বিএনপি’র লজ্জা নাই, ওদের দুই কান কাটা: নানক

জি এম নিউজ জি এম নিউজ

বাংলার প্রতিচ্ছবি

প্রকাশিত: ৮:২৫ অপরাহ্ণ, ডিসেম্বর ৬, ২০১৯ | আপডেট: ৮:২৫:অপরাহ্ণ, ডিসেম্বর ৬, ২০১৯

ঠাকুরগাঁও বাসিকে অভিনন্দন জানিয়ে আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট জাহাঙ্গীর কবির নানক বলেছেন, আপনারা এই এলাকা থেকে নির্বাচনের সময় ভোটের মাধ্যমে সুচিন্তিত মতামত দিয়ে বিএনপির ম*হাসচিব মির্জা ফ*খরুল ইস*লাম আল*মগীরকে প্রত্যাখ্যান করেছেন। বিএনপি’র রাজনীতিকেও প্রত্যাখ্যা*ন করেছেন। তিনি গিয়ে আশ্রয় নিয়েছেন ব*গুড়ায়। এরচেয়ে লজ্জার আর কিছু থাকতে পারে না। কিন্তু ওরা লজ্জা পায় না, ওদের লাজুক*তা নাই।

তিনি বলেন, ‘যার এক কান কাটা সে হাটে রাস্তার এক পাশ দিয়ে। আর যার দুই কান কাটা সে লজ্জা শ*রমের মাথা খেয়ে হাটে রাস্তার মাঝখান দিয়ে।বিএনপির হলো দুই কান কাটা। ওদের নেতা গ্রেপ্তার হয় দুর্নীতির দায়ে। শুক্রবার বিকেলে ঠাকুরগাঁওয়ে জেলা আওয়ামী লীগের ত্রি-বার্ষিক সম্মেলনে প্রধান অতিথির বক্তব্যে এ সব কথা বলেন।

এর আগে বিকেল ৩ টায় শুরু হওয়া সম্মেলনের উদ্বোধন করেন আওয়ামী লীগের সভাপতি মন্ডলীর স*দস্য রমেশ চন্দ্র সেন। সম্মেলনের প্রধান বক্তা ছিলেন আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক বিএম মোজাম্মেল হক। জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি আল*হাজ্ব দবিরুল ইসলামের স*ভাপতিত্বে সম্মেলনে আরো বক্তব্য রাখেন আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক ও নৌপরিব*হন প্রতিমন্ত্রী খালি*দ মাহমুদ চৌধুরী, সংরক্ষিত মহিলা আসনের সংস*দ সদস্য জাকিয়া তাবাসসুম জুঁই, জেলা আওয়ামী লীগের সাধার*ণ সম্পাদক সাদেক কুরাইশী।

বিএনপি নেতাদের উদ্দেশ্যে নানক বলেন, আপনারা আবোল তাবোল বকেন। প্রধান বিচারপতির এজলাসে গিয়ে হট্টগোল করেন এবং ঢাকা শহরের দুইটি গাড়ি ভেঙ্গে খালেদা জিয়াকে মুক্তি করতে চান। কিন্তু আইনি লড়াই ছাড়া খালেদা জিয়াকে মুক্তি করতে পারবেন। নিজ দলের নেতাকর্মীদের উদ্দেশে “মুই কার হনুরে” মনে হতাশা দূর করার কথা উল্লেখ করে নানক বলেন, মনে রাখতে হবে, আওয়ামীলীগ চারবার ক্ষমতায়। আমরা যারা রাজনীতি করি আমরা হচ্ছি পানির মাছ। পানি গরম হলে যেমন মাছ টিকে থাকতে পারে না। তেমনি ভাবে আমাদের পেছনে থেকে যদি মানুষ সরে যায় তাহলে আমরা আর বেশিদূর এগোতে পারব না। কাজেই মানুষের সঙ্গে সম্পর্ক করতে হবে। মানুষের হৃদয়ের সঙ্গে আত্মার সঙ্গে সম্পর্ক গড়ে তুলতে হবে।

বিএনপি মহাসচিব কে ঠাকুরগাঁওয়ের কু*লাঙ্গার উল্লেখ করে আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক বিএম মোজাম্মেল হক বলে*ন, মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর হুমকি দিচ্ছেন, খালেদা জিয়াকে জে*ল থেকে ছাড়তে হবে। চোর যদি চুরি করে *তাহলে তা*র শাস্তি হবেই। খালেদা জিয়া দুইবার প্রধানমন্ত্রী ছিলেন। সে সময় তিনি এতিমের টাকা আত্মসাৎ করেছেন। এজন্য তার জেল হয়েছে। আইন তাকে জেল দিয়েছে। কিন্তু আম*রা ঘৃণার সঙ্গে লক্ষ করলাম ফখ*রুল ইসলাম সুপ্রিম কোর্টে তার গুন্ডাবাহিনী নিয়ে অ*রাজকতা সৃষ্টি করেছেন। এভাবে তিনি খালেদা জিয়াকে জেল থেকে বে*র করে নিয়ে আসতে চান। তারা যখন ক্ষমতায় ছিল। ত*খন সারা বাংলাদেশ হত্যা খুন ধর্ষণের অভয়ারণ্যে পরিণত করেছিল। উত্তরাঞ্চলে বাংলা ভাই সৃষ্টি করেছিল। তার অত্যাচার-নির্যাতনের কথা এ এলাকার মানুষ ভুলে যায়নি।

বি এম মোজাম্মেল হক আরো বলেন, মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরের পরিবার স্বাধীনতা বিরোধী ছিলো। তার পরিবার স্বাধীনতা চায়নি। তারা স্বাধীনতা বিরোধী শক্তি। আর এই স্বাধীনতা বিরোধী শক্তিদের একত্রিত করে খালেদা জিয়া শেখ হাসিনার উন্নয়ন অগ্রগতিকে ষড়যন্ত্রের মাধ্যমে বাধাগ্রস্ত করছেন।

আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক খালিদ মাহমুদ চৌধুরী বলেন, ঠাকুরগাঁও থেকে বিতাড়িত একজন মানুষ (মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর) সমগ্র বাংলাদেশকে অস্থিতিশীল করার চেষ্টায় লিপ্ত। দেশে বিশৃঙ্খলা সৃষ্টিকারী বিএনপি নামক ষড়যন্ত্রকারী এই রাজনৈতিক চক্র কে আমরা নির্মূল করব।

তিনি বলেন, বাংলাদেশ এগিয়ে যাচ্ছে। এই বাংলাদেশ থেকে’ ক্ষুধা দারিদ্র সন্ত্রাস জঙ্গিবাদ দূর করেছেন বঙ্গবন্ধু কন্যা শেখ হাসিনা। তিনি বাংলাদেশকে বিশ্ব দরবারে উন্নয়নের কাতারে নিয়ে গেছে। এ বাংলাদেশের অগ্রযাত্রা ষড়যন্ত্র করে থামানো যাবে না। সম্মেলনের দ্বিতীয় অধিবেশনে ঠাকুরগাঁও জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক সাদেক কুরাইশীকে সভাপতি ও বিলুপ্ত কমিটির যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক দীপক কুমার রায়কে সাধারণ সম্পাদক করে মোট ১২ সদস্যের কমিটি ঘোষণা করা হয়। দ্রুত পূর্ণাঙ্গ কমিটি করে কেন্দ্রে জমা দিতে নির্দেশ দেয়া হয়।