আইসিপিডি+২৫: জনসংখ্যার সুফল কাজে লাগাতে সমন্বিত অর্থনীতির দিকে এগুবে বাংলাদেশ

প্রকাশিত: ১০:৫৮ অপরাহ্ণ, নভেম্বর ১৬, ২০১৯ | আপডেট: ১০:৫৮:অপরাহ্ণ, নভেম্বর ১৬, ২০১৯

১৯৯৪ সালে কায়রোতে অনুষ্ঠিত প্রথম জনসংখ্যা ও উন্নয়ন সংক্রান্ত আন্তর্জাতিক সম্মেলনের ২৫ বছর পূর্তির প্রেক্ষাপটে বাংলাদেশ সরকারের পক্ষে ৫টি প্রতিশ্রুতি তুলে ধরেছেন স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রী জাহিদ মালেক।

অঙ্গীকার ব্যক্ত করতে গিয়ে পরিবার পরিকল্পনা কার্যক্রমের অংশীদার হিসেবে পুরুষদের আরও বেশি যুক্ত করার ঘোষণা দেন তিনি।

 নাইরোবি সম্মেলনে স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রী বলেন, বাংলাদেশ ১৯৯৪ সালে কায়রোতে অনুষ্ঠিত জনসংখ্যা উন্নয়ন সম্মেলন (আইসিপিডি)’র কর্মপরিকল্পনা বাস্তবায়নে দৃঢভাবে অঙ্গীকারাবদ্ধ। বাংলাদেশকে মধ্যম আয়ের দেশে পরিণত করতে হলে জনসংখ্যার সুফল কাজে লাগাতে সমন্বিত অর্থনীতির দিকে এগুবে বাংলাদেশ। এজন্য তারুণ্যের সম্ভাবনা কাজে লাগাতে সরকার আরো কাজ করবে। অপূরনীয় পরিবার পরিকল্পনা সুবিধা জণগনের দোড়গোড়ায় পৌছে দিতে সরকার অরো উদ্যোগ গ্রহণ করবে।

জনসংখ্যা নিয়ন্ত্রণ, পরিবার পরিকল্পনা ও প্রজনন স্বাস্থ্য অধিকার নিয়ে নানা কার্যক্রম পরিচালনার পাশাপাশি নারীর প্রতি সবধরনের সহিংসতা ও বাল্যবিবাহ বন্ধে সরকার পুর্ন অঙ্গীকার ব্যক্ত করেন স্বাস্থ্যমন্ত্রী।

স্বাস্থ্যমন্ত্রীর পাঁচটি প্রতিশ্রুতি হলো- মাতৃমৃত্যু হার হ্রাসকরণ, পরিবার পরিকল্পনা পদ্ধতি ব্যবহারের ক্ষেত্রে অপূর্ণ চাহিদার হার হ্রাসকরণ, লিঙ্গভিত্তিক সহিংসতা হ্রাসকরণ, এসডিজির সাথে সংগতি রেখে জনমিত্তিক বৈচিত্র সংক্রান্ত বিষয়াদি মোকাবেলাপূর্বক জনমিত্তিক লভ্যাংশ অর্জন ও আইসিপিডি এবং এসডিজি অর্জনে দক্ষিণ-দক্ষিণ ও ত্রৈমাত্রিক সহযোগিতা জোরদারকরণ।   

I

স্বাস্থ্যমন্ত্রী জাহিদ মালেকের নেতৃত্বে প্রতিনিধি দলে ছিলেন পরিকল্পনা মন্ত্রী এম এ মান্নান এমপি, বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটির সভাপতি ও সাবেক স্বাস্থ্যমন্ত্রী অধ্যাপক ডা. আ ফ ম রুহুল হক,  মহিলা ও শিশু বিষয়ক মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটির সভাপতি মেহের আফরোজ চুমকি এমপি, ফখরুল ইমাম এমপি, সংসদ সদস্য অ্যারোমা দত্ত, এসপিসিপিডি’র সহকারী সচিব ও উপপ্রকল্প পরিচালক একেএম আব্দুর রহিম ভূঞা, স্বাস্থ্য ও পরিবার মন্ত্রণালয়ের সচিব ইউসুফ হারুন ও মন্ত্রণালয়ের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা অংশ নেন। অ

বির্ণিমাণ অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন ব্রাক ও পিপিআরসির চেয়ারম্যন ড. হোসেন জিল্লুর রহমান, জাতিসংঘ জনসংখ্যা তহবিল বাংলাদেশের দেশীয় পরিচালক আশা টোরকেলসন প্রমুখ।

 সম্মেলনের ১২ নভেম্বর প্রথমদিনে  পিপিডি এবং জাতিসংঘ জনসংখ্যা তহবিল’র  আয়োজনে দক্ষিণ-দক্ষিণ ও ত্রৈমাত্রিক সহযোগিতা শীর্ষক আলোচনাতে স্বাস্থ্যমন্ত্রী জাহিদ মালেক মডারেটর হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন। সম্মেলনে আইসিপিডি’র কর্মপরিকল্পনা বাস্তবায়নে অগ্রগতি, চ্যালেঞ্জ ও ভবিষ্যৎ করণীয়সহ সার্বজনীন প্রজনন অধিকার, জ্যামিতিক ডেমোগ্রাফিক বৈচিত্র লভ্যাংশ ডিভিডেন্ট লিঙ্গভিত্তিক সহিংসতা দূরীকরণ প্রভৃতি বিষয়াদির গুরুত্বপূর্ণ দিকগুলোও তুলে ধরা হয়।

সম্মেলনে প্যানেল আলোচক হিসেবে চীনের স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের ভাইস প্রেসিডেন্ট ড. ইয়ু ইয়ুজন, গাম্বিয়ার নারী, শিশু ও সমাজকল্যাণ মন্ত্রী ফাতায়ু কিনাহ, দক্ষিণ আফ্রিকার লিন্ডাওয়ে জুলু, ব্রাজিলের স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের ওসালাদো ফাউন্ডেশনের প্রেসিডেন্ট ড. নিসিয়া ত্রিনদাদে লিমা, আইপিপিএফের ডিরেক্টর জেনারেল ড. আলভারো বারমেজো এবং কেনিয়াসহ অন্যান্য দেশের সরকারি প্রতিনিধিসহ বিভিন্ন সংস্থা ও প্রতিষ্ঠানের প্রধানগণ আইসিপিডি ও পিওএ বাস্তবায়নের লক্ষ্যে নানা প্রতিশ্রুতিও ব্যক্ত করেন।  নাইরোবির এই সম্মেলনটি অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ বলে বক্তারা অভিহিত করেন।