নারীরাই পুরুষ জীবনের অনুপ্রেরণার আধার

জি এম নিউজ জি এম নিউজ

বাংলার প্রতিচ্ছবি

প্রকাশিত: ৮:০৫ অপরাহ্ণ, ডিসেম্বর ২১, ২০১৭ | আপডেট: ৮:০৫:অপরাহ্ণ, ডিসেম্বর ২১, ২০১৭
নারীরাই পুরুষ জীবনের অনুপ্রেরণার আধার

মোহাম্মদ আবদুল্লাহ মজুমদার

নারী শব্দটি পৃথিবীর সবচেয়ে মমতাময়ী ও কোমল শব্দ। যা শুনলে অন্তরভাগ ও আপাদমস্তক দারুনভাবে সিক্ত হয়। নারী ছাড়া জীবনের সূচনা ও অন্ত উভয়টি অপূর্ণাঙ্গ এবং অনেকটা ব্যর্থতাই মত। জীবনাচরণকে গভীরভাবে বিবেচনা করলে দেখা যায় বেঁচে থাকার মৌলিক উপাদান সমূহের অন্যান্য উপাদানের মত নারীর সহচর্য ও কোমল পরশ একটি আবশ্যকীয় উপাদান। যা শুধুমাত্র তেমন সংকটের সম্মুখীন হলে অনুধাবন করা যায়।
পৃথিবীতে আগমনের পর থেকে নারীর হাত ধরে নিজের পায়ে দাঁড়ানো থেকে শুরু করে জীবনের প্রতিটি ধাপে নারীর পরশ বিভিন্ন ভাবেই আমাদের অনুপ্রেণা যোগায়। প্রত্যেকটি অনুপ্রেরণার স্বাদ, সম্পর্ক ও গন্ধ সম্পূর্ণ ভিন্ন প্রজাতির অনুভবের সৃষ্টি করে আমাদের মাঝে। সম্পর্কিত ছবি
কিন্তু যুগে যুগে বিভিন্ন প্রকারের নৈতিকতার অজুহাত ও হারেক রকমের সাইনর্বোড ধারণ করে নারীদের এগিয়ে যাওয়া ও প্রশস্ত জীবনের পথকে অবরুদ্ধ করেছে নারীদস্যুরা। কিন্তু সে বাধা অতিক্রম করেও নারীসমাজ এগিয়ে চলছে যুগ থেকে যুগান্তরের কাঙ্খিত গন্তব্যে।
ধর্ষণ, উত্যক্ততা নারী জীবকে করে তোলেছে অসহ্য ও যন্ত্রণাদায়ক। ধর্ষণ করে একটি নারীর প্রতি ধর্ষক তার যৌনক্ষুদা নিবারণ করে নাহয় নারীর প্রতি কোন প্রতিশোধমূলক অতীতের ইতি টানে। কিন্তু প্রশ্ন হলো এতে কি নারীর প্রতি শতভাগ প্রতিশোধের আগুন নিভানো যায়। প্রতিশোধ গ্রহনের আরো শত সহ¯্র নিরব ও নিস্তব্ধ পদ্ধতি পৃথিবীতে বিদ্যমান রয়েছে। প্রকৃত জ্ঞানের অভাবেই সারা দুনিয়ায় এ ধরণের বোকামিপূর্ণ কর্মকান্ডের সৃষ্টি হয়।
আর পতিতাবৃত্তি হলো এমন একটি পেশা যার আবিষ্কার করা হয়েছে নারী ও পুরুষের সম্মিলিত উদ্যোগে। কোন নারী এটিকে স্বাচ্ছন্দে গ্রহণ করে, কেউ আবর বাধ্য হয়ে এ জগতে প্রবেশ করে, আর পুরুষেরা তাদের যৌনক্ষুধার দায়ে অন্ধ হয়ে শেষ পর্যন্ত এ জগতেই নিজেদের বিলিয়ে দেয়। সম্পর্কিত ছবি
কিন্তু বর্তমান শতাব্দিতে নারীদের উক্ত ব্যাপারগুলো সহ আরো বিভিন্ন অ্যাফেয়ার ব্যবহার করে স্বার্থন্বেষী গোষ্ঠি যার যার অবস্থান থেকে স্ব স্ব উদ্দেশ্য সমূহ অর্জন করে নিচ্ছে। অর্থাৎ নারী বিষয়ক অ্যাফেয়ার গুলো এখন মার্কেটিং এর সর্বোত্তম উপায়। এর ব্যবহার যেমন পুরুষদের মাঝে হচ্ছে তেমনই ব্যাপকভাবে ব্যবহৃত হচ্ছে নারীদের মাঝে।
কাপুরুষেরা নারীদের দুর্বলতাকে ব্যবহার করে যাবে এটিই স্বাভাবিক। কিন্তু এখন নারীদের ইস্যু ব্যবহার করে পুরুষদের চেয়ে নারীরাই বেশি সুবিধা আদায় করে নিচ্ছে। নারী হয়ে নারীত্বের অবমাননায় সুযোগ লাভের উল্লাসে মেতে উঠার মত নির্লজ্জতাও প্রতক্ষ্য করতে হচ্ছে এ বিংশ শতাব্দিতে। নারী এর ছবি ফলাফল
এ ধরণের সুযোগ সন্ধানী নারী পুরুষদের বৈরিতাকেও হার মানিয়ে আরোহন করছে নির্লজ্জতার এক অনন্য উচ্চতায়। পুরুষরা যখন তাদের দিকে দৃষ্টি নিক্ষেপ করে তখন তাদের খুবই ভালো লাগে। যখন তাদের শরীর স্পর্শ করে তখন তাদের ভালো লাগে। যখন এর আরো গভীরতায় পৌছায় তখনও তাদের ভালো লাগে। এরপর সকল কার্য সম্পাদন শেষে যখন সে পুরুষটিকে লোক সম্মুখে মানহানি, জরিমানা থেকে শুরু করে লাল দালান পর্যন্ত ঘুরিয়ে আনে তখনও তারা আত্মতৃপ্তিতে ভোগে। বিংশ শতাব্দিতে সুযোগলোভী নারীরাই নারীত্বের সর্বোচ্চ অবমাননা করে যাচ্ছে।
অথচ নারীরা হলো পৃথিবীতে পথ চলার আলো, জীবনের নির্যাস, স্বপ্নের স্বনির্ভর উৎস, বেঁচে থাকার এক নির্ভরশীল দুনিয়া। নারীরাই পুরুষ জীবনের অনুপ্রেরণার আধার।

লেখক
উপ-সম্পাদক
দৈনিক আমাদের অর্থনীতি