ঝালকাঠিতে ভিসিজি ও এমআর টিকা সংকট, শিশু সন্তান নিয়ে দুশ্চিন্তায় মায়েরা

প্রকাশিত: ৫:৩৫ অপরাহ্ণ, ফেব্রুয়ারি ১২, ২০২০ | আপডেট: ৫:৩৫:অপরাহ্ণ, ফেব্রুয়ারি ১২, ২০২০

ঝালকাঠি জেলা স্বাস্থ্য বিভাগে ১মাস ধরে বাচ্চাদের যক্ষা প্রতিশেধক টিকা (ভিসিজি) ও হাম-রুবেলা (এমআর) টিকা সংকট দেখা চলছে। এ টিকা না থাকায় দুশ্চিন্তায় শিশু সন্তানদের অভিভাবকরা। প্রতিদিন শিশু সন্তানকে টিকা দেওয়ার জন্য স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে এসে ফিরে যাচ্ছেন মায়েরা। নির্দিষ্ট সময়ের মধ্যে এসব টিকা দিতে না পরলে শিশুদের সংশ্লিষ্ট রোগসহ নিউমোনিয়ায় আক্রান্ত হওয়ার আশঙ্কা রয়েছে বলে বিশেষজ্ঞরা জানিয়েছেন।
সিভিল সার্জন অফিস সূত্রে জানাগেছে, এক মাস ধরে ঝালকাঠি সিভিল সার্জন কার্যালয়ের স্টোরে নেই ভিসিজি ও এমআর টিকা। রুটিন অনুযায়ী যে শিশুরা ভিসিজি ও এমআর টিকা পাবে, প্রতিদিন তাদের নিয়ে স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে এসে ফিরে যাচ্ছেন মায়েরা। সন্তানকে সময়মতো টিকা দিতে না পারায় দুশ্চিন্তায় আছেন অভিভাবকরা। টিকা নিতে আসা একাধিক শিশুর মা জানান, নির্দিষ্ট সময়ে টিকা দিতে না পারলে শিশুর ক্ষতি হতে পারে।
ঝালকাঠি সদর হাসপাতালে গিয়ে দেখা যায়, সকাল ৯টা থেকে হাসপাতাল ভবনের জরুরী বিভাগ সংলগ্ন পশ্চিম পাশে টিকাদান কেন্দ্রের সামনে শিশুদের নিয়ে দাঁড়িয়ে আছেন কয়েকজন মা। ওই কক্ষের দায়িত্বে থাকা স্বাস্থ্য সহকারী দরজা খুলে প্রবেশের পরপরই শিশুদের বিভিন্ন ধরনের টিকা দিতে থাকেন। ভিসিজি ও এমআর টিকা না থাকায় কয়েকজন শিশুর অভিভাবককে তিনি ফিরিয়ে দেন। টিকাদানের কার্ডে নির্দিষ্ট সময় লেখা থাকলেও তা পার হয়ে গেছে অনেকের।
মেয়ের জন্য হামের টিকা নিতে আসা শহরের কৃষ্ণকাঠির বাসিন্দা আজিজুল বলেন, ‘মেয়েকে দীর্ঘদিন ধরে হামের টিকা দেওয়ার জন্য হাসপাতালে ঘুরে বেড়াচ্ছি, সরবরাহ নেই বলে বারবার ফিরিয়ে দেয়া হচ্ছে। এ টিকা বাইরে কোথাও বিক্রি হয় না। এটা হাসপাতাল থেকেই নিতে হয়। এখানে এক মাস ধরে পাচ্ছি না। পরে সমস্যা হলে এ দায়ভার কে নেবে!’
আতাকাঠি গ্রামের জোৎ¯œা আক্তার বলেন, ‘আমার ছেলেকে নিয়ে টিকা দিতে হাসপাতালে এসে ফিরে যাচ্ছি। তিন দফায় আমাকে এসে টিকা না দিয়ে ফিরে যেতে হয়েছে। এখন মনে আতঙ্ক কাজ করছে, সময়মতো টিকা দিতে না পারলে কোনো সমস্যা হয় কি না। জরুরি ভিত্তিতে টিকা সরবরাহের দাবি জানান তিনি।’
হাসপাতালে স্বাস্থ্য সহকারী (নার্স) সোনিয়া আক্তার বলেন, ‘প্রতিদিন অসংখ্য মা তার সন্তানের জন্য এখানে বিভিন্ন টিকা নিতে আসছেন। ভিসিজি ও এমআর টিকা না থাকায় তারা এসেও ফিরে যাচ্ছেন। এক মাস ধরে আমাদের সরবরাহ না থাকায় দিতে পারছি না।’
ঝালকাঠি সিভিল সার্জন কার্যালয় সূত্রে জানা গেছে, সরবরাহ না থাকায় স্টকে ভিসিজি ও এমআর টিকার সংকট রয়েছে। হাসপাতালের বহির্বিভাগে আসা রোগী ও স্বজনদের ফিরে যেতে হচ্ছে। সরবরাহ না দিলে এসব টিকা নিতে আসা মানুষদের এভাবে বার বার ফিরে যেতে হবে।’
ঝালকাঠি সিভিল সার্জন ডা. শ্যামল কৃষ্ণ হাওলাদার বলেন, ‘নির্দিষ্ট সময়ে শিশুকে হাম-রুবেলার টিকা প্রয়োগ করা না গেলে মামস, জ্বর, র‌্যাশ ওঠা এবং সংশ্লিষ্ট রোগসহ নিউমোনিয়ায় আক্রান্ত হওয়ার আশঙ্কা বেড়ে যায়। আমরা বিষয়টি ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষকে চিঠির মাধ্যমে জানিয়েছি। কবে নাগাদ হাম-রুবেলার টিকা সরবরাহ পাওয়া যাবে, তা নিশ্চিতভাবে বলতে পারছি না। ’