তোকে দুই বছরের জন্য কিনে এনেছি

জি এম নিউজ জি এম নিউজ

বাংলার প্রতিচ্ছবি

প্রকাশিত: ১১:৫৮ পূর্বাহ্ণ, নভেম্বর ২৯, ২০১৯ | আপডেট: ১১:৫৮:পূর্বাহ্ণ, নভেম্বর ২৯, ২০১৯

আমি দেশে আসার কথা বললে মালিক আমাকে বলে ‘তোকে দুই বছরের জন্য কিনে এনেছি’। সুতরাং তোকে আম’রা বাংলাদেশে পাঠাবো না। এরপরও আমি আসার জন্য কা’ন্নাকাটি করলে তারা আমাকে বেধরক মা’রপিট করে। পরে লুকিয়ে আমি বাসার ছাদে গিয়ে ভিডিও করে আমা’র স্বামীর কাছে পাঠাই।

কথাগুলো বলছিলেন সৌদি আরবে নি’র্যাতনের শিকার হয়ে বাঁ’চার আকুতি জানিয়ে ভিডিও বার্তা পাঠানো হবিগঞ্জের সেই হোসনা আক্তার।

দেশে ফিরে তিনি বলেন, ‘সৌদি আরব যাওয়ার পর আমাকে জেদ্দা থেকে হাজার কিলোমিটার দূরে নিয়ে যাওয়া হয়। সেখানে একটি ঘরে আমাকে আ’ট’কে রাখা হয়। ঠিকভাবে খেতে দিতো না; প্রায়ই নি’র্যাতন করতো। দেশে আসতে চাইলে নি’র্যাতন বেশি করতো।’

সেখানে (সৌদি আরব) শুধু আমি না, আমা’র মতো আরও অনেক নারী নি’র্যাতনের শিকার হচ্ছে। খোঁজ নিয়ে তাদের উ’দ্ধার করা উচিত। তারা খুব ক’ষ্টে আছে বলেও জানান হোসনা আক্তার।

এর আগে গতকাল বৃহস্পতিবার (২৮ নভেম্বর) সকালে হোসনা আক্তার তার স্বামীর বাড়ি জে’লার আজমিরীগঞ্জ উপজে’লার আনন্দপুর গ্রামে পৌঁছান। গত বুধবার রাত ১১টা ২০ হোসনা আক্তারকে বহনকারী সৌদি এয়ারলাইন্সের এসভি-৮০৪ ফ্লাইট শাহ’জালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে অবতরণ করে। পরে প্রবাসীকল্যাণ মন্ত্রণালয়ের কর্মক’র্তারা হোসনাকে তার পরিবারের কাছে হস্তান্তর করেন।

হোসনার স্বামী শফিউল্লাহ বলেন, ‘আমি গরিব হওয়ার কারণে দালাল সাহিনের প্রলো’ভনে পরে আমা’র স্ত্রী’কে বিদেশ পাঠিয়েছিলাম। আর যেন কোন নারী বিদেশ না যায়। সেই সাথে আমি দালাল সাহিনের দৃষ্টান্তমূলক বিচার চাই।’

উল্লেখ্য, ভাগ্য বদলের আশায় মাত্র ২৫ দিন আগে সৌদি আরব গিয়েছিলেন হোসনা আক্তার। কিন্তু সেখানে যাওয়ার কয়েকদিন পর থেকেই নি’র্মম নি’র্যাতনের শিকার হন তিনি। একপর্যায়ে নি’র্যাতন সইতে না পেরে বাঁ’চার আকুতি জানিয়ে স্বামীর কাছে একটি ভিডিও বার্তা পাঠান হোসনা।