মাননীয় প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনার নিকট আকুল আবেদন:

দক্ষতা উন্নয়ন প্রশিক্ষণ কেন্দ্র, শহর সমাজসেবা কার্যালয়, সমগ্র বাংলাদেশের ৮০টি ইউসিডি প্রশিক্ষকের খোলা চিঠি

জি এম নিউজ জি এম নিউজ

বাংলার প্রতিচ্ছবি

প্রকাশিত: ৬:২৫ অপরাহ্ণ, নভেম্বর ২৫, ২০১৯ | আপডেট: ৬:২৭:অপরাহ্ণ, নভেম্বর ২৫, ২০১৯

সমাজসেবা অধিদফতরাধীন বিভিন্ন শহর সমাজসেবা কার্যালয়ে পরিচালিত দক্ষতা উন্নয়ন প্রশিক্ষণ কেন্দ্রের বিভিন্ন প্রশিক্ষকের চাকুরী রাজস্ব খাতে স্থানান্তরের জন্য মাননীয় প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনার নিকট আকুল আবেদন।

 

দেশরতœ মাননীয় প্রধানমন্ত্রী আমাদের স্বশ্রদ্ধ সালাম গ্রহণ করুন। সমাজসেবা অধিদফতরের সবচেয়ে আদি প্রতিষ্ঠান শহর সমাজ উন্নয়ন প্রকল্প পরবর্তীতে শহর সমাজসেবা কর্মসূচীর অধীন ৮০ টি কার্যালয়ের মাধ্যমে সমাজের অনগ্রসর ও পিছিয়ে পড়া দরিদ্র জনগোষ্ঠীর আত্বকর্মস্থানের জন্য বিভিন্ন কর্মযজ্ঞ করে আসছে যার মধ্যে প্রশিক্ষণ কার্যক্রমও একটি। জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ১৯৭২ সালের মহান সংবিধানের ১৫ (ঘ) অনুচ্ছেদের অধীন ও তারই ধারাবাহিকতায় দেশের ৬৪ টি জেলায় বিভিন্ন শ্রেনী ও পেশার জনগোষ্ঠীকে প্রশিক্ষণ প্রদানের মাধ্যমে দক্ষ জন সম্পদ তথা রুপকল্প ২০২১ বাস্তবায়নে বদ্ধ পরিকর। আর প্রশিক্ষণের এই কর্মযজ্ঞ চালিয়ে যাচ্ছি আমরা হতভাগা শতাধিক প্রশিক্ষক। আমাদের প্রশিক্ষণে দক্ষ মানব সম্পদ তৈরী হয়ে লক্ষ লক্ষ ছেলে মেয়েরা বঙ্গবন্ধুর সোনার বাংলায় বিভিন্ন সরকারী, বেসরকারী প্রতিষ্ঠানে চাকুরী করে চলছে।

 

কেউবা নিজেই বিভিন্ন প্রতিষ্ঠান দাঁড় করিয়ে ফেলেছে। কিন্তু দীর্ঘ সময়ে আমাদের চাকুরীর কোন ভাল বেতন এমনকি কোন গ্রেডেই আমাদের মূল্যায়ণ করা হয়নি। মানবেতর জীবন যাপন করছি আমরা। ডিজিটাল বাংলাদেশ বিনির্মানে আমাদের মাধ্যমে পরিচালিত কম্পিউটার প্রশিক্ষণ সকলের কাছে সমাদৃত। হে মানব দরদী জননী, পরশ পাথরের সংস্পর্শে যেমন সব খাটি সোনা হয়ে যায় তেমনি আপনার নেতৃত্বে সমাজের পিছিয়ে পড়া বলতে কেউ থাকবে না। যত দিন বাঙালী জাতী বেঁচে থাকবে ততদিন আপনাকে স্বরণ করবে কারণ অবহেলিত এমন কোন জনগোষ্ঠী নাই যে আপনার দুরদর্শী চিন্তার প্রতিফলন থেকে বঞ্চিত হয়েছে।

 

যার সর্বোৎকৃষ্ট উদাহরণ প্রান্তিক জনগোষ্ঠী/অনগ্রসর জনগোষ্ঠি,দলিত হরিজন সম্প্রদায় তথা কামার, কুমার, নাপিত, রাজ মিন্ত্রী, হিজড়া সম্প্রদায়, কওমী মাদ্রাসার ছাত্র/শিক্ষক এমনকি ভিক্ষুক সম্প্রদায়ের কোন লোক পিছিয়ে থাকবে না সমাজসেবা অধিদপ্তরে প্রশিক্ষণ দিয়ে তাদের স্বাবলম্বী করণের মাধ্যমে সমাজের মূল স্রোতধারায় ফিরেয়ে আনার গুরু দায়িত্ব পালনে নিরলস কাজ করে যাচ্ছে এই দফতরের আপনার আস্থাভাজন সকল কর্মচারীরা। হে গর্বিত বাঙালির প্রিয় প্রধানমন্ত্রী, আপনি ঘরে ঘরে চাকুরী দেয়ার কথা বলেছেন। রেজিষ্টার প্রাথমিক বিদ্যালয় যারা কখনও চিন্তাও করেনি যে তাদের চাকুরী রাজস্ব হবে। আপনার সুদুর প্রসারী নেতৃত্বে তাদের সকলের চাকুরী আজ রাজস্ব হয়েছে। আপনার একটু অনুকম্পায় আমরা যারা বিভিন্ন শহর সমাজসেবা কার্যালয়ে ৮০ টি দক্ষতা উন্নয়ন প্রশিক্ষণ কেন্দ্রে বিভিন্ন প্রশিক্ষণ দিয়ে আসছি তাদের চাকুরী রাজস্ব হবে।

মাননীয় প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনার নিকট আকুল আবেদন:

আমরা চাই আমাদের স্বাভাবিক জীবন যাপনের জন্য আপনার একটু দয়া। হে জাতির পিতার সুযোগ্য কন্যা আদর্শে ও গণতন্ত্রে বিশ্বাসী বাংলাদেশের উন্নয়নে সীমাহীন সাফল্যে আপনি এখন বিশ্ব নেতার শীর্ষস্থানে উপনীত। উন্নত, সমৃদ্ধশালী এবং ডিজিটাল বাংলাদেশের রুপকার, উন্নয়ন ও সমৃদ্ধির বাংলাদেশ গড়ার কারিগর, মানবতার মা আপনার বিকল্প একমাত্র আপনিই। আপনার সুযোগ্য নেতৃত্বে বঞ্চিতরা তাদের আশার আলো দেখেছে। হে স্নেহময়ী বঙ্গজননী, আমরা কার কাছে যাব? কার কাছে বলব, কে শুনবে আমাদের কথা, আমরা নিরুপায়, তাই বাধ্য হয়ে আপনার নিকট আকুল আবেদন। মাননীয় প্রধান মন্ত্রী যার কেউ নেই তার আল্লাহ আছেন আর উছিলা হিসেবে আপনি আছেন।

আমরা আপনার সন্তান সমতূল্য। তাই হতভাগা আমরা এসব প্রশিক্ষকরা যাদের বেশিরভাগ প্রশিক্ষকের চাকুরীর বয়স শেষ হয়ে গেছে অন্য কোন পেশায় যাওয়ার রাস্তাও খোলা নাই। তাই আপনার দুয়ারে হাত পেতেছি। আমরা ও আমাদের পরিবার আপনার মুখপানে চেয়ে আছি। আপনি স্বপ্ন দেখিয়েছেন, ১৬ কোটি মানুষের দায়িত্ব আপনি নিয়েছেন। আপনার ডায়নোমিক নেতৃত্বে দেশ এগিয়ে যাচ্ছে নিন্ম থেকে স্বল্প উন্নত, স্বল্প উন্নত থেকে উন্নয়নশীল, উন্নয়নশীল থেকে মধ্যম আয়ের দেশে উন্নত হচ্ছে তাহলে আমরা কেন বঞ্চিত হব? আমাদের ন্যায্য অধিকারের জন্য আপনার সানুগ্রহ ও হস্তক্ষেপ কামনা করছি।

 

হে উন্নত বাংলার স্বপ্নদ্রষ্টা জননী, আমাদের ক্ষমা করবেন। নিরুপায় হয়ে অশ্রুসজল চোখে আপনার নিকট আমাদের চাকুরী রাজস্ব করণের নিবেদন জানাচ্ছি। আমরাও স্বপ্ন দেখেছি আপনার নেতৃত্বে জাতির জনক বঙ্গবন্ধুর সোনার বাংলা বিনির্মানে সহ যোদ্ধা হওয়ার। মহান আল্লাহ আপনার নেক আয়ু ও সব সময়ে সুস্থতা দান করুক। ৮০ টি ইউসিডি এর সমগ্র প্রশিক্ষকের পক্ষে এস এম রাসেল প্রধান কম্পিউটার প্রশিক্ষক দক্ষতা উন্নযন প্রশিক্ষণ কেন্দ্র শহর সমাজেসবা কার্যালয়, মেহেরপুর।