুঁজিবাদী বিশ্বকে সমাজতন্ত্রের শিক্ষা দিলো ছোট দ্বীপ রাষ্ট্র কিউবা। করোনা মোকাবেলায় বিশ্বের বড় বড় অর্থনীতি বা বিশাল সামরিক শক্তিধর দেশগুলো বেসামাল হয়ে কিউবার সহায়তা চাচ্ছে! ছোট দেশটি নিজের সাধ্যমতো বিপন্ন দেশগুলোর পাশে দাঁড়ানোর চেষ্টাও করছে। অনেক দেশ, যারা কিছুদিন আগেও কিউবার স্বাস্থ্য কর্মীদেরকে রাজনৈতিক কারণে নিজ দেশে ফেরত পাঠিয়ে দিযেছিলো, তারাও এখন কিউবার সাহায্য প্রত্যাশী!

 

এই পর্যন্ত করোনা মোকাবেলায় বিশ্বের প্রায় ২২টি দেশকে সহায়তা করতে প্রায় ১২০০ স্বাস্থ্য কর্মী পাঠিয়েছে কিউবা। ভেনিজুয়েলা, নিকারাগুয়া, জ্যামেইকা, ইটালি, চীনের পর সম্প্রতি দেশটির প্রায় ২০০ জনের একটি চিকিৎসা দল পৌঁছেছে দক্ষিণ আফ্রিকায়।

উল্লেখ করা যেতে পারে যে, প্রতি ১ হাজার মানুষের জন্য কিউবায় আছেন ৯জন চিকিৎসক, এই হার বিশ্বে সর্বোচ্চ। উন্নয়নশীল দেশগুলোতে বড় অর্থনীতির জি-৮ভুক্ত দেশগুলোর চেয়েও কিউবার স্বাস্থ্য কর্মী পাঠানোর সংখ্যা বেশি। দুটো কারণে কিউবা বিভিন্ন দেশে স্বাস্থ্য কর্মী পাঠিয়ে থাকে। ১৯৬৩ সাল থেকে উপনিবেশিক শক্তিগুলোর বিরুদ্ধে লড়াইয়ের অংশ হিসেবে কিউবা স্বাস্থ্য কর্মী পাঠানো শুরু করে।

আলজেরিয়া থেকে ফ্রান্স যখন তার সমস্ত স্বাস্থ্যকর্মী প্রত্যাহার করে, তখনই কিউবা আলজেরিয়ার সেই স্বাধীনতা যুদ্ধে চিকিৎসা কর্মীদের দল দিয়ে সহযোগিতা করে। মানবিক সংকটে সাড়া দিতেও কিউবা তার চিকিৎসা দল দিয়ে সহায়তা করে থাকে। চিলি, নিকারাগুয়া, ইরানের ভূমিকম্পের পর, হাইতি, হুন্ডুরাস বা গুয়াতেমালায় বিধ্বংসী ঘূর্ণিঝড়ের পর, সুনামীর পর শ্রীলংকায়, কাস্মির ভূমিকম্পের পর পাকিস্তানে, ইবোলা সংক্রমণের সময় কিউবা পূর্ব আফ্রিকাতে স্বাস্থ্য কর্মী দল পাঠিয়ে চিকিৎসা সহায়তা দেয়।

 

কূটনৈতিক ভাবে এই ধরনের চিকিৎসা সহায়তা কিউবাকে যেমন সাফল্য দিচ্ছে, প্রশংসা আানছে, দেশটির অর্থনীতিতেও ফেলছে গুরুত্বপূর্ণ ইতিবাচক প্রভাব। ১৯৬৩ সাল থেকে প্রায় ৪ লাখ স্বাস্থ্য কর্মী বিভিন্ন দেশে পাঠিয়েছে কিউবা। দেশটির বৈদেশিক আয়ের প্রায় ৪৬% আসে বিশ্বের বিভিন্ন দেশে কর্মরত চিকিৎসক দলগুলোর কাছ থেকে। পৃথিবীর নানা দেশ থেকে চিকিৎসা শাস্ত্রে পড়াশুনা করতে এবং চিকিৎসা সেবা নিতেও প্রচুর লোক কিউবা আসে। ২০১৮ সালে দেশটি প্রায় ৬.৩ বিলিয়ন ডলার আয় করে চিকিৎসা সেবা থেকে, যা কিনা পর্যটন খাত থেকে প্রায় দ্বিগুন।

 

ক্ষুদ্র রাষ্ট্র কিউবা থেকে শিক্ষা নিতে পারি আমরা। গড়ে তুলতে পারি বিশ্বমানের চিকিৎসা সেবা, মেধাবী ও দক্ষ চিকিৎসা কর্মী। দেশের মানুষের পাশাপাশি সেই দল বিপদে পাশে দাঁড়াবে বিশ্ববাসীর। করোনার মতো সংকটে জিডিপি আর অস্ত্রসজ্জা নয়, কার্যকর হাতিয়ার যে উন্নতমানের যথাযথ চিকিৎসা ব্যবস্থাই, এটা এখন দিবালোকের মতো স্পষ্ট।

রেজাউল করিম চৌধুরী এবং মো মজিবুল হক মনির