পরিষ্কার পানি ও অ্যালকোহল সমৃদ্ধ হ্যান্ড স্যানিটাইজার ব্যবহারের পরামর্শ

জি এম নিউজ জি এম নিউজ

বাংলার প্রতিচ্ছবি

প্রকাশিত: ৬:১৬ অপরাহ্ণ, মার্চ ১৭, ২০২০ | আপডেট: ৬:১৬:অপরাহ্ণ, মার্চ ১৭, ২০২০

পরিষ্কার পানি ও অ্যালকোহল সমৃদ্ধ হ্যান্ড স্যানিটাইজার ব্যবহারের পরামর্শ দিয়েছে আমেরিকার রোগ নিয়ন্ত্রণ ও প্রতিরোধ কেন্দ্র। তবে ৭টি জিনিস স্পর্শ করা মাত্রই হাত ধুতে হবে। এতে ভাইরাস, ব্যাকটেরিয়া এবং অন্যান্য জীবাণু থেকে সুরক্ষায় থাকবে আপনার দেহ।

‌১. রেস্টুরেন্ট মেন্যু: রেস্টুরেন্টে খেতে গেলে সবাই কম-বেশি মেন্যু হাত দিয়ে ধরেন। খেয়াল করেছেন কি? এক মেন্যু অনেক মানুষই হাতে নেন। এতে লাখ লাখ ব্যাকটেরিয়া অবস্থান করে।

২. টাচস্ক্রিন: মোবাইল স্ক্রিন কিংবা অফিসের বায়োমেট্রিক স্ক্যানার আমাদের নিত্যদিনের কাজের অংশ। এগুলোও জীবানু বহন করে, কারণ আমরা সেগুলো অনেকসময় অন্যের হাতে দেই।

৩. টাকা: নোট বা কয়েন দিনে অনেকবার অদল-বদল হতে পারে। তাই এতে নানা ধরণের জীবাণু লেগে থাকে। তাই টাকা হাত দিয়ে ধরার পর অবশ্যই হাত জীবানুমুক্ত করে নিন।

৪. গাড়ি কিংবা দরজার হাতল: গণপরিবহনের হাতল, অফিস-আদালত, দোকানপাট, লিফট প্রভৃতির দরজায় হাত দেয়ার পর ব্যাকটেরিয়ার বিস্তার রোধে হাত ধোয়ার পরামর্শ দিয়েছেন গবেষকরা।

৫. চিকিৎসক ও হাসপাতালের জিনিসপত্র: একজন ডাক্তারের কক্ষে নানারকম রোগীর আসা-যাওয়া থাকে। ফলে সেখানকার অধিকাংশ জিনিসেই ব্যাকটেরিয়া বা জীবাণু থাকতে পারে। উদাহরণ- কলম; যা দিয়ে রোগীরা স্বাক্ষর করে থাকেন।

৬. কিচেন বোর্ড এবং স্পঞ্জ: রান্নাঘর হলো বাড়ির অন্যতম জীবাণুবোঝাই স্থান। এখানে বাজারের কাঁচা খাবারের সঙ্গে সঙ্গেই বিভিন্ন খাবার, ফলমূল, শাকসবজি, মাছ-মাংস এবং রান্নাঘরের জিনিসপত্র ধোয়া ও পরিষ্কার করা হয়।

৭. এয়ারপোর্টের জিনিসপত্র: প্রতিদিন অসংখ্য মানুষ বিমানে যাতায়াত করে। এয়ারপোর্টের জিনিসপত্রে অনেক মানুষের স্পর্শের ফলে জীবাণু ছড়ানোর সম্ভাবনাও বেশি।